Home Tags Posts tagged with "১০ কোটি ৫০ লক্ষ টাকার ৩"

১০ কোটি ৫০ লক্ষ টাকার ৩

আয়াজ আহমাদ:

কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানাধীন সাবরাং ইউপির হারিয়াখালী এলাকায় অভিযান চালিয়ে আনুমানিক ১০ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা মূল্যের ৩,৫০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‍্যাব-৭ চট্টগ্রাম।

র‍্যাব-প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সমাজের বিভিন্ন অপরাধ এর উৎস উদ্ঘাটন, অপরাধীদের গ্রেফতারসহ আইন শৃঙ্খলার সামগ্রিক উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।, র‍্যাব-৭,চট্টগ্রাম; অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, ডাকাত, ধর্ষক, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী,

খুনি, বিপুল পরিমাণ অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার, মাদক উদ্ধার, ছিনতাইকারী, অপহরণকারী ও প্রতারকদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করায় সাধারণ জনগনের মনে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

র‍্যাব-৭, চট্টগ্রাম গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানাধীন সাবরাং ইউপিস্থ ০৩নং ওয়ার্ড এর হারিয়াখালী সাকিনে রওজাতুল উলুম মসজিদের পশ্চিম পাশে হাফেজ উল্লাহ প্রঃ ভুট্টো এর বসতবাড়িতে মাদকদ্রব্য ইয়াবার একটি বড় চালান বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে মজুদ করে রেখেছে।

উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে গত ০৫ মার্চ ২০২১ ইং তারিখ ১৮৫০ ঘটিকায় র‍্যাব-৭,চট্টগ্রাম এর একটি চৌকস আভিযানিক দল বর্ণিত স্থানে অভিযান পরিচালনা করলে র‍্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে র‍্যাব- সদস্যরা আসামি মোঃ গুরা মিয়া (৬৫), পিতা- মৃত বদিউর রহমান, সাং- হারিয়াখালী, পশ্চিমপাড়া, ০৩নং ওয়ার্ড, রওজাতুল উলুম মসজিদের পশ্চিম পাশের্,

সাবরাং ইউপি, থানা- টেকনাফ, জেলা- কক্সবাজারকে আটক করে। পরবর্তীতে উপস্থিত স্বাক্ষীদের সম্মুখে আটককৃত আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, পলাতক আসামী ফয়েজ উল্লাহ প্রঃ ভুট্টো এর টিনশেড বসতঘরের ভিতরে বাম পাশের কক্ষের সিলিং এর উপর বিশেষ কায়দায় মাদকদ্রব্য ইয়াবা সংরক্ষণ করে রেখেছে।

আসামীর দেয়া তথ্যমতে এবং নিজ হাতে বাহির করে দেওয়ামতে উক্ত ঘরের সিলিং এর উপরে বিশেষ কায়দায় লুকানো অবস্থায় ০১ টি প্লাস্টিকের বস্তার ভিতর হতে ২,০০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামিকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানায় যে, টেকনাফ থানাধীন সাবরাং ইউপিস্থ ০৩নং ওয়ার্ড হারিয়াখালী সাকিনস্থ পলাতক আসামী মোঃ ইসমাইল এর বসতঘরের পিছনের বারান্দার চালের সাথে বিশেষ কায়দায় ঝুলানো অবস্থায় আরো ইয়াবা ট্যাবলেট রয়েছে।

তার দেয়া তথ্যমতে এবং তার নিজ হাতে বাহির করা দেওয়ামতে বর্ণিত স্থান বিশেষ কায়দায় লুকানো অবস্থায় ০১ টি প্লাস্টিকের বস্তা হতে ১,৫০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধারসহ সর্বমোট ৩,৫০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।

আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায় যে, পলাতক আসামীদের সহিত পরস্পর যোগসাজসে দীর্ঘদিন যাবত মায়ানমার হতে ইয়াবা ট্যাবলেটের বড় বড় চালান বাংলাদেশে আনয়ন করে এবং পরবর্তীতে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার মাদক ব্যবসায়ী এবং মাদক সেবীদের কাছে ক্রয়-বিক্রয় করে আসছে। উদ্ধারকৃত মাদকের আনুমানিক মূল্য ১০ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা।

গ্রেফতারকৃত আসামী এবং উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্য সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নিমিত্তে কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।