Home Tags Posts tagged with "চট্টগ্রামে পশুর হাটের অনুমতি পেল শর্ত মোতাবেক ৬টি স্থানে"

চট্টগ্রামে পশুর হাটের অনুমতি পেল শর্ত মোতাবেক ৬টি স্থানে

0 0

চট্টগ্রাম কোরবানির পশুর হাটের অনুমতি পেল শর্ত মোতাবেক ৬টি স্থানে

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) এবার পবিত্র ঈদুল আজহায় উপলক্ষে স্থায়ী ও অস্থায়ী মিলিয়ে মোট ১১টি স্থানে পশুর হাট ইজারা দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছে। এসব পশুর হাট বসানোর জন্য জেলা প্রশাসনের অনুমোদন চেয়ে চিটি দিয়েছে চসিক।

তবে শেষ পর্যন্ত তিনটি স্থায়ী পশুর হাটের পাশাপাশি আরও তিনটি অস্থায়ী হাট বসানোর অনুমতি মিলেছে, যা ১২ জুলাই থেকে কোরবানির আগের দিন পর্যন্ত চলবে।।

শর্ত মোতাবেক যে সব স্থানে পশুর হাট বসবে- চট্টগ্রাম নগরী তিনটি স্থায়ী পশুর হাট সাগরিকা, বিবিরহাট ও পোস্তারপাড় বাজার এবং অস্থায়ীভাবে বসবে- কর্ণফুলী পশুর হাট, সল্টগোলা রেলক্রসিং পশুর হাট এবং পতেঙ্গা বাটারফ্লাই পার্কের দক্ষিণে টিকে গ্রুপের খালি মাঠ।

দেশে করোনা পরিস্থিতির অবনতির কথা উল্লেখ করে সর্বস্তরের মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে –

এবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে পশুর হাট বসাতে যে সব শর্ত মানতে হবে ঃ

১. পশুর হাট মূল সড়ক থেকে কমপক্ষে ১০০ গজ দূরে বসাতে হবে— যাতে কোনো অবস্থাতেই মূল সড়কে যানচলাচলে বিঘ্ন না ঘটে।

২. পশুর হাট বা সীমানার বাইরে পশু রাখা যাবে না। সড়কে যাতে পশুর হাট বসানো না হয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। মূল সড়কে পশু বাঁধার কোনো প্রকার খুঁটি বসানো যাবে না।

৩. ইজারা থেকে পাওয়া অর্থের ২০ ভাগ ভূমি রাজস্ব খাতে ট্রেজারি চালানের মাধ্যমে ইজারা প্রদানের ৭ কার্যদিবসের মধ্যে জমা দিতে হবে।

৪. করোনা সংক্রমণরোধে পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। হাটে প্রবেশের পথে ও বাইরে সাবান বা স্যানিটাইজার দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখতে হবে।

৫. ইজারাদাররা নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করবে এবং প্রয়োজনীয় স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করবে।

৬. হাটে প্রবেশ ও বের হওয়ার পথ একমুখী থাকবে। যে পথে প্রবেশ করা হবে, সে পথে বের হওয়া যাবে না।

৭. বৃদ্ধ ও শিশু-কিশোরদের হাটে আনা নিরুৎসাহিত করতে হবে।

৮. পশুর সুস্থতা বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার জন্য হাটে পর্যাপ্ত ভেটেরিনারি চিকিৎসক রাখতে হবে।

৯. হাটের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগাতে হবে।

১০. আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক কোনো সমস্যা হলে স্থানীয় প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

১১. অস্থায়ী পশুর হাটে আইনশৃঙ্খলার অবনতি হলে কিংবা শর্ত লঙ্ঘন করা হলে কর্তৃপক্ষ বাজার বসানোর অনুমতি বাতিল করতে পারবে।

১২. ইজারাদাররা পশু পরিবহনে গাড়ির পথ পরিবর্তন কিংবা নিজস্ব পশুহাটে পশু নিতে বাধ্য করবে না।

১৩. কোনোপ্রকার চাঁদা আদায় কিংবা ক্রেতা-বিক্রেতাকে হয়রানি করা যাবে না।

১৪. হাটে জাল টাকা শনাক্তকরণ মেশিন রাখতে হবে।

১৫. ক্রেতা-বিক্রেতা সবাইকেই মাস্ক পরতে হবে।

১৬. ক্রেতা-বিক্রেতা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সারিবদ্ধভাবে অবস্থান করবে। কোরবানির পশুকেও সারিবদ্ধ ভাবে রাখতে হবে।

১৭. অস্থায়ী হাট-বাজারে জেলা প্রশাসনের মনোনীত পরিদর্শক বা কর্মকর্তাকে সহায়তা করতে হবে।