Home Tags Posts tagged with "কক্সবাজার সদরের জালালাবাদে বেড়িবাঁধ সংস্কার না করায় কোটি টাকা ক্ষতিক্ষতি"

কক্সবাজার সদরের জালালাবাদে বেড়িবাঁধ সংস্কার না করায় কোটি টাকা ক্ষতিক্ষতি

0 58

সি টি জি ট্রিবিউন শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার, ২০ জুন।কক্সবাজার সদরের জালালাবাদ ইউনিয়নে ২০১৮-১৯ এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের অধীনে মনজুর মৌলুভির দোকানের সামনের বেড়িবাঁধ গত একবছরেও সংস্কার কাজ শেষ না করায় গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে বি্ধস্ত হয়েছে বিস্তৃর্ণ এলাকা। এতে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে অন্তত কোটি টাকার।

জানা গেছে, কক্সবাজার সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নে ২০১৮-১৯ এলজিএসপি-৩ এর অধীনে
“মনজুর মৌলুভির দোকানের সামনে বেড়িবাঁধ সংস্কার” প্রকল্পের জন্য তিন লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। প্রকল্পটির কাজ গত এক বছরেও কাজ শেষ না করায় গত কয়েকদিনে ভারী বর্ষণে ওই এলাকায় প্রায় ১ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এদিকে, এই প্রকল্পটির কাজ গত এক বছরে শেষ না করলেও সরকারী টাকায় জালালাবাদ উইনিয়ন ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদের নিজের বাড়ির রাস্তায় ৫ লাখ ব্যয় করতে ভূল করেনি।

সরজমিন দেখা গেছে, বেড়িবাঁধটি সঠিক সময়ে সংস্কার না করায় গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে জালালাবাদ ইউনিয়ন এলাকায় ৪০টি পরিবারের ঘর ভেঙে গেছে, ১২০ পরিবারের অবস্থা শোচনীয়,৭ টি দোকান তলিয়ে গেছে। বিভিন্ন স্থানে বিধস্ত হয়ে গেছে গ্রামীণ সড়ক।

এছাড়াও পাশ্ববর্তী পোকখালি ইউনিয়নের ২০ হাজার মানুষের ও জালালাবাদ ইউনিয়নের ৪ টি ওয়ার্ডের ৫ হাজার মানুষের চলাচলের রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে। মানুষদের ভোগান্তি চরম পর্যায়ে পৌছেছে।
তবে, দুর্গত এই এলাকার মানুষের জন্য সরকারী ভাবে এক বেলা খাবার, ১০ কেজি চাল ও চিড়া বিতরণ করা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ওসমান সরওয়ার ডিপু বলেন, তিন লাখ টাকা ব্যয়ে বেড়িবাঁধ সংস্কার কাজ গত একবছরেও শেষ না করায় দুই ইউনিয়নের মানুষের এক কোটি টাকা ক্ষতির দায়ভার কে নিবে?

তিনি বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যান ইমরুল রাশেদের অবহেলার কারণে অসহায় মানুষদের এই আর্তনাদ।

এব্যাপারে জালালাবাদ উইনিউয়ন ইউপি চেয়ারম্যান ইমরুল রাশেদের বক্তব্য নেওয়ার জন্য চেস্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

0 79

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার, ২০ জুন।।কক্সবাজার সদরের জালালাবাদ একটি ঠিক করে দিন২০১৮-১৯ এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের অধীনে মনজুর মৌলুভির দোকানের সামনের বেড়িবাঁধ গত একবছরেও সংস্কার কাজ শেষ না করায় গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে বি্ধস্ত হয়েছে বিস্তৃর্ণ এলাকা। এতে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে অন্তত কোটি টাকার।

জানা গেছে, কক্সবাজার সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নে ২০১৮-১৯ এলজিএসপি-৩ এর অধীনে
“মনজুর মৌলুভির দোকানের সামনে বেড়িবাঁধ সংস্কার” প্রকল্পের জন্য তিন লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। প্রকল্পটির কাজ গত এক বছরেও কাজ শেষ না করায় গত কয়েকদিনে ভারী বর্ষণে ওই এলাকায় প্রায় ১ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

এদিকে, এই প্রকল্পটির কাজ গত এক বছরে শেষ না করলেও সরকারী টাকায় ইসলামাদ ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদের নিজের বাড়ির রাস্তায় ৫ লাখ ব্যয় করতে ভূল করেনি।

সরজমিন দেখা গেছে, বেড়িবাঁধটি সঠিক সময়ে সংস্কার না করায় গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে ইসলামাবাদ এলাকায় ৪০টি পরিবারের ঘর ভেঙে গেছে, ১২০ পরিবারের অবস্থা শোচনীয়,৭ টি দোকান তলিয়ে গেছে। বিভিন্ন স্থানে বিধস্ত হয়ে গেছে গ্রামীণ সড়ক।

এছাড়াও পাশ্ববর্তী পোকখালি ইউনিয়নের ২০ হাজার মানুষের ও জালালাবাদ ইউনিয়নের ৪ টি ওয়ার্ডের ৫ হাজার মানুষের চলাচলের রাস্তা বন্ধ হয়ে গেছে। মানুষদের ভোগান্তি চরম পর্যায়ে পৌছেছে।
তবে, দুর্গত এই এলাকার মানুষের জন্য সরকারী ভাবে এক বেলা খাবার, ১০ কেজি চাল ও চিড়া বিতরণ করা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ওসমান সরওয়ার ডিপু বলেন, তিন লাখ টাকা ব্যয়ে বেড়িবাঁধ সংস্কার কাজ গত একবছরেও শেষ না করায় দুই ইউনিয়নের মানুষের এক কোটি টাকা ক্ষতির দায়ভার কে নিবে?

তিনি বলেন, স্থানীয় চেয়ারম্যান ইমরুল রাশেদের অবহেলার কারণে অসহায় মানুষদের এই আর্তনাদ।

এব্যাপারে জালালাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান ইমরুল রাশেদের বক্তব্য নেওয়ার জন্য চেস্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।