Home Featured
Featured posts

গত ২৪ আগস্ট ২০২০ ইং তারিখে চট্টগ্রাম মহানগরীর চান্দগাঁও থানাধীন পাঠানিয়া গোদা এলাকায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যার শিকার হয় গুলনাহার বেগম (৩৩) ও তার ০৯ বছরের শিশু পুত্র রিফাত।

পরবর্তীতে সন্ধ্যায় মৃতের মেয়ে পোশাক শ্রমিক ময়ূরী আক্তার (১৯) গার্মেন্টস থেকে এসে বাথরুমে মায়ের মৃতদেহ ও রান্নাঘরে ভাইয়ের মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে চিৎকার দিলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসে এবং র‌্যাবসহ অন্যান্য আইন-শৃঙখলা বাহিনীও ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়।

উক্ত জোড়া খুনের ঘটনা দেশব্যাপী ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। পরবর্তীতে ভিকটিমের মেয়ে ময়ূরী আক্তার বাদী হয়ে চান্দগাঁও থানায় আসামী মোঃ ফারুক (৩৩), পিতা- মোঃ সিরাজ, সাং- খাজা রোড কসাইপাড়া, থানা- চান্দগাঁওসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজন এর বিরুদ্ধে ০১টি হত্যামামলা দায়ের করে। হত্যাকাণ্ডের পর হতেই ঘটনার রহস্য উদঘাটন ও আসামী গ্রেপ্তারের লক্ষ্যে র‌্যাব-৭, চট্টগ্রাম ছায়াতদন্ত শুরু করে।

এক পর্যায়ে র‌্যাব-৭ গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানতে পারে হত্যাকাণ্ডের একমাত্র প্রধান আসামী জঘণ্য খুনী মোঃ ফারুক চট্টগ্রাম মহানগরীর আকবরশাহ থানাধীন পাক্কার মাথা এলাকায় অবস্থান করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে অদ্য ০১ অক্টোবর ২০২০ ইং তারিখ ভোর ০৪:৩৫ ঘটিকায় র‌্যাব-৭ এর একটি চৌকশ আভিযানিক দল উক্ত এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাকে আটক করে।

উপস্থিত সাক্ষীদের সম্মুখে আসামীর দেহ তল্লাশি করে তার হেফাজত থেকে ০১ টি বিদেশি পিস্তল, ০২ রাউন্ড গুলি এবং ০১ টি ছুরি উদ্ধার করে। আসামী ফারুককে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে সে জোড়া খুনের কথা স্বীকার করে। জিজ্ঞাসাবাদে সে আরো স্বীকার করে যে, বিভিন্ন বিষয়ে ঝগড়াঝাটি থেকে একপর্যায়ে ক্ষুব্ধ হয়ে সে তার ‘পাতানো বোন’ গুলনাহারকে হত্যা করে।

হত্যার বিষয়টি ভিকটিমের ০৯ বছরের ছেলে রিফাত দেখে ফেলায় তাকেও নৃশংস হত্যা করে খুনী ফারুক। ঘটনার সাথে আর কেউ জড়িত কিনা তা খতিয়ে দেখছে র‌্যাব।

গতকাল ০১ অক্টোবর ২০২০ খ্রিঃ রোজ বৃহস্পতিবার (বুধবার দিবাগত রাত) রাত সোয়া বারোটার সময় চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী থানাধীন গোমদণ্ডী ফুলতল এলাকায় অভিযান চালিয়ে ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব হাতিয়ে নেওয়া চক্রের ০৩ জন মহিলাসহ ৪ জনকে আটক করেছে র‍্যাব-৭। গ্রেপ্তার হওয়া আসামীরা হচ্ছেন- ১) শাকিলা আক্তার (৩১), ২) কাউছার পারভীন শেপু (২৯), ৩) ফারজানা আক্তার @বেনু সর্বপিতা- ফয়েজুল ইসলাম, সাং- গোমদণ্ডী ফুলতল জমাদার বাড়ি, থানা- বোয়ালখালী, জেলা- চট্টগ্রাম এবং তাদের ভগ্নিপতি ৪) মোঃ সানি, পিতা- জাহাঙ্গীর আলম, চাকতাই, বাকলিয়া।

উল্লেখিত আসামীরা দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্থানে মানুষজনকে বিভিন্ন ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব কেড়ে নিচ্ছে। গত ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিঃ তারিখে র‍্যাব-৭ চান্দগাঁও ক্যাম্পে এমন একজন ভুক্তভোগী অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানালে র‍্যাব-৭ ছায়াতদন্ত শুরু করে। তদন্তের এক পর্যায়ে র‍্যাব-৭ চক্রটির সন্ধান পায়। তারই ভিত্তিতে র‍্যাব-৭ এর একটি আভিযানিক দল গত রাতে অভিযান চালিয়ে চক্রের ৪ জন সদস্যকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। এই সময় তাদের কাছ থেকে প্রতারণা ও ভিডিও তৈরির কাজে ব্যবহৃত ১০টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে র‍্যাব। চক্রের সদস্যদের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে তারা বিভিন্নভাবে মানুষজনকে বাসায় ডেকে ফাঁদে ফেলে সর্বস্ব কেড়ে নেওয়ার কথা স্বীকার করেছে। গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের বিভিন্ন থানায় এক ডজনেরও বেশি মামলা রয়েছে।

চক্রের অন্যান্য সদস্যদেরও গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে র‍্যাব-৭।

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার, ৩০ সেপ্টেম্বর।

কক্সবাজারের টেকনাফের বহুল আলোচিত ইয়াবা মামলায় আত্মসমর্পণকারী ১০১ জন শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে আদালতে ইয়াবা মামলায় চার্জ গঠন করা হয়েছে। বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ মো. ঈসমাইল এর বিচারিক আদালতে এ চার্জ গঠন করা হয়। এরআগে কারাগার থেকে সকালে ১০১ জন আসামীকে আদালতে হাজির করা হয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি এড.ফরিদুল আলম।

অভিযুক্ত ব্যক্তিরা সবাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী। অভিযুক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছেন টেকনাফের বিতর্কিত সাবেক সাংসদ আবদুর রহমান বদির চার ভাই ও ১২ আত্মীয়সহ ১৬ জন।
২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি টেকনাফ পাইলট উচ্চবিদ্যালয় মাঠে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের হাতে সাড়ে তিন লাখ ইয়াবা ও ৩০টি আগ্নেয়াস্ত্র তুলে দিয়ে আত্মসমর্পণ করেন শীর্ষ ১০২ জন ইয়াবা ব্যবসায়ী। অনুষ্ঠানে পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীও উপস্থিত ছিলেন। আত্মসমর্পণকারী রাসেল নামের একজন কারাবন্দী অবস্থায় মারা গেছেন।

যেদিন ইয়াবা ব্যবসায়ীরা আত্মসমর্পণ করেন, সেদিনই টেকনাফ মডেল থানায় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র আইনে পৃথক দুটি মামলা করেন একই থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) শরীফ ইবনে আলম।
গত জানুয়ারী মাসে এদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার দুটোর তদন্তকারী কর্মকর্তা ও টেকনাফ মডেল থানার সেই সময়ের পরিদর্শক এবিএমএস দোহা।

আত্মসমর্পণকারীর একজনের মৃত্যু হওয়ায় তাঁকে মামলা দুটো থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। অপর ১০১ জন মাদক ও অস্ত্র ব্যবসার সঙ্গে জড়িত প্রমাণ পায় পুলিশ।

জেলা ও দায়রা জজ আদালত কক্সবাজারের পিপি এড. ফরিদুল আলম বলেন, অস্ত্র মামলার আসামীরা প্রায়ই জামিনে আছেন। আজ ইয়াবা মামলায় তাদের জামিন আবেদন করলেও আদালত জামিন না মনঞ্জুর করেন এবং চার্জ গঠন করেন। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা সবাই কক্সবাজার কারাগারে আছেন।

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে গিয়ে এক তরুণী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এঘটনায় ওসমান সরওয়ার নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতার হওয়া যুবক সৈকতের লাবণী পয়েন্ট এলাকায় পর্যটক ছাতা (কিটকট) পরিচালনাকারী বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার সকালে ওই তরুণী থানায় অভিযোগ করার পর দুপুরে সমুদ্র সৈকতের লাবণী পয়েন্ট থেকে ধর্ষক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি শেখ মুনীর-উল গীয়াস।
বুধবার মধ্যরাতে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবণী পয়েন্ট সংলগ্ন বিজিবির উর্মি রেস্তোরার পাশের নির্জন স্থানে এ ধর্ষণের ঘটনায় কক্সবাজারের চকরিয়া এলাকার আনুমানিক ১৮ বছর বয়সী এ তরুণী বাদী হয়ে থানায় মামলাটি দায়ের করেন।
গ্রেফতার হওয়া ওসমান সরওয়ার (২৬) কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের লাবণী পয়েন্ট এলাকায় পর্যটক ছাতা (কিটকট) পরিচালনাকারী। শহরের কলাতলী সংলগ্ন আদর্শগ্রাম এলাকার আবুল বশরের ছেলে তিনি।
ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস জানান, ওই তরুণীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে জনৈক ব্যক্তির পরিচয় হয়। এ পরিচয়ের সুত্র ধরে গত বুধবার বিকালে চকরিয়া এলাকা থেকে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত এলাকায় প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করতে আসেন ওই তরুণী।
তবে, ওই তরুণী কক্সবাজার সৈকতে পৌঁছার পর থেকে প্রেমিকের মোবাইল ফোন বন্ধ পায়। পরে দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পর রাত ঘনিয়ে এলে সৈকতের লাবণী পয়েন্ট এলাকায় ঘন্টা হিসেবে পর্যটক ছাতা (কিটকট) ভাড়া নেন ওই তরণী।
রাতের এক পর্যায়ে ওই তরুণীকে নিরাপদ স্থানে পৌঁছে দেওয়ার কথা জানায় গ্রেফতার হওয়া যুবক ওসমান সরওয়ার। পরে সেই যুবক বিজিবির উর্মি রেস্তোরা পাশে নির্জন স্থানে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন।
ওই তরুণীকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করা হয়েছে।

0 0

যুক্তরাজ‍্য ও বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক অনুমোদিত সংগঠন সারাহ হাবিব ট্রাস্ট লন্ডন’ এর- সহযোগী সংস্থা, ” অক্ষরে অমরতা ” শ্লোগানের পতাকাবাহী আন্তর্জাতিক সাহিত্য ও মানবাধিকার সংগঠন কলম সাহিত্য সংসদ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটির উদ্যোগে বিশ্বের প্রায় একশ টি দেশের কলম প্রেমী নেতৃবৃন্দের ভার্চুয়াল সভা ৩০ শে সেপ্টম্বর অনুষ্টিত হয়। সভায় প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক ড.নজরুল ইসলাম হাবিবীকে “সাহিত্যের বাতিঘর” উপাধি দেয়া হয়।সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটির সভাপতি কবি ও শিশু সাহিত্যিক এসএম কুতুবউদ্দিন বখতেয়ার।চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক কবি ও প্রাবন্ধিক ও মানবাধিকারকর্মী মোঃ কামরুল ইসলামের উপস্হাপনা প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্হিত ছিলেন কলম সাহিত্য সংসদ লন্ডন কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাস হাবিবী।প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্হিত ছিলেন ভারতের কলকাতা শাখার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক কবি শুভজিৎ দাশ দাঁ।পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে অংশ গ্রহন করে বক্তারা বলেন অধ্যাপক নজরুল ইসলাম হাবিবী দীর্ঘ কয়েক যুগ লন্ডনের প্রবাস জীবনে থেকেও বাংলা সাহিত্য, মাটি ও মানুষকে ভুলেন নি।তিনি এই সংগঠনের জন্য নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।পৃথিবীর প্রায় অর্ধেক (প্রায় একশত) দেশে তিনি সংগঠনের কর্মকান্ড তথা বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের প্রচার, প্রসারে কাজ করে যাচ্ছেন।তিনি শুধু সাহিত্যের কল্যানে কাজ করছেন তা কিন্তু নয় মানুষ,মানবতার কল্যানে তিনি কাজ করছেন।তিনি ইতিমধ্যে কলমের নামে মসজিদ,মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা সহ বিভিন্ন সমাজ উন্নয়ন মুলক কাজ করছেন।ভাচুর্য়াল সভায় সকলের মতামতে কলকাতা শাখার সভাপতি অধ্যাপক নজরুল ইসলাম হাবিবীকে “” সাহিত্যের বাতিঘর”” উপাধি দিলে উপস্হিত সবাই করতালির মাধ্যমে তা গ্রহন পূর্বক তাকে অভিনন্দন জানান।
বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন করুণা আচার্য-সভাপতি,চট্টগ্রাম জেলা,অধ্যাপক জিতেন্দ্র লাল বড়ুয়া উপদেষ্টা লন্ডন,অধ্যাপক আনোয়ার জামাল,উপদেষ্টা,আমেরিকা,আব্দুল মন্নান সভাপতি,ময়মনসিংহ বিভাগ,ইউনুছ ইবনে জয়নাল,সভাপতি,রাজশাহী বিভাগ,রাহাত মামুন,কো-অর্ডিনেটর, কেন্দ্রীয় কমিটি,মোফাচ্ছেল হক শাহেদ,কো-অর্ডিনেটর মিডল ইস্ট,সোহেল মো: ফখর উদ্দিন, উপদেষ্ট,সঙ্গীতা বরুয়া- সভাপতি, আসাম প্রদেশ,সুলেখা সরকার সভাপতি, দার্জিলিং শাখা, জনাব শাহজাহান মজুমদার-সভাপতি,ফেনী জেলা শাখা,নজরুল বাঙ্গালী উপদেষ্টা,মুহাম্মদ শহীদুল ইসলাম ফকির -সভাপতি শেরপুর সহ সাহিত্য সম্পাদক কেন্দ্রীয় কমিটি,আবুল হোসেন হেলালি- সভাপতি কক্সবাজার,মোঃ আবুল কালাম আজাদ,সৈয়দ শাহিন সহ প্রমুখ।অভিনন্দন জানান অধ্যাপক মোহাম্মদ ইউনুস উপদেষ্টা, হাসান আলী সভাপতি আমেরিকার চ্যাপ্টার,কে এম আবু তাহের চৌধুরী,উপদেষ্টা, লন্ডন,রেহানা খানম রহমান উপদেষ্টা, লন্ডন,আবু আজাদ সভাপতি ফ্রান্স চ্যাপ্টার- কো-অর্ডিনেটর, ইউরোপ,দেওয়ান মান্নান সভাপতি মালদ্বীপ,ডক্টর এস এম রফিকুল আলম উপদেষ্টা, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, ডক্টর আবুল কালাম মোহাম্মদ শাহেদ উপদেষ্টা, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, প্রিন্সিপাল আবুল হাসান উপদেষ্টা চট্টগ্রাম সিরাজুম মুনির কো-অর্ডিনেটর, আমেরিকা, মুসলিম উদ্দিন জুনুন, সাধারণ সম্পাদক, ওমান শাখা, শহিদুল আলম চৌধুরী সভাপতি, কুয়েত শাখা, ডক্টর ওয়ালি তসর উদ্দিন এমবিই উপদেষ্টা,স্কটল্যান্ড,ওয়ালিউল হাসানাত উপদেষ্টা, ইংল্যান্ড, বৈদ্যনাথ দাস সভাপতি কর্ণাটক শাখা, ভারত, শুভ্রা দে,সহ-সভাপতি, লণ্ডন। সভায় অধ্যাপক নজরুল ইসলাম হাবিবী সবাই
কে অভিনন্দন জানান এবং তিনি আগামীতে সবাইকে নিয়ে সাহিত্য ও মানবতার সেবার করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।তিনি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিটিকে সুন্দর আয়োজনের জন্য ও বিশেষ করে সুন্দর ও সাবলীল ও প্রানবন্ত অনুষ্ঠান উপস্হাপনার জন্য মোঃ কামরুল ইসলাম প্রানঢালা অভিনন্দন জানান।

0 0

লিয়াকত,রাজশাহী ব্যুরোঃ আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পবা উপজেলা নওহাটা পৌরসভার মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য সম্ভাব্য প্রার্থী বিশিষ্ট দানবীর, সমাজসেবক,গরীব,দুখী, মেহনতী মানুষের পরম আস্থাভাজন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের মুজিবসেনা,শেখ হাসিনার একনিষ্ঠ কর্মী, নওহাটা পৌর আওয়ামীলীগের সংগ্রামী সভাপতি, আব্দুল বারী খাঁন,

সকলের দোয়া ও সমর্থন নিয়ে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নওহাটা বাজারে গণসংযোগ,পথসভা ও মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিয়ে মতবিনিময় সভা করেছেন। এর আগে তিনি পৌরসভার ৩,৪,৫ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের মতবিনিময় করেছেন।

এর মধ্যে সরকারি দলের কয়েকজন নেতা দলীয় মনোনয়ন পেতে তৃণমূল এ উচ্চপর্যায়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে ব্যাপকভাবে গ্রুপিং-লবিং শুরু করেছেন। এছাড়া পৌর এলাকার নওহাটা বাজার ও মোড়ে মোড়ে চায়ের দোকানগুলোয় বিশেষ করে সন্ধা পর নির্বাচন নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়ে গেছে।

তবে বিএনপি নেতা ও পৌরসভার বর্তমান মেয়র মোঃ মকবুল হোসেন একক প্রার্থী হচ্ছেন বলে দলের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

অপরদিকে,যুবলীগ নেতা হাফিজ উদ্দীন, পৌর মেয়র পদে নির্বাচন করার জন্য মনোনয়ন প্রত্যাশী।

উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানানো হয়েছে, রাজশাহী পবা উপজেলা নওহাটা পৌরসভা এলাকার মোট ভোটার সংখ্যা ৪৫ হাজার। এর মধ্যে পুরুষ ২২ হাজার ৭০০ ও মহিলা ভোটার সংখ্যা ২২ হাজার ৩০০জন। উল্লেখ্য, নওহাটা পৌর সভা ২০০২সালে স্থাপিত হয়েছে।

0 0

লিয়াকত,রাজশাহী ব্যুরোঃ রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটনের সাথে বাংলাদেশ রেস্তোঁরা মালিক সমিতি রাজশাহী জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ সৌজন্য সাক্ষাত করেছেন। দুপুরে নগর ভবনে মেয়র দপ্তর কক্ষে সাক্ষাৎকালে সমিতির পক্ষ থেকে মেয়রকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান তারা।

এরপর বাংলাদেশ সরকারের আইন অনুযায়ী প্রত্যেক হোটেল-রেস্তোঁরা তথা খাদ্র স্থাপনার মালিককে বাংলাদেশ রেস্তোঁরা মালিক সমিতির সদস্যপদ গ্রহণ বাধ্যতামূলক করে একটি সরকারি আদেশ জারির মাধ্যমে যেকোন হোটেল-রেস্তেঁারার ট্রেড লাইসেন্স ইস্যু/নবায়ন করার দাবি সম্বলিত একটি আবেদন মেয়রের নিকট প্রদান করেন তারা।

এ সময় বাংলাদেশ রেস্তোঁরা মালিক সমিতি রাজশাহী জেলা শাখার সভাপতি রিয়াজ আহম্মেদ খান, সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান রিংকু, সহ-সভাপতি মাহাবুব আলম, যুগ্ম সম্পাদক এস এম শিহাব উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক আশফাক হোসেন ইমন, সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শহিদ,

মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নাবিলা নওরিন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক কামরুল হাসান সোহান, নিবাহী সদস্য আফরোজা বেগম, অর্থ সম্পাদক শেখ আশিকুর রহমান, সদস্য মিলা উপস্থিত ছিলেন।

0 0

লিয়াকত, হোসেন রাজশাহীঃ রাজশাহী পুলিশ সুপার পদে যোগদান করেছেন নবাগত পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেন, বিপিএম(বার)।এসময় পুলিশ সুপার কার্যালয়ে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।এরপর তিনি প্যারেড দলের সালামী অভিবাদন গ্রহণ করেন।
এরপর পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে রাজশাহী জেলা পুলিশের সকল ইউনিটের প্রধানের সাথে পরিচিত হন এবং আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সংক্রান্তে বিশেষ মতবিনিময় করেন।

এসময়, জেলা পুলিশের সিনিয়র অফিসারগণ, আট থানার অফিসার ইনচার্জসহ বিভিন্ন ইউনিটের ইনচার্জগণ উপস্থিত ছিলেন।
বিশেষ মতবিনিময় সভায় তিনি বলেন, সকলকে জনবান্ধব পুলিশিং এর মাধ্যমে জনগণের দোরগোড়ায় প্রত্যাশিত সেবা পৌঁছে দেবার নির্দেশনা প্রদান করেন। দেশপ্রেম, সততা ও পেশাদারিত্ব বজায় রেখে সবাইকে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করতে হবে। পুলিশের কোন সদস্যের মাদকের সাথে সম্পৃক্ততা থাকলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, নবাগত পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেন, বিপিএম(বার) ২৪ তম বিসিএস এর মাধ্যমে ২০০৫ সালে বাংলাদেশ পুলিশে যোগদান করেন। নবাগত পুলিশ সুপার এর আগে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

0 0

চট্টগ্রাম- ০১ অক্টোবর ২০২০খ্রিঃচট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, সব ধর্মের মূল হচ্ছ আত্মাকে পরিশুদ্ধ করা।বহির^তার কারণে মানুষের আসল চেতনাটা চাপা পড়ে যায়। গীতা শিক্ষা কে বিকশিত করার জন্য সনাতনী শিশুদের ছোটবেলা থেকে ধর্মীয় শিক্ষাক্ষায়    করে গড়ে তুলতে পারলে একদিকে যেমন পূণ্য লাভ করবেন অপরদিকে সমাজে শান্তি শৃক্সখলা প্রতিষ্ঠা পাবে।

প্রসঙ্গক্রমে তিনি বলেন, প্রয়াত সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দীন চৌধুরী মানুষের মধ্যে অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে জাগিয়ে তুলতে সকল ধর্মীয় উপাসনালয়ে ছোটদের ধর্মীয় পড়াশোনার ব্যবস্থার উদ্যোগগ্রহন করেছিলেন। তাই আসুন অসাম্প্রদায়িক চেতনায় নিজেকে গড়ে তুলি এবং দূর্নীতি, সন্ত্রাস এর বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশ মাতৃকার সেবায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান প্রশাসক।

আজ বিকেলে টাইগারপাসস্থ চসিক সম্মেলন করে বাংলাদেশ গীতা শিক্ষা কমিটির সাথে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এতে সভাপতিত ¡করেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক পলাশ কান্তি নাথ রণি। এসময় প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি সালেহ আহমদ সোলেমান, বাগশিক কেন্দ্রীয় প্রধান উপদেষ্টা এড.তপন কান্তি দাশ,বাগশিক কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক ডা.অন্জন কুমার দাস,

ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আশীষ কুমার পাঠক, মোহন চৌধুরী, বৃষ্টি বৈদ্য, যীশু সেন,মহানগর সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় চক্রবর্তী, দদক্ষিণ জেলা সভাপতি অধ্যাপক শিপুল কুমার দে,সাধারণ সম্পাদক রূপক শীল,উত্তর জেলা সভাপতি অমৃত লাল দে,সাধারণ সম্পাদক শিবু কুমার দাসসহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

0 0

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০:

বাংলাদেশকে বিশ্বে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য উদাহরণ হিসেবে বর্ণনা করে এই সম্প্রীতি বিনষ্টের ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সকলকে সতর্ক থাকার আহবান জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

বৌদ্ধধর্মীয় উৎসব প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে সভা ও ফানুস উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন। এসময় মন্ত্রী বৌদ্ধ ধর্মের সকলকে প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানান ও দেশবাসীর শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন।

আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ত ধর্মমিত্র মহাথেরোর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন।

মন্ত্রী বলেন, সাম্প্রদায়িক পাকিস্তান থেকে বেরিয়ে এসে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্র হয়েছে। সেই লক্ষ্যেই আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছি। সকল ধর্মের মানুষের মিলিত রক্তস্রোতের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে আমাদের স্বাধীনতা।

‘প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা অসাম্প্রদায়িকতা ও উন্নয়ন-সমৃদ্ধির প্রতীক এবং তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে আন্ত:ধর্ম সম্প্রীতির এক অনন্য দৃষ্টান্ত’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এর আগে কোনো বৌদ্ধ ব্যক্তিত্ব প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ছিলেন না, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই সেটি করেছেন, ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়াকে তার বিশেষ সহকারী ও দলের দপ্তর সম্পাদক -দুই পদেই রেখেছেন।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। কিন্তু দেশ-বিদেশ থেকে এখনো দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা ও ষড়যন্ত্র চলছে। এ সম্পর্কে সকলকে সতর্ক থাকতে হবে।’

ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া তার বক্তব্যে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারে প্রধানমন্ত্রীর ৭৪তম জন্মদিন উপলক্ষে গত ২৮ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত বিশেষ প্রার্থনার কথা উল্লেখ করে বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা যেভাবে সকল ধর্মের কল্যাণে কাজ করেছেন, তা এক বিরল দৃষ্টান্ত। আন্তঃধর্ম মৈত্রীর বন্ধন সকল সময় বজায় রাখতে হবে, বলেন তিনি।

আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারের নির্বাহী সভাপতি অশোক বড়ুয়া, বাংলাদেশের বুদ্ধিস্ট ফেডারেশনের সভাপতি ইঞ্জি: দিব্যেন্দু বিকাশ বড়ুয়া, সাধারণ সম্পাদক সুনন্দপ্রিয় বড়ুয়া, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস-চেয়ারম্যান সুপ্তবসন বড়ুয়া, বাড্ডা ২১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাসুম গণি তাপস, বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ সভায় বক্তব্য রাখেন।

সভাশেষে ড. হাছান মাহমুদ অতিথিদের নিয়ে বিহার প্রাঙ্গণে প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে ফানুস ওড়ানোতে অংশ নেন।

বৌদ্ধমতে শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা তিথিতে মহান গৌতম বুদ্ধ দেবলোক হতে সাংকশ্য নগরে অবতরণ করেছিলেন। প্রবারণা শব্দের একাধিক অর্থের মধ্যে রয়েছে আশাপূরণ, ধ্যান বা শিক্ষা সমাপ্তি ও আত্মশুদ্ধি।