Home Authors Posts by tribune24

tribune24

43 POSTS 0 COMMENTS

0 61

রিয়াল মাদ্রিদের অনেক দিনের স্বপ্ন কিলিয়ান এমবাপ্পেকে দলে টানার। বরাবরই তাদের হতাশ হতে হয়েছে। এই তো কদিন আগেও প্যারিস সেন্ট জার্মেইর (পিএসজি) ক্রীড়া পরিচালক লিওনার্দো ঘোষণা দিয়েছেন, নেইমার ও এমবাপ্পে বিক্রির জন্য নয়। কারণ দুজনের সঙ্গেই ক্লাবের চুক্তির মেয়াদ আছে আরো দুই বছরের।

রিয়াল মাদ্রিদ অবশ্য আশা ছাড়ছে না এমবাপ্পের জন্য। ফরাসি সেনসেশনকে দলে টানার লড়াইয়ে রিয়ালের প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠছেন তাদেরই কিংবদিন্ত ফুটবলার রোনালদো নাজারিও। ব্রাজিলের সাবেক এই স্ট্রাইকার স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল ভায়াদোলিদের মালিকানার অধিকাংশ শেয়ার কিনে নিয়েছেন। এখন তিনি স্বপ্ন দেখছেন এমবাপ্পেকে কেনার।

রোনালদোর সাধ আছে, কিন্তু সাধ্য নেই। এটাও জানিয়ে রাখলেন তিনি। বৃহস্পতিবার পৃষ্ঠপোষক স্যান্টেন্ডার ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি পর্ব অনুষ্ঠানে ব্রাজিল কিংবদন্তি বলেছেন, ‘আমি এমবাপ্পেকে কিনতাম (যদি ভায়াদলিদের কাছে রিয়াল মাদ্রিদের মতো অর্থ থাকতো)। একমাত্র ও-ই আমার খেলোয়াড়ি সময়টার কথা মনে করিয়ে দেয়।’

শুধু এমবাপ্পে নয়, বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের বিস্ময়বালক আর্লিং হাল্যান্ডের পারফরম্যান্সেও মুগ্ধ রোনালদো। তিনি বলেছেন, ‘হাল্যান্ড দুর্দান্ত একজন খেলোয়াড়। ও এখনো অনেক তরুণ এবং দারুণ একটা বছর কাটাচ্ছে। অনেক গোলও করেছে। দেখা যাক ও কোথায় শেষ করে।’

0 59

করোনাভাইরাস বিরতি পরবর্তী দারুণ সময় কাটছে বার্সেলোনার। স্প্যানিশ লা লিগায় দুই ম্যাচ খেলে দুটিতেই জয় তুলে নিয়েছে কাতালান ক্লাবটি। আজ শুক্রবার লিগের ৩০তম রাউন্ডে সেভিয়ার মুখোমুখি হবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু মাঠে নামার আগেই জোড়া ধাক্কা খেতে হলো তাদের। ইনজুরিতে পড়েছেন সার্জি রবার্তো ও ফ্রেঙ্কি ডি জং।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দুই ফুটবলারের ইনজুরির খবরটি নিশ্চিত করেছে বার্সা। তারা জানিয়েছে, পাঁজরে চোট পেয়েছেন রবার্তো। ডাচ মিডফিল্ডার ডি জং ডান পায়ের ইনজুরিতে পড়েছেন। দুজনেই চোটের ঝুঁকিতে ছিলেন। তাই দুজনকে অনুশীলন করাননি বার্সা কোচ কিকে সেতিয়েন।

বার্সার সবশেষ দুটি ম্যাচেই খেলেছেন রবার্তো ও ডি জং। সেভিয়া ম্যাচেও দুজনকে প্রয়োজন ছিল কাতালানদের। কারণ এই ম্যাচে অগ্নিপরীক্ষা দিতে হবে বার্সাকে। এর কারণ পয়েন্ট তালিকার তিনে আছে ফর্মে থাকা সেভিয়া। দুইয়ে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান কমাতে মরিয়া হয়েই মাঠে নামবে সেভিয়া। এই ম্যাচটা আবার তাদের ঘরের মাঠে।

রবার্তো-ডি জংয়ের ইনজুরি কতটা গুরুতর সেটা জানায়নি বার্সা। আপাতত রবার্তোর পরিবর্তে একাদশে ঢুকে যেতে পারেন নেলসন সেমেদো এবং ডি জংয়ের বিকল্প আছেন কয়েকজনই। আর্তুরো ভিদাল, সার্জি বুসকেটস, ইভান রাকিটিচ কিংবা আর্থার মেলো- এদের একজনকে ডাচ তারকার জায়গায় দেখা যেতে পারে।

বার্সা কোচ কিকে সেতিয়েন অবশ্য হতাশ হচ্ছেন না। জোড়া ধাক্কার পরও নির্ভার থাকলেন তিনি, ‘ফ্রেঙ্কি (ডি জং) দারুণ একজন ফুটবলার। এই বাচ্চা ছেলেটা আমাদের অনেককিছু দিয়েছে। কিন্তু ওর পরিবর্তিত হিসেবে আমাদের কয়েকজন ফুটবলারই আছে। আশা করছি ও শিগগিরই মাঠে ফিরে আসবে।’

বার্সার ইনজুরির তালিকায় আরো কয়েকজন আছেন। উসমান ডেম্বেলে, স্যামুয়েল উমতিতি দীর্ঘদিন ধরেই মাঠের বাইরে আছেন। এর মধ্যে গুঞ্জন বেরিয়েছে আগস্টে মাঠে ফিরবেন ডেম্বেলে। যদিও বার্সা কোচ জানিয়ে দিয়েছেন, এই মৌসুমে আর ফেরা হচ্ছে না ফরাসি ফরওয়ার্ডের।

প্রসঙ্গত, লা লিগায় ২৯ ম্যাচ খেলে ৬৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে বার্সেলোনা। এক ম্যাচ কম খেলা রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে তাদের ব্যবধান পাঁচ পয়েন্টের। ৫১ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি তিনে আছে সেভিয়া।

0 57

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলছেন, দেশের করোনা পরিস্থিতির বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্যক উপলব্দি করেন। এই মুহূর্তে তিনিই দেশের সবচেয়ে ব্যস্ততম ব্যক্তি। করোনা শুধু স্বাস্থ্যগত বিষয় নয়। এটি সামাজিক, অর্থনৈতিক, যোগাযোগ, ধর্ম, বাণিজ্য- অর্থাৎ জীবনের সকল উপজীব্যকে ঘিরে। কিন্তু তিনি স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়ে অধিকতর জোরালো নজর দিয়েছেন। সম্প্রতি তিনি দুই হাজার চিকিৎসক ও পাঁচ হাজার নার্স নিয়োগ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্যকর্মী এবং মেডিকেল টেকনোলোজিস্ট নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এখন দীর্ঘস্থায়ী সক্ষমতার কাজ দ্রুতগতিতে শুরু হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কোভিড-১৯ সংক্রান্ত নিয়মিত বুলেটিনে উপস্থিত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি তার নিজের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার কথা জানিয়ে বলেন, আমিও আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। তবে সুস্থ হয়ে বেশ কিছু দিন থেকেই তিনি তার দপ্তরে আসছেন।

এ সময় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক করোনা পরিস্থিতি মোকাবলোয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের দীর্ঘমেয়াদি কিছু পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। সেগুলো হলো-

কোভিড-১৯ পরীক্ষার কাজ সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে সম্প্রসারিত হবে।

সরকারি ব্যবস্থাপনায় জেলা পর্যায় পর্যন্ত আরপিসিএফ পরীক্ষা যত দ্রুত সম্ভব সম্প্রসারিত হবে।

আরো নতুন নতুন এবং সহজে করা যায় এমন কোভিড-১৯ পরীক্ষার পদ্ধতি নিয়ে আসা হবে। উপজেলা হাসপাতাল পর্যন্ত এ ধরনের পরীক্ষা চালু করার প্রচেষ্টা নেওয়া হবে।

সকল জেলা হাসপাতালে আইসিইউ সুবিধা সম্প্রসারণেরা কাজ চলছে।

জেলা হাসপাতাল পর্যন্ত সকল সরকারি হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন সম্প্রসারণ করা হচ্ছে।

হাসপাতালগুলোতে ‘হাই ফ্লো ন্যাসাল ক্যানোলা’, অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর দ্রুত সরবরাহের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

পরীক্ষার কিট ও পিপিইর যাতে অভাব না হয়, সেজন্য সুপরিকল্পিত সংগ্রহ ও সরবরাহের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল যেন কোভিড ও নন কোভিড সকল রোগীর চিকিৎসা দেয় তার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

বেসকারি হাসপাতালে মূল্য নির্ধারণ, তদারকি ও প্রয়োজনীয় সরকারি সহযোগিতার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সরকারি ও বেসরকারি খাত যেন যৌথভাবে এই গুরু দায়িত্ব পালন করে সে বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হবে।

এ ছাড়া পূর্বঘোষিত জোনিং ব্যবস্থা যখন যেখানে যেমন প্রয়োজন তা কার্যকর করা হবে। এ ব্যাপারে একটি বিশেষজ্ঞ গ্রুপ কাজ করছে।

আবুল কালাম আজাদ বলেন, আপনারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ওপর ভরসা রাখুন এবং বিশ্বের করোনা পরিস্থিতির ওপর নজর রাখুন। বাংলাদেশ ব্যতিক্রমী কোনো দেশ নয়। আমাদের সর্বোচ্চ সামর্থে্য যা করা সম্ভব এবং যা বাস্তবমুখী – সরকার সে রকম ব্যবস্থাই নিচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, যতদিন কোভিড থাকবে ততদিন প্রত্যেককে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতেই হবে। লক্ষণ থাকলে অবহেলা করবেন না। চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। চিকিৎসক ভাই-বোনদের প্রতি আবেদন, করোনা সন্দেহ হলে পরীক্ষার জন্য অপেক্ষায় না থেকে দ্রুত চিকিৎসা দিন। যেকোনো মূল্যে মৃত্যুর সংখ্যা হ্রাস করতে আমাদের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা নিতেই হবে। বয়স্কদের অধিকতর সতর্ক থাকারও পরামর্শ দেন তিনি।

এ ছাড়া বাগেরহাটে রোগীর আত্মীয়-স্বজনের হামলায় ডা. রাকিবের মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দোষীদের খুঁজে বের করে ব্যবস্থার নেওয়ারও আহ্বান জানান তিনি। চিকিৎসদের উদ্দেশে তিনি বলেন, এই ঘটনা যেন তাদের মধ্যে কোনো প্রভাব না ফেলে। বিষয়টি সরকার দেখবে, আপনারা নিজ নিজ দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করুন।

0 65

আইসিসির বর্তমান সভাপতি শশাঙ্ক মনোহরের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আর কিছুদিন পরই। এরপর কে হবেন পরবর্তী সভাপতি? এ নিয়ে প্রার্থীদের থেকে সমালোচকদের সংখ্যাই বেশি। যে যার মতো বেছে নিচ্ছেন বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থার ভবিষ্যত সভাপতিকে। এ তালিকায় এগিয়ে ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলী। অনেকেই বলছেন, এ পদের জন্য গাঙ্গুলীই যোগ্য। দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ক্রিকেটার গ্রায়েম স্মিথের সমর্থনটাও গেছে কলকাতা যুবরাজের ঘরে। সাবেক ব্যাটসম্যান চাইছেন, এই ভারতীয়ই হোক মনোহরের স্থলাভিষিক্ত।

গুঞ্জন উঠেছিল পিসিবির চেয়ারম্যান এহসান মানিকে নিয়েও। কিন্তু এবার সে গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন পাকিস্তান ক্রিকেটের কর্তা। জানালেন পাকিস্তান ক্রিকেটের সাথেই থাকতে চান তিনি, ‘আমি নির্বাচন করছি না। এটাই সত্যি।সংবাদমাধ্যমে আগেও বলেছিলাম। এই খবরটি এসেছে ভারত থেকে। আমাকে বেশ কয়েক জায়গা থেকে বলা হয়েছে নির্বাচনের ব্যাপারে, আমি আগ্রহ দেখাইনি। আইসিসিতে আমার আগ্রহ শুধু পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গেই সম্পৃক্ত। আমাকে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ফোন দিয়েছিলেন। আর আমি পাকিস্তান ক্রিকেটের কথা চিন্তা করেই কাজ করছি।’

এহসান মানি নির্বাচনে না লড়লে আর কোনো বাধা থাকার কথা না গাঙ্গুলীর জন্য। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হয়ে যাবেন আইসসিসি প্রেসিডেন্ট। তবে এ নিয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেননি সাবেক ক্রিকেটার। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি বিসিসিআই থেকেও। তবে সংবাধমাধ্যমে এমন খবর ঠিকই চাউর হয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে ধরেই নেয়া যাচ্ছে সাবেক এ ব্যাটসম্যানই হচ্ছেন আইসিসির পরবর্তী সভাপতি।

আপাতত দুঃসময় যাচ্ছে ক্রিকেটে। তিন মাসেরও বেশি সময় আগে মাঠে গড়িয়েছিল ক্রিকেট। মহামারির কারণে তা বন্ধ হয়ে আছে। সিদ্ধান্ত আসছে না টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়েও। এ নিয়ে সাহস দেখাচ্ছে না আয়োজকরা। কারণ টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী দলগুলোর জন্য জৈব সুরক্ষিত পরিবেশ নিশ্চিত করা খুবই কঠিন তাদের জন্য। তাই ধরেই নেয়া যাচ্ছে কী আছে আসন্ন বিশ্বকাপের ভাগ্যে। এ জন্য ঝুলে আছে আইপিএল। এ নিয়ে আইসিসির সাথে ভেতরে ভেতরে মনোমালিন্য চলছে বিসিসিআইয়ের। এমন বাজে পরিস্থিতিতে গাঙ্গুলী বিশ্ব ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার সভাপতি হলে কী করতে পারেন- তাই এখন দেখার বিষয়।

দিন যত যাচ্ছে মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণের তালিকায় বাংলাদেশ ততই উপরে উঠছে। কয়েকদিন আগেই ভাইরাসটির উৎপত্তিস্থল চীনকে ছাড়িয়ে গেছে। এবার কানাডাকে ছাড়িয়ে সৌদি আরবের পরেই অবস্থান করছে বাংলাদেশ।

সংক্রমণ যেভাবে বাড়ছে তাতে তালিকায় উপরের দিকে থাকা অন্য দেশগুলোকেও ছাড়িয়ে যেতে বেশি সময় লাগবে না বলে মনে হচ্ছে। সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এই মুহূর্তে সংক্রমণের তালিকায় ১৭ নম্বরে অবস্থান করছে বাংলাদেশ।

এর উপরে ১৬তম স্থানে সৌদি আরবের অবস্থান। সেখানে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৪১ হাজার ২৩৪ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। এদের মধ্যে এক হাজার ৯১ জন মানুষ মৃত্যুবরণ করেছেন। বিপরীতে সুস্থ হয়েছেন ৯১ হাজার ৬৬২ জন।

অন্যদিকে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত মরণব্যাধী এই ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হয়েছেন ১ লাখ ২ হাজার ২৯২ জন। এর মধ্যে গত একদিনের ব্যবধানে রোগী শনাক্ত করা হয়েছে ৩ হাজার ৮০৩ জন। এর আগের দিন সংখ্যাটা ছিল সর্বোচ্চ ৪ হাজার ৮ জন।

এ ছাড়া এখন পর্যন্ত ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হয়ে ১ হাজার ৩৪৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এর মধ্যে গত একদিনের ব্যবধানে মৃত্যু হয়েছে ৩৮ জনের। এর দুইদিন আগে সংখ্যাটা ছিল সর্বোচ্চ ৫৩ জন। সংখ্যাটা প্রতিদিনই বাড়ছে। বিপরীতে সুস্থ হয়েছেন ৪০ হাজার ১৬৪ জন।

সংক্রমণের তালিকায় সবার উপরে অবস্থান করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। সেখানে এখন পর্যন্ত ২২ লাখ ৩৫ হাজার ২১৫ জন মানুষ ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হয়েছেন। এদের মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন ১১ লাখ ৯ হাজার ৯৫২ জন। বিপরীতে সুস্থ হয়েছেন ৯ লাখ ১৮ হাজার ৭৯৬ জন।

যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই ভালো সম্পর্ক নেই। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের পর থেকে সেই সম্পর্কটা আরো খারাপের দিকে যাচ্ছে। এর মধ্যেই চীনকে কঠোর বার্তা দিতে উইঘুর মুসলমানদের ওপর দমন-পীড়ন ঠেকাতে নতুন একটি নিষেধাজ্ঞার বিলে স্বাক্ষর করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বুধবার স্বাক্ষর করা এই বিলের মাধ্যমে মূলত চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে সংখ্যালঘু উইঘুর মুসলমানদের প্রতি চীন সরকারের আচরণের বিরোধিতা করে শক্ত বার্তা পাঠাতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। এমনকি এই বিলটির পক্ষে সবার এত সমর্থন যে মার্কিন কংগ্রেসে মাত্র একটি ‘না’ ভোট পড়েছে।

বিলটি পাশ হওয়ার ফলে মার্কিন প্রশাসন এখন উইঘুর মুসলিমদের ওপর নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত চীনের সব কর্মকর্তাকে চিহ্নিত করতে পারবে। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ওই সব কর্মকর্তাদের কোনো আর্থিক সম্পর্ক থাকলে তা নিষিদ্ধ করা হবে এবং তাদের মার্কিন ভিসা বাতিল করা হবে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হয়, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এমন এক সময়ে বিলটিতে স্বাক্ষর করলেন যখন তারই নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন নতুন একটি বইয়ে দাবি করেছেন, উইঘুর মুসলমানদের গণহারে আটকের বিষয়ে চীনকে অনেক আগেই অনুমতি দিয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

এদিকে বিলটির বিরোধিতা করে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে চীন। তারা বলছে, এ সিদ্ধান্তটি চীনের জন্য মানহানিকর। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রকে নিজেদের ভুল শুধরে নেয়ার আহ্বান জানিয়ে তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, জিনজিয়াং সম্পর্কিত অন্য দেশের কোনো আইন চীন মেনে নেবে না।

উল্লেখ্য, জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে ১০ লাখের বেশি মুসলমানকে বিভিন্ন ক্যাম্পে আটকে রেখে নিয়মিত নির্যাতন করা হয়। যদিও চীন এ তথ্য সব সময়ই অস্বীকার করে আসছে।

তাদের দাবি, ক্যাম্পগুলোতে মুসলমানদের সব ধরনের মৌলিক সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয়ে থাকে। পাশাপাশি কারিগরি প্রশিক্ষণের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রয়েছে। তারা যেন মৌলবাদে না জড়ায় সে জন্যই ক্যাম্পগুলোতে তাদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়ে থাকে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দ্বিতীয় দফায় বিজয়ী হতে ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সাহায্য পেতে চেষ্টা করেছিলেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ মিত্র এবং দেশটির সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন তার লেখা এক বইয়ে এ দাবি করেছেন।

নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে শিগগিরই প্রকাশ হতে যাচ্ছে নতুন এ বইটি। এতে বোল্টন দাবি করেছেন, ট্রাম্প চেয়েছিলেন যে, চীন মার্কিন কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য আমদানি করুক।

আগামী ২৩ জুন প্রকাশ হবার কথা রয়েছে ‘দ্য রুম হোয়্যার ইট হ্যাপেনড’ শীর্ষক বইটির। যদিও জানুয়ারিতে হোয়াইট হাউস দাবি করেছিল, বইটিতে এমন কিছু গোপন বিষয় আছে, যা অবশ্যই বাদ দিতে হবে। তবে জন বোল্টন সে দাবি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন।

বিবিসি বলছে, বোল্টনের বইটিতে স্থান পেয়েছে ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারের ক্ষেত্রে উঠা প্রশ্নগুলোও।

প্রসঙ্গত, গত বছরের জুনে জাপানের ওসাকায় জি-২০ সম্মেলনের ফাঁকে ট্রাম্প ও জিনপিংয়ের মধ্যকার বৈঠক থেকেই মূলত এ ধরনের অভিযোগ উঠেছে।

নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত বইটির সারসংক্ষেপে বোল্টন দাবি করেছেন, বৈঠকে চীনের প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করেছিলেন, কিছু মার্কিন সমালোচক চান যাতে চীনের সঙ্গে নতুন করে স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়। ট্রাম্প ভেবেছিলেন, চীনা প্রেসিডেন্ট হয় তো ডেমোক্রেটিকদের কথা বলছেন।

‘এর পরই ট্রাম্প বিস্ময়করভাবে ২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিকে আলোচনা ঘুরিয়ে দেন। চীনের অর্থনৈতিক সামর্থ্যের কথা উল্লেখ করে ট্রাম্প নির্বাচনে জেতার জন্য জিনপিংয়ের সাহায্য চান,’ বলছে বোল্টন।

খবরে বলা হয়েছে, নতুন এই বই নিয়ে ইতোমধ্যেই নানা বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

মার্কিন ট্রেড রিপ্রেজেন্টেটিভ রবার্ট লাইথিজার বোল্টনের বক্তব্যকে নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, চীনা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ওই বৈঠকে দ্বিতীয় দফার নির্বাচনে জেতার ব্যাপারে কোন আলোচনা হয়নি।

২০১৮ সালের এপ্রিলে হোয়াইট হাউসে যোগ দেন জন বোল্টন। পরে ওই বছরের সেপ্টেম্বরে তিনি জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদ ছেড়ে দেবার সিদ্ধান্ত নেন। যদিও ট্রাম্প বলেছিলেন, মতানৈক্যের কারণে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

কেবল গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে খেলেই ওজন কমে না। টকজাতীয় খাবার সাময়িকভাবে ক্ষুধা নিবৃত্ত করে কিন্তু স্থায়ীভাবে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার উপায় হল পরিমিত খাবার গ্রহণ ও শরীরচর্চা। প্রতিদিন সকালে লেবু পানি খেয়ে দিনভর তেল ও মসলাদার খাবার খেলে কখনোই ওজন কমবে না। আবার সারা দিন না খেয়ে ওজন কমাতে গিয়ে শরীর দুর্বলও হয়ে পড়ে।

ওজন কমাতে অনেকেই নিয়মিত মধু খান। কিন্তু গরমে মধু না খাওয়াই ভালো। কারণ মধু শরীরের তাপমাত্রা বাড়িয়ে দেয়। ফলে অনেকের মাথা গরম হয়ে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে। আর রাতে ঘুম ঠিকমতো না হলে ওজন কমার সম্ভাবনা নেই। বরং নিয়মিত খাবার খেয়েই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

ওজন নিয়ন্ত্রণে পরিমিত খাবার গ্রহণের একটি সাধারণ ডায়েট চার্ট দেয়া হল। তবে বয়স, ওজন ও সমস্যাভেদে ডায়েট চার্ট পার্থক্য হবে।

সকাল

একটা রুটি, এক বাটি সবজি এবং একটা ডিম। বেলা ১০টা থেকে ১১টায় যেকোনো ফল খেতে পারেন তবে কলা এড়িয়ে যান।

দুপুর

আধকাপ ভাতের সঙ্গে মাছ বা মাংস এবং অবশ্যই এক বাটি ডাল। আর যত খুশি পাতে তুলে নিন সবজি। রান্নায় কম তেল ব্যবহার করুন।

বিকাল

খিদে পেলে সবজির এক বাটি স্যুপ খেতে পারেন। আর বিকেলের নাস্তায় রাখুন গ্রীন টি, টোস্ট অথবা মুড়ি। চাইলে শসা, টমেটোর সালাদও খেতে পারেন।

রাত

রাতে ভাতটা এড়িয়ে যাওয়াই ভালো। দুধের সঙ্গে কর্নফ্লেকস অথবা রুটি দিয়ে ডিনার সারুন।

ওজন নিয়ন্ত্রণে পরিমিত খাবারের পাশাপাশি কিছু স্বাস্থ্যকর নিয়মও মেনে চলতে হবে। যেমন, ঘুমটা যেন অন্তত আট ঘণ্টার হয়। সকালের নাস্তা যাতে বাদ না যায়। সকালের নাস্তা নয়টা ও রাতের ডিনার অবশ্যই রাত আটটার মধ্যে সারতে চেষ্টা করুন। যাদের এসিডিটির সমস্যা নেই তারা টক জাতীয় পানীয়ও ডায়েট চার্টে রাখুন।

0 121

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আরো আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বৃহস্পতিবার ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে নতুন যুদ্ধজাহাজ ‘বানৌজা সংগ্রাম’ এর কমিশনিং অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা শান্তি চাই। কারো সঙ্গে যুদ্ধ করতে চাই না। তারপরও যদি কেউ আমাদের ওপর হামলা করে তখন যেন আমরা যথাযথভাবে সেই হামলার মোকাবেলা করতে পারি। তাই যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আরো আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলা হবে।

তিনি বলেন, আমাদের সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, বিমানবাহিনী প্রত্যেকটা প্রতিষ্ঠান যেন আধুনিক জ্ঞান সম্পন্ন হয়, তা নিশ্চিত করা হবে। সমুদ্র সীমা ও সম্পদ রক্ষায় আমাদের নৌবাহিনীকে আরো শক্তিশালী করতে হবে। সে জন্য ইতোমধ্যে আমরা অনেক আধুনিক সরঞ্জাম কিনেছি।

ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে আন্তর্জাতিক আদালতে সমুদ্র সীমা বিজয়ের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, একদিকে মিয়ানমার, আরেকদিকে ভারত। দুই প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকার পরও আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করে আমরা সমুদ্র সীমা অর্জন করেছি।

সরকার প্রধান বলেন, জাহাজ শিল্পকে এগিয়ে নিতে বিভিন্ন উদ্যোগ হাতে নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে খুলনা শিপইয়ার্ড নৌবাহিনীর হাতে দিয়ে দেয়া হয়েছে। নারায়ণগঞ্জ ও চট্টগ্রামের দুইটা ড্রাইডক নৌবাহিনীকে দিয়ে দিয়েছি। নিজেদের দেশে স্বল্প পরিসরে জাহাজ বানানো শুরু করেছি। পাশাপাশি সেগুলো মেরামতের কাজও আমরা করছি।

বন্ধুপ্রতীম দেশের সঙ্গে যৌথভাবে যেখানে যা প্রয়োজন তা করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, সময় এসেছে নিজেদের শেখার। শিখতে হবে, প্রস্তুত হবে হবে, জানতে হবে। বিশেষ করে প্রযুক্তি জানতে হবে। যেন ভবিষ্যতে জাহাজগুলো আমরা নিজেরেই তৈরি করতে পারি। আমরা যেন প্রয়োজনে রপ্তানি করতে পারি, সেই চিন্তাটাও মাথায় থাকতে হবে।

দেশে প্রতিদিনই বাড়ছে মরণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। ভাইরাসটিতে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা যেমন বাড়ছে, তেমনি নতুন নতুন হটস্পটও চিহ্নিত হচ্ছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবার মৃত্যুর দিক থেকে ঢাকাকে ছাড়িয়ে গেল চট্টগ্রাম।

আজ বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। বুলেটিনে তথ্য উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগে মারা গেছেন ১৪ জন। আর চট্টগ্রাম বিভাগে মারা গেছেন ১৮ জন।

এ ছাড়া রাজশাহী ১, খুলনা ২, বরিশাল ১, ময়মনসিংহ ১ এবং রংপুর বিভাগে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট ১ হাজার ৩৪৩ জনের মৃত্যু হলো।

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬ হাজার ২৫৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩ হাজার ৮০৩ জনকে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১ লাখ ২ হাজার ২৯২ জন।

তবে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১ হাজার ৯৭৫ জন সুস্থ হয়েছেন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৪০ হাজার ১৬৪ জন (হাসপাতাল ও বাসা মিলে)।

দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির প্রথম মৃত্যু ঘটে ১৮ মার্চ।