Home Authors Posts by tribune24

tribune24

59 POSTS 0 COMMENTS

যমজ দুই সন্তান জিহান ও জিদানের জন্য বাঁচতে চাই ফয়সাল সিকদার
আপনার পরিচিত কেউ কি আছে? শিক্ষানবিশ আইনজীবী ফয়সাল সিকদারের দুটি কিডনিই বিকল। জরুরি ভিত্তিতে একজন ও+ (O+) কিডনি ডোনার দরকার। মানবিক ও সহানুভূতিশীল হয়ে সেচ্ছায় কেউ যদি একটি কিডনি দান করেন তাহলে কিডনি প্রতিস্থাপন করে সুস্থ ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনা সম্ভব ফয়সাল সিকদারকে। কেউ যদি জীবন দান করার মতো পৃথিবীর সবচেয়ে মহৎ কাজে এগিয়ে আসতে চান? তাহলে আপনার দান আমৃত্যু ফয়সাল সিকদার নিজের শরীরে বহন করবে এবং আপনাদের জন্য মহান সৃষ্টিকর্তার কারণ প্রার্থনা করে যাবে জীবনভর। ফয়সাল সিকদারের মাত্র ১১ মাসের ২ টি যমজ পুত্র সন্তান রয়েছে। অবুঝ দুই সন্তান জিহান ও জিদানের জন্য বাঁচার আকুতি ঝড়ছে তার চোখে মুখে। সকলের আন্তরিক সহোযোগিতা ও দোয়া তার খুবই প্রয়োজন।

বিঃদ্রঃ পাসপোর্টধারী হলে ভালো হয়। না থাকলেও চলবে।

যোগাযোগ করার নাম্বার – 01682331161 , 01917025515 , 01713606825 , 01717098436।

মহামারি করোনাভাইরাস প্রতিরোধী অন্তত ছয়টি ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ইতোমধ্যে শেষ হয়ে গেছে। সেগুলো এখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) অনুমোদনের অপেক্ষায়। এর মধ্যেই বিভিন্ন দেশ সেই ভ্যাকসিন নেয়ার জন্য নিজেদের বরাদ্দ দিয়ে রেখেছে। বাংলাদেশ সরকারও পিছিয়ে নেই।অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির তৈরি ভ্যাকসিন পাওয়ার জন্য চলতি মাসের শুরুর দিকেই ভারতীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান সেরাম ইনস্টিটিউট ও বাংলাদেশি বেসরকারি বেক্সিমকো ফার্মার সঙ্গে একটি ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষর করেছে সরকার। সেই অনুয়ায়ী প্রাথমিকভাবে তিন কোটি ডোজ ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ। পরবর্তীতে সংখ্যাটা আরো বাড়তে পারে।ডোজ পাবে বাংলাদেশ। প্রতি ডোজের দাম পড়বে ১ দশমিক ৬২ থেকে দুই ডলার। ২০২১ সালের মধ্যে ভ্যাকসিন স্থানান্তরের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

আজ বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানিয়েছেন সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির পরিচালক ডা. সামসুল হক। তিনি জানান, গ্যাভির এই প্রক্রিয়াটি হচ্ছে, আগে আসলে আগে পাবেন ভিত্তিতে। যে দেশ আগে বিতরণ পরিকল্পনা জমা দেবে তারাই সবার আগে পাবে। তারা শিগগিরই পরিকল্পনা জমা নেয়া শুরু করবে।

বাংলাদেশের পরিকল্পনা অনেকটাই তৈরি আছে জানিয়ে ডা. সামসুল হক বলেন, প্রথম দিনই আমরা ভ্যাকসিন বিতরণের পরিকল্পনা জমা দিতে পারবো বলে আশা করছি। প্রতি ডোজের জন্য সরকারকে ১ দশমিক ২৫ মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হবে।

0 0

সিটিজি ট্রিবিউন স্টাফ রিপোর্টারঃ নোয়াখালী হইতে বিপুল পরিমাণ মাদক, বিদেশি মদ, বিয়ার, ইয়াবা এবং ইয়াবার পাউডার সহ গ্রেফতারকৃক বেবী দম্পতি নির্ভিগ্নে মনিপুরী পাড়ায় করছে জমজমাট মাদক ব্যাবসা!

গ্রেফতারকৃত মাদক সম্রাট ব্লাজু ও সেনড্রা ব্লাজু (বেবি) দম্পতি বর্তমানে গোপনে মনিপুরী পাড়ার ১১৬/৩ ভবনে বসবাস করে !
সকলের নাকের ডগায়এই ব্যাবসা পরিচালিত করে আসছে। এরা ধ্বংস করছে মনিপুরী পাড়ার সুনাম ।
আমরা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও মনিপুরী পাড়া কল্যান সমিতিসহ স্হানীয় নেএী স্হানীয়দের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।
আমাদের এই মাদক দস্যুদের কবল হইতে রক্ষা করুন।এরা এলাকায় একটি সিন্ডিকেট তৈরির মাধ্যমে মাদক সহ নানা অনৈতিক কর্মকান্ড করে । মনিপুরী পাড়ায় একাধিক বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে বসবাস করে তারা।তাদের এসব অবৈধ-অনৈতিক ব্যাবসা পরিচালনার সার্থে এলাকায় থ্রী ষ্টার নামে ১টি
চক্র গড়ে তুলেছে! এলাকার প্রভাবশালীদের সাথে সখ্যতার কারনে তাদের অপকর্ম সবাই জ্ঞাত থাকা সত্বেও সবাই নীরব ভুমিকায় থাকে!
বেবীর সহযোগী নাসরিন কেও বাসা ছারার নির্দেশ দেয় ফ্ল্যাট মালিক! বেবী গোপনে ১১৬-৩ নং ভবনে এবং তার সহযোগী পার্টনার নাসরিন পারটেক্স গলিতে বাসা নিয়েছ!
এলাকায় প্রচলিত আছে নাসরিন তার স্বামী টিটুর টাকা পয়সা, সম্পত্তি কৌশলে তার নামে নিয়ে স্বামীকে তালাক দেয়!


মাদক সম্রাট ব্লাজুর গ্রেফতারের পর বোঝাগেল তাদের অর্থের উৎস কোথায়? বেড়িয়ে আসতে থাকে তাদের কুকর্মের নানা লোমহর্ষক তথ্য! আত্ন গোপনে চলে যায় বেবী এবং তার সহযোগীরা!

এই চক্রের মাদক ব্যাবসা ছাড়াও আছে সুদ ও নারী ব্যাবসার জমজমাট কাহিনি।
জানা গেছে নাসরিন তার লোক দিয়ে দিন মজুরদের টাকা দিয়ে পরিচালনা করে জুয়ার বোর্ড! সেখানে খেলার জন্য উচ্চ সুদে দিনমজুরদের লোন দেয়! তার লাঠিয়াল বাহিনির অন্যতম খোকন টাকা আদায়ের জন্য সর্বক্ষন তদারকি করে! নিয়ন্ত্রন করে মাস্তান বাহিনী!

এই দলে আরও আছে পাকিস্তানি এক নাগরিক, যাকে ভিবিন্ন সময় অবৈধ ভাবে এদেশে আসতে দেখা যায়। এলাকায় শোনা যায় থ্রী ষ্টারের অপর সদস্য পারভীন মনার পাতানো স্বামী এই পাকিস্থানী! ইতিমধ্যে মনা তার পাকিস্থানী স্বামীর পরিচয় গোপন করে বাংলাদেশী পাসপোর্ট করার চেষ্টা করলে উপর মহলের তদারকির কারনে ব্যার্থ হয়! মাদক বিক্রির পাশাপাশি তাদের ফ্ল্যাটে নানা বয়সী মেয়ে দিয়ে করায় অবৈধ দেহ ব্যাবসা! সে সময় তারা গোপন ক্যামেরায় ভিডিও ধারন করে তা ভাইরাল করার ভয় দেখিয়ে জিম্মি করে মোটা অংকের টাকা দাবী করে! আর এ টাকার জোড়েই বিলাস
বহুল জীবন যাপন করছে!
এরা সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র অসামাজিক এবং অবৈধ মাদক ব্যাবসা ছাড়াও পুলিশ এবং ফায়ার সার্ভিসে চাকুরী দেয়ার নামে প্রায় ১ ডর্জন লোকের কাছ থেকে প্রায় ১,২৫,০০,০০০ টাকা নিয়ে মাত্র ২ জনের চাকুরী দিয়ে বাকী ১০ জনের টাকা আত্নসাৎ করে।
এরা নিজেদের আওয়ামীলীগ নেত্রী পরিচয় দিয়ে দাপটের সাথে করে আসছিলো অনৈতিক, অসামাজিক আর অবৈধ কর্মকান্ড!


এখনই সময় তাদের বিতারিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা করা!
ধারনা করা হচ্ছে গ্রেফতারকৃত মাদক সম্রাট
ব্লাজু কে পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বেড়িয়ে আসবে তাদের মাদক ব্যাবসার নানা আস্তানা এবং আইনের আওতায় আনা যাবে বেবী গংদের!

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি আবারও অপরাজনীতির পথে হাঁটছে। নির্বাচনে একের পর এক হেরে যাচ্ছে তারা। এমন জ্বালাও-পোড়াওয়ের রাজনীতি করার কারণেই ইতোমধ্যে ভোটাররা দলটিকে প্রত্যাখান করেছে। এভাবে চলতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে বিলুপ্ত হয়ে যাবে দলটি।নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মফিজ উল্লাহ স্মরণে আয়োজিত সভায় যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। কিছুদিন আগে মৃত্যুবরণ করা মফিজ উল্লাহ স্মরণে আজ সোমবার এই সভার আয়োজন করে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। রাজধানী ঢাকার সরকারি বাসভবন থেকে সভায় যোগ দেন দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির এই সাধারণ সম্পাদক।ওবায়দুল কাদের বলেন, ২০১৩-১৪ সালেই আগুন সন্ত্রাস শুরু করেছিলো বিএনপি। নির্বাচনে হেরে গিয়ে এখন আবার তারা সেই একই কাজ শুরু করেছে। নিজেদের দোষে তারা হারলেও প্রতিশোধ নিচ্ছে মানুষের জান-মালের ক্ষতি করে। ভবিষ্যতে তাদেরকে এই সুযোগ আর দেওয়া হবে না। এমনকি এসব আগুন সন্ত্রাস চালানোর পেছনে কোথা থেকে অর্থ আসে, সেটাও খুঁজে বের করা হবে।

0 0

সিটিজি ট্রিবিউন ডেস্কঃ সিটিজি ট্রিবিউন ডট কম এর সিঃ স্টাফ রিপোর্টার,JA টিভি ও দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরো চীফ, বাংলাদেশ নাগরিক অধিকার ফাউন্ডেশান (বিএনএএফ) এর চট্টগ্রাম বিভাগীর সভাপতি, বায়তুল হিকমাহ ফাউন্ডেশন এর সেক্রেটারি, মার্ক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বায়জিদ থানা বাংলাদেশ কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির সভাপতি মোঃ কামাল উদ্দিন চৌধুরী এর শ্যালক মোঃ জাহিদুল ইসলাম আরিপের মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত।

তিনি সাউথ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে গত রবিবার ২৫/১০/২০ইং স্থানিয় সময় বিকাল ৭ টায় ইন্তিকাল করেন, (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।। ৩১/১০/২০২০ সকাল ৯.১৫ কাতার এয়ারলাইন্সের একটা বিশেষ প্লাইটে ঢাকা এয়ার পোর্টে তার লাশ পৌছে,অফিসিয়াল ফাইলপত্রের কাজ শেষে দুপুর ১২ টায় এম্বুলেন্স যোগে চট্টগ্রামের আরিপের নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন।
তিনি মা, দুই বোন এক ভাই সহ অনেক আত্নীয় স্বজন, গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

আমরা মরহুম এর আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।

বিএনপি করে- এটা শুনলে কেউ এখন আর মেয়ে বিয়ে দিতে চাইছে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ। আজ শনিবার কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে রোটারি ক্লাবের আয়োজনে করোনা রোগীদের জন্য আইসিইউ ইউনিটের সক্ষমতা বৃদ্ধি প্রসঙ্গে আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ কথা বলেন।মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, বিএনপি এখন এতটাই দৈন্য যে, বিএনপি করে- এটা শুনলে কেউ এখন আর মেয়ে বিয়ে দিতে চাইছে না। এ কথা দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিজেই বলেছেন।সম্পর্কই স্থাপন করতে চায় না। সে কারণে চরম হতাশায় থাকা বিএনপি নেতারা নানা অসংলগ্ন কথাবার্তা বলছেন।আওয়ামী লীগ কখনোই দলীয় পদ কেনাবেচার রাজনীতি করে না দাবি করে দলটির শীর্ষস্থানীয় এই নেতা বলেন, এ অভ্যাস আওয়ামী লীগের নেই। এটা বিএনপির কাজ। জিয়াউর রহমান দলীয় পদ কেনাবেচার অভ্যাস শুরু করেছিলেন। উনি দল গঠন করার সময় বিভিন্ন দল ভেঙে নেতাকর্মীদের তার দলে যোগদান করান। তখন টাকা দিয়ে পদ কেনাবেচা করেছিলেন।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কোনো সিন্ডিকেটের কাছে সরকার জিম্মি নয় এবং এ ব্যাপারে সরকার কঠোর অবস্থানে আছে। কারণ এ সরকার জনগণের সরকার এবং জনগণের জন্যই সব করছে।

রান্না করার সিলিন্ডারের গ্যাস থেকে লাগা আগুনে শিশুসহ একই পরিবারের ৯ জন দগ্ধ হয়েছে। শনিবার কিশোরগঞ্জের মিঠামইন উপজেলার কাটখাল ইউনিয়নের হাজিপাড়া গ্রামে আব্দুস সালামের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে ৮ জনকেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মিঠামইন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকির রব্বানী।

দিয়ে গ্যাস বের হয়ে পুরো রান্না ঘরে ছড়িয়ে ছিল। শনিবার দুপুরে তার স্ত্রী রান্না ঘরে গিয়ে চুলায় আগুন দিতে গেলে সেই আগুন পুরো ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। একই পরিবারের ৯ জন দগ্ধ হন।

kishorgonj-cylinder-brunt-inner

দগ্ধরা হলেন- আব্দুস সালামের স্ত্রী সিপাইনেছা (৫৮), তাদের দুই ছেলে কামাল (৩৫) ও আনোয়ার (১৭) এবং মেয়ে তাসলিমা (২৫)। এ ছাড়াও রয়েছেন দুই নাতি উম্মে হাবিবা ও উম্মে হানি এবং তাদের আত্মীয় পারভিন (১৫) ও জুয়েনাসহ (২০) মোট ৯ জন।ওসি জাকির আরো জানান, দগ্ধদের প্রথমে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখান থেকে ৮ জনকে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।

বাংলাদেশ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নারীদের অংশগ্রহণ আরও বাড়ানোর আহবান জানিয়েছে।
শান্তিরক্ষায় নারী নেতৃত্ব বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন শান্তিতে নারীর ভূমিকাকে সামগ্রিক দৃষ্টিকোন থেকে বিবেচনা করা।
’সামনে থেকে নেতৃত্বদান : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষায় নারী নেতৃত্ব’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল ইভেন্টে বক্তব্যে জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা একথা বলেন।
জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
নিরাপত্তা পরিষদের ল্যান্ডমার্ক রেজ্যুলেশন- ১৩২৫ এর ২০তম বার্ষিকী স্মরণে শুক্রবার যৌথভাবে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশ, কানাডা ও যুক্তরাজ্য মিশন। তিনি বলেন, শান্তিরক্ষায় নারী নেতৃত্ব বৃদ্ধির জন্য শান্তিতে নারীর ভূমিকাকে সামগ্রিক দৃষ্টিকোন থেকে বিবেচনা করা প্রয়োজন।
২০০০ সালের ৩১ অক্টোবর নিরাপত্তা পরিষদে প্রথমবারের মতো শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষায় নারীর ভূমিকা শীর্ষক এই রেজুলেশনটি সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।
শান্তিরক্ষায় নারীর অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অগ্রণী ভূমিকার কথা তুলে ধরেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা। যুদ্ধবিধ্বস্থ দেশগুলোতে বিশেষ করে ‘যৌন ও লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতা দমন’, ‘পারষ্পরিক আস্থার সম্পর্ক তৈরি’ এবং ঐ সব সমাজের নারীদের দেশ গঠনের কাজে উৎসাহিত করার ক্ষেত্রে নারী শান্তি রক্ষীগণের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ও অবদানের কথা উল্লেখ করেন তিনি। তবে শান্তিরক্ষা কার্যক্রমসহ সামগ্রিক শান্তি প্রক্রিয়ায় এখনও নারীর অংশগ্রহণ খুবই অপ্রতুল বলে উল্লেখ করেন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি।
রাষ্ট্রদূত ফাতিমা শান্তিরক্ষায় নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি করতে জাতিসংঘ ও অন্যান্য সদস্য রাষ্ট্রসমূহের চলমান প্রচেষ্টাকে স্বাগত জানান।
তিনি শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নারী’ শীর্ষক নিরাপত্তা পরিষদের সাম্প্রতিক রেজ্যুলেশন-২৫৩৮ এর উদাহরণ টেনে নারীর ব্যাপক অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ প্রদান, মিশনসমূহে নারীবান্ধব স্থান ও পরিবেশ তৈরি এবং ‘নারী, শান্তি ও নিরাপত্তা (ডব্লিউপিএস)’ এজেন্ডার বাস্তবায়নের আহবান জানান।
তিনি বাংলাদেশের জাতীয় পর্যায়ে ডব্লিউপিএস এজেন্ডা বাস্তবায়নার্থে গতিশীল প্রচেষ্টা গ্রহণ এবং কান্ট্রি অফিসসমূহসহ জাতিসংঘ ব্যবস্থাপনায় আভ্যন্তরীনভাবে এটি কার্যকর করার প্রতিও আহবান জানান তিনি।
ইভেন্টটিতে আরো বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল জ্যঁ পিয়েরে ল্যাক্রোস, কানাডার প্রতিরক্ষা প্রধান জেনারেল জোনাথন ভেঞ্চ, যুক্তরাজ্য মিশনের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স জোনাথন অ্যালেন। এছাড়া পশ্চিম সাহারা অঞ্চলে নিয়োজিত জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা
মিশন মিনুরসো এর ডেপুটি ফোর্স কমান্ডার, দক্ষিণ সুদানে নিয়োজিত মিশন ইউনিমিস এর পুলিশ কমিশনার ও সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিকে নিয়োজিত মিনুসকা মিশনের রিজিওনাল কমান্ডারসহ মাঠ পর্যায়ের বিভিন্ন নারী নেতৃত্ব বক্তব্য রাখেন।
আলোচনা অংশের সমন্বয় ও এর সমাপ্তি টানেন জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের ২০০০ সালে নির্বাচিত সভাপতি,জাতিসংঘের সাবেক আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল ও জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত আনওয়ারুল করিম চৌধুরী। আলোচনা পর্বে আরো অংশগ্রহণ করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত অষ্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও আয়ারল্যান্ড মিশনের রাষ্ট্রদূত ও অন্যান্য প্রতিনিধিগণ।
কূটনীতিক মিশন, সামরিক প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, এনজিও এবং সুশীল সমাজের বিপুলসংখ্যক অংশীজন অনুষ্ঠানটিতে অংশগ্রহণ করেন।
নিরাপত্তা পরিষদের অস্থায়ী সদস্য হিসেবে বাংলাদেশ ২০০০ সালে রেজ্যুলেশন-১৩২৫ গ্রহণের ক্ষেত্রে নেতৃস্থানীয় ভূমিকা রাখে। বাংলাদেশ সরকার ডব্লিউপিএস এজেন্ডা বাস্তবায়নে গত বছর একটি জাতীয় কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ করে।
নারী শান্তিরক্ষীসহ বাংলাদেশ সর্বাধিক শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে বর্তমানে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অবদান রেখে চলেছে।

0 0

সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী কাল পদ্মা সেতুর ৩৪ তম স্প্যানটি খুটির উপর স্থাপন করা হবে।
পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের জানান, সেতুর ৩৪তম স্প্যান বসানোর প্রস্তুতি চলছে। ৩৩তম স্প্যান বসানোর মাত্র ৫ দিনের মাথায় শনিবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে ৩৪তম স্প্যান নিয়ে ৩৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার ভাসমান ক্রেনবাহী জাহাজ ‘তিয়ান ই’ রওয়ানা দেয়। ‘২এ’ নামের এই স্প্যানটি বসবে ৭ ও ৮ নম্বর খুঁটির উপর। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী কাল স্প্যানটি খুটির উপর স্থাপন করা হবে।
এর আগে গত ১৯ অক্টোবর ৩ ও ৪ নম্বর খুঁটির ওপর ৩৩ নম্বর স্প্যান স্থাপন করা হয়। ৩৪ তম স্প্যান উঠলে অক্টোবর মাসের ৩টি স্প্যান স্থাপন হবে।
৩০ অক্টোবর একবারে মাওয়ায় পদ্মা তীরে ২ ও ৩ নম্বর খুঁিটর ওপর ৩৫তম স্প্যান স্থাপন করার কথা রয়েছে। একইভাবে ৪ নভেম্বর ৩৬তম স্প্যান বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানান আব্দুল কাদের।

দেশের জনগণের জন্য কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সংগ্রহ, সংরক্ষণ, পরিবহন ও বিতরণের জন্য বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের কাছে ৫০ কোটি ডলার সহায়তা চেয়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর আকাক্সক্ষা অনুযায়ী সকল দেশবাসীর জন্য যখন উদ্ভাবিত হবে তখনই কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন নিশ্চিত করতে চলতি অর্থবছরে বিশ্বব্যাংকের আইডিএ-১৯-এর আওতায় অতিরিক্ত অর্থ বরাদ্দ হিসাবে এই সহায়তা চাওয়া হয়েছে।
বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের বার্ষিক সভা ২০২০-এর অংশ হিসাবে ২২ অক্টোবর সন্ধ্যায় বাংলাদেশ ও বিশ্বব্যাংকের মধ্যকার এক ভার্চ্যুয়াল সভায় এ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।
সভায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোন্তফা কামাল বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন। বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস-প্রেসিডেন্ট হার্টভিগ শ্যাফার।
অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আজ জানানো হয়, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন এবং বিশ্বব্যাংকের আবাসিক পরিচালক মার্সি টেম্বনও সভায় সংযুক্ত হন।
এতে বলা হয়, কোভিড-১৯ রিকভারি অ্যান্ড রেসপন্স প্রকল্পের আওতায় দেশে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত ধকল সামলানোর জন্য মোট ৫০ কোটি ডলার থেকে জরুরি ভিত্তিতে ২৫ কোটি ডলার অবমুক্ত করার জন্য বাংলাদেশ পক্ষ বিশ্বব্যাংককে অনুরোধ করেছে।
বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, করোনভাইরাস মহামারীর কারণে দেশের ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমবাজার, আর্থিক ও সামাজিক খাতের রক্ষণাবেক্ষণে বিশ্বব্যাংক সমর্থিত প্রোগ্রামেটিক জবস ডেভলপমেন্ট পলিসি ক্রেডিট (ডিপিসি)’র অধীনে চলতি অর্থবছরে ২৫ কোটি ডলার বাজেট সহায়তার তৃতীয় কিস্তি দ্রুত ছাড় করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ পক্ষ ঋণ প্রদানকারী সংস্থাকে অনুরোধ করেছে।
অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবদুর রউফ তালুকদার জানান, সরকার জবস ডিপিসি প্রকল্পের বেশিরভাগ শর্ত পূরণ করেছে এবং বাকি শর্তগুলো খুব শিগগিরই পূরণ করা হবে।
সভার শুরুতে অর্থমন্ত্রী দেশের সার্বিক উন্নয়নে অব্যাহত সহায়তার জন্য বিশ্বব্যাংকের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
জনসংখ্যার অনুপাত বিবেচনায় বাংলাদেশ তৃতীয় বৃহত্তম আইডিএ গ্রহীতা দেশ উল্লেখ করে কামাল জনসংখ্যা বিবেচনা করে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন সংগ্রহের জন্য দ্রুততার সাথে বাংলাদেশকে ঋণ সহায়তা বরাদ্দের জন্য বিশ্বব্যাংকের ভাইস-প্রেসিডেন্ট সহসভাপতি হার্টভিগ শ্যাফারের সহায়তা কামনা করেন ।
কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবিলায় বিশ্বব্যাংকের বিভিন্ন দ্রুত ও সময়োপযোগী প্রয়াসের প্রশংসা করে অর্থমন্ত্রী উল্লেখ করেন যে, বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশকে ১০ কোটি ডলার সহায়তা দিয়েছে।
ইআরডি সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন বলেন, বাংলাদেশ আইডিএ-১৮-এর আওতায় আইডিএ থেকে ৫০০ কোটি ডলার এবং এসইউএফ থেকে ২০০ কোটি ডলার মূল্যমানের প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে সাফল্য দেখিয়েছে, যা আইডিএ দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ।
তিনি আইডিএ-১৯-এর আওতায় বাংলাদেশকে আরো বেশি বরাদ্দ দেওয়ার জন্য বিশ্বব্যাংকের প্রতি আহ্বান জানান।