গণপরিবহণ সংকট, পথে পথে ভোগান্তি

গণপরিবহণ সংকট, পথে পথে ভোগান্তি

সিটিজিট্রিবিউন:পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই শুক্রবার রাতে হঠাৎ করে সরাদেশে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার। এরপর দেশের সব স্থানে দেখা দিয়েছে তীব্র গণপরিবহণ সংকট।

শনিবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেট, মিরপুর, উত্তরাসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, শত শত মানুষ রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছেন বাসের অপেক্ষায়। দীর্ঘ অপেক্ষার পর কোনো কোনো রুটে একটি বাস এলেও সেটিতে ওঠার আশায় ছুটে যাচ্ছেন অনেক বেশি মানুষ। সেসব বাসগুলো আগে থেকে যাত্রীতে পরিপূর্ণ হয়ে আসছে। ফলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে বাসগুলোতে কেউ উঠতে পারছেন না।

শুধু রাজধানীতেই নয়, এই চিত্র দেশের প্রায় সবখানে।

শুক্রবার রাত ১০টায় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপপ্রধান তথ্য অফিসার মীর মোহাম্মদ আসলাম উদ্দিন স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে জানানো হয়।

নতুন দাম অনুযায়ী- প্রতি লিটার ডিজেল ৮০ টাকা থেকে ৩৪ টাকা বেড়ে ১১৪ টাকা, কেরোসিন ৩৪ টাকা বেড়ে ১১৪ টাকা, অকটেন ৪৬ টাকা বেড়ে ১৩৫ টাকা এবং পেট্রল ৪৪ টাকা বাড়িয়ে ১৩০ টাকা করা হয়েছে।

এরপরই জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে শনিবার সকাল থেকে যানবাহন না চালানোর ঘোষণা দেয় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পরিবহণ মালিক গ্রুপ। এক বিবৃতিতে তারা জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি জনজীবনে ভয়াবহ নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে দাবি করে। তারা বলেছে, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি হলে পরিবহণ ভাড়াও বৃদ্ধি করতে হবে।

এছাড়া জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন জারির পরপরই বন্ধ করে দেওয়া হয় সিলেটের বেশিরভাগ তেল পাম্প। মোটরসাইকেল চালকরা রাত ১১টার দিকে তেল নিতে চাইলেও কোনো পাম্পে তেল পায়নি। সিলেটের পাঠানটুলা এলাকায় নর্থইস্ট পাম্পে তেল না পেয়ে সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়ক অবরোধ করেন ক্রেতারা। এসময় টায়ারে আগুন ধরিয়ে বিক্ষোভ করতে দেখা যায় তাদের।

এদিকে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির খবরে যশোরের তেল পাম্পগুলোর সামনে মোটরসাইকেল ও প্রাইভেটকারের ভিড় লেগে যায়। তবে বেশিরভাগ পাম্পই বন্ধ করে দেওয়া হয়। বাসের অপেক্ষায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা মুন্না নামে এক যাত্রী বলেন, কোনো শনিবারে গণপরিবহণের এমন সংকট দেখিনি। ১ ঘণ্টা ধরে দাঁড়িয়ে আছি কোনো বাসে উঠতে পারছি না।

এছাড়া জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করায় ঢাকা- খুলনা মহাসড়কের বিভিন্ন গাড়ির চালক ও যাত্রীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। চালকরা ফিলিং ষ্টেশনে ডিজেল কিনতে গিয়ে দাম বৃদ্ধির কথা শুনে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতেও যাত্রীদের অতিরিক্ত ভাড়া দিতে হচ্ছে।

শনিবার ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ মোড় এলাকার কয়েকটি ফিলিং ষ্টেশনে গেলে মাহেন্দ্রচালক আব্দুল কুদ্দুছ শেখ বলেন, সকালে বাড়ি থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ গাড়ির তেলের টাকা নিয়ে বের হয়েছি। এখন তেল পাম্পে এসে শুনি ডিজেলসহ সব ধরনের তেলের দাম বেড়েছে। এখন আমাদের গাড়ি চালানোই মুশকিল।

রিমা সুলতানা নামে এক যাত্রী বলেন, কলেজের পরীক্ষা দিতে রাজবাড়ীতে যাচ্ছি। এখন গাড়িতে ভাড়া বেশি দিতে হচ্ছে। কেন ভাড়া বেশি জানতে চাইলে চালক বলেন, সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী মধ্যরাত থেকে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় ভাড়া বেশি নিতে হচ্ছে।প্রতিবেদন:কেইউকে।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.