পুতিনের ‘সবুজ সংকেতের’ জন্য রাশিয়ায় এরদোগান

পুতিনেরসবুজ সংকেতেরজন্য রাশিয়ায় এরদোগান

সিটিজিট্রিবিউন: শুক্রবার রাশিয়ার সোচিতে যান তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়েপ এরদোগান। সফরে নিজের সব সিনিয়র মন্ত্রীদের নিয়ে গেছেন তার্কিস প্রেসিডেন্ট।

পুতিন এবং এরদোগান মাত্র ১৭ দিন আগে ইরানের রাজধানী তেহরানে বৈঠক করেন। অল্প সময়ের মধ্যে ফের দুই নেতা এক হয়েছেন।

  ক্যারিম হেস নামে রাশিয়াভিত্তিক একজন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ বলেছেন, সিরিয়ায়অভিযান চালাতেরাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কাছেসবুজ সংকেতপেতে এসেছেন এরদোগান।

গত মে মাসে সিরিয়ায় অভিযান চালানোর ঘোষণা দেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট। তিনি জানান ওয়াইপিজে কুর্দি জঙ্গিরা তুরস্কের সীমান্তের কাছে শক্ত ঘাঁটি তৈরি করছে। তাদের সরিয়ে দিতে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

পরবর্তীতে জানা যায়, সিরিয়ার তেল রিফাত এবং মানবিজে হামলা করতে চান এরদোগান। তবে এরদোগানের অভিযানের বিরোধীতা করে রাশিয়া।

১৭ দিন আগে যখন পুতিনের সঙ্গে এরদোগানের তেহরানে বৈঠক হয়, সেখানে পুতিন সরাসরি জানান তিনি তুরস্কের সিরিয়ায় অভিযানের বিপক্ষে।

তুরস্ক অভিযান চালাতে রাশিয়ার সবুজ সংকেত চায় কারণ সিরিয়ার আকাশ সীমার বেশিরভাগই নিয়ন্ত্রণ করে রাশিয়া। দেশটি সিরিয়ার বর্তমান প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদকে সাহায্য করে থাকে।

তাছাড়া রাশিয়ার সঙ্গে এরদোগান ভালো সম্পর্ক বজায় রাখতেও  পুতিনের সবুজ সংকেত নিয়ে অভিযান চালাতে চান। কারণ রাশিয়ার প্রাকৃতিক  গ্যাসের ওপর অনেকটা নির্ভরশীল তুরস্ক।

ইরানের ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আল খামেনি এবং প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসিও এরদোগানকে অনুরোধ করেন তিনি যেন সিরিয়ায় নতুন করে কোনো সামরিক অভিযান পরিচালনা না করেন।

তবে এরদোগান হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, আমরা শয়তান গ্রুপকে নিশ্চিহ্ন করে দিতে বদ্ধ পরিকর।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ ক্যারিম হেস জানিয়েছেন, এরদোগান পুতিনকে হয়ত রাজি করাতে পারেন। এরদোগান চান তুরস্কের আসন্ন নির্বাচনের আগে কুর্দি জঙ্গিদের ওপর অভিযান চালাতে যেন সাধারণ মানুষ তার পক্ষে আসেন এবং ভোট দেন। সূত্র: আল জাজিরা।প্রতিবেদন:কেইউকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.