Home আইন ও আদালত উনচিপ্রাং রােহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ১ জন অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধার ও ০২ জন...

উনচিপ্রাং রােহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ১ জন অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধার ও ০২ জন অপহরণকারীকে গ্রেফতার র‍্যাব-১৫,

উনচিপ্রাং রােহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে ১ জন অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধার ও ০২ জন অপহরণকারীকে গ্রেফতার র‍্যাব-১৫,

আয়াজ সানি সিটিজি ট্রিবিউন চট্টগ্রাম

কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানাধীন উনচিপ্রাং রােহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকার পাহাড়ে অভিযান পরিচালনা করে ০১ জন অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধারসহ ০২ জন অপহরণকারীকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-১৫,

 

র‍্যাব-১৫,গত ১৯ জুলাই ২০২১ ইং তারিখে একজন ব্যক্তি র্যাব -১৫ এর সিপিসি -২ , হােয়াইক্যং এ অভিযােগ দায়ের করেন যে , কয়েকজন অপহরণকারী তার ভাতিজা রুহুল আমিন  মােঃ আব্দু ( ২০ ) , পিতা- জাফর আলম , মাতা- নুর বাহার , সাং মনখালী দক্ষিন পাড়া , ০৯ নং ওয়ার্ড , জালিয়াপালং ইউপি , থানা- উখিয়া , জেলা- কক্সবাজারকে গত ১০ জুলাই ২০২১ অপহরণ করে একটি মােবাইল নম্বর থেকে তার পরিবারকে ফোন করে মুক্তিপন হিসেবে ২,০০,০০০ ( দুই লক্ষ ) টাকা দাবি করে অন্যথায় তাকে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয় ।

উক্ত অভিযােগের ভিত্তিতে কোন কালবিলম্ব না করে র্যাব অভিযানে নেমে ২০ জুলাই ২০২১ তারিখ আনুমানিক রাত ০২.৩০ টায় র‍্যাব-১৫ , কক্সবাজারের একটি চৌকস আভিযানিক দল কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানাধীন হােয়াইক্যং ইউনিয়নের উনচিপ্রাং রােহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকার পাহাড়ে অভিযান পরিচালনা করে ভিকটিম রুহুল আমিন  মােঃ আব্দুকে উদ্ধার করে এবং র্যাব সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে অপহরণকারীরা পালিয়ে যাওয়ার প্রাক্কালে

আসামী ১। আমির হােসেন ( ৩০ ) , পিতা- মৃত বাচা মিয়া , মাতা- ফাতলি , ২। নাসিম আলম ( ২০ ) , পিতা মৃত নুরুল আলম , মাতা- রাবেয়া বেগম , উভয় সাং – আমতলী পাড়া ( হােয়াইক্যং পুলিশ ফাড়ির পশ্চিমে ) , ০২ নং ওয়ার্ড , ইউপি হােয়াইক্যং , থানা – টেকনাফ , জেলা- কক্সবাজারদের ধৃত করে এবং তাদের সঙ্গীয় ১০/১১ জন অপহরণকারী দৌড়ে পালিয়ে যায় ।

পরবর্তীতে ভিকটিমকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় যে , সে একজন ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা চালক । প্রতিদিনের ন্যায় সে গত ১০/০৭/২০২১ তারিখ অনুমানিক ১৬.৩০ ঘটিকার সময় কক্সবাজার জেলার উখিয়া থানাধীন জালিয়াপালং ইউপিস্থ মনখালী বন বিভাগের বিট অফিসের সামনের পাঁকা রাস্তার উপর অটোরিক্সা নিয়া গেলে কৌশলে ধৃত আসামীসহ আরাে পলাতক সঙ্গীয় ১০-১১ জন অপহরণকারীরা তাকে অপহরণ করে তাদের সঙ্গীয় পলাতক আব্দুল আমিন এর বসতঘরে আটকে রাখে এবং ভয়ভীতি প্রদর্শন করতে থাকে ।

একপর্যায়ে তার কাছ থেকে তার পরিবারের মােবাইল নম্বর নিয়ে মুক্তিপণ দাবি করে এবং টাকা দিতে ব্যর্থ হলে মেরে ফেলবে বলে হুমকী দেয় । প্রশাসনকে তাদের অবস্থান সম্পর্কে ফাঁকি দেয়ার উদ্দেশ্যে অপহরণকারীরা ভিকটিমকে বিভিন্ন সময় টেকনাফের বিভিন্ন পাহাড়ে স্থানান্তরিত করে ।

পরবর্তীতে ভিকটিমকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তার পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয় ।

NO COMMENTS

Leave a Reply