Home আইন ও আদালত পুলিশের জালে আটক কাভার্ডভ্যান প্রতারক,বিপুল পরিমাণ মালামাল জব্দ।

পুলিশের জালে আটক কাভার্ডভ্যান প্রতারক,বিপুল পরিমাণ মালামাল জব্দ।

পুলিশের জালে আটক কাভার্ডভ্যান প্রতারক,বিপুল পরিমাণ মালামাল জব্দ।

সি রিপোর্ট হুমায়ুন কবীর হীরু
চট্টগ্রাম মহানগর টিজি ট্রিবিউন চট্টগ্রাম

অভিনব কায়দায় ব্যবসায়িক পণ্য কাভার্ড ভ্যানে করে নিদিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছে না দিয়ে আত্মসাৎ করার অভিযোগে ৪কাভার্ড ভ্যানে প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে সদরঘাট থানা পুলিশ।

লুপ ফ্রেইট লিমিটেডের ব্যবসায়ী মো. আল মামুন মজুমদারের 30 লক্ষ টাকা ট্রাকভর্তি পণ্য নিয়ে উধাও হওয়া মামলার ভিত্তিতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, মো. মজিবুর রহমান রিয়াল, মো. মাসুম, মো. বাবলু মিয়া ও মো. নুরুল হুদা।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার দুপুরে সদরঘাট থানায় একটি প্রেস ব্রিফিংয়ের আয়োজন করা হয়। প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তব্য রাখেন সিএমপি’র দক্ষিণ জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার বিজয় বসাক। তিনি বলেন, আসামি রিয়াল বিভিন্ন ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ীদের সাথে যোগাযোগ করে বন্দর থেকে মালামাল পরিবহনের চুক্তি ভিত্তিতে। পরবর্তীতে অন্যান্য ব্রোকারের মাধ্যমে ট্রাক ভাড়া নেয়। ট্রাকে মালামাল লোড করে কিছুদুর গেলে ট্রাক ড্রাইভারকে ফোন করে গন্তব্যস্থলের পরিবর্তে দুরের আরেকটি গন্তব্যস্থলে যাওয়ার কথা বলে। ট্রাক ড্রাইভার যেতে রাজি না হলে তার পরিচিত ড্রাইভারকে দিয়ে অন্য একটি ট্রাক এনে মালগুলো স্থানান্তর করা হয়। পরে অন্যান্য আসামীদের সহায়তায় মালামাল আত্মসাত করে অন্যত্র বিক্রি করে দেয়।

মামলার ভিত্তিতে আসামীদের গ্রেপ্তার করে তাদের তথ্যমতে নগরীর পশ্চিম মাদারবাড়ীর আমজাদ এন্ড ব্রাদার্সের গোডাউন থেকে ৩টি এসএস বড় কয়েলকে কাটা ৫৯টি রোল উদ্ধার করা হয়। যেগুলোর ওজন ৮ হাজার ৬৭০ কেজি এবং বাজারমূল্য আনুমানিক ৩০ লাখ টাকা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে লুপ ফ্রেইট লিমিটেডের চট্টগ্রাম রিজিওনাল হেড মো. রায়হান উদ্দিন বলেন, এই চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে সমস্ত অপকর্ম করে চলেছেন ঠিক একইভাবে আমাদের মালামালগুলো তারা চুরি করে নিয়ে যায় তাই এ ব্যাপারে আমরা একটা মামলা করি মামলা করার পর পুলিশ তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে আসামীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

এভাবে ট্রাক ভর্তি মালামাল চুরির পেছনে একটি চক্র কাজ করছে জানিয়ে বাংলাদেশ কাভার্ড ভ্যান ট্রাক প্রাইম মুভার পণ্য পরিবহন মালিক এসোসিয়েশনের বন্দর বিষয়ক সম্পাদক মো. শামসুজ্জামান সুমন বলেন, এই ধরনের চোরদের কঠিন শাস্তি হওয়া উচিত এবং সরকারের কাছে অনুরোধ করছি বর্তমানে চুরির যে ধারা আইনের মধ্যে আছে সে ধারাটিকে আরও জোরালো করা হোক।

এই চক্রের মূল হোতাদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে তাদের শাস্তি মূলক ব্যবস্থা দাবি করছেন ব্যবসায়ীরা।

NO COMMENTS

Leave a Reply