Home চট্টগ্রাম সাংবাদিকতা মানেই প্রতিনিয়ত ঝুকি: রাশেদ মাহমুদ ভিডিও সংযুক্ত

সাংবাদিকতা মানেই প্রতিনিয়ত ঝুকি: রাশেদ মাহমুদ ভিডিও সংযুক্ত

0 0

সাংবাদিকতা মানেই প্রতিনিয়ত ঝুকি: রাশেদ মাহমুদ ভিডিও সংযুক্ত

সিটিজিট্রিবিউন:

করোনা শুধু বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্ব কাপানো একটি মহামারি । যা এখন ভয়ংকর রুপ নিয়েছে এই পরিস্থিতি সামলাতে হিমসিম খাচ্ছে সারা বিশ্ব বাংলাদেশেও  এ থেকে পিছিয়ে নেই । এই করোনা কালে যে কয়েকজন  সাংবাদিক দিনরাত পরিশ্রম করে সাংবাদিকতা করে গেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম একজন হচ্ছেন চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের অর্থ সম্পাদক জনাব রাশেদ মাহমুদ ।তিনি শত কাজের ব্যস্ততার মাঝেও আমাদের সময় দিয়েছেন। তার সাক্ষাৎকারটি নিয়েছিলাম সিটিজিট্রিবিউন পরিবারের পক্ষ থেকে প্রেস ক্লাবে আজ মঙ্গলবার তার অফিস  কক্ষে বসে ।

সিটিজিট্রিবিউনের পরিচালক ও বার্তা সম্পাদক কামাল উদ্দিন খোকন ও নির্বাহী সম্পাদক আয়াজ আহম্মেদ সানি নিন্মে তা তুলে ধরা হলো

সিটিজিট্রিবিউন: শুধু বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্ব কাপানো একাট মহামারি করোনা  যা এখন ভয়ংকর রুপ নিয়েছে এই পরিস্থিতি সামলাতে হিমসিম খাচ্ছে সারা বিশ্ব বাংলাদেশ ও  এর থেকে পিছিয়ে নেই । এই করোনা কালে যে কয়েকজনসাংবাদিক দিনরাত পরিশ্রম করে গেছেন তার মধ্যে আপনি একজন । অনেক চড়াও উৎরাই পেরিয়ে এ পেশায় এসেছেন এতো বছরের সাংবাদিকতার ইতিহাস এক ঘন্টায় বলা যাবেনা সংক্ষেপে আমাদের যদি কিছু বলেন ?

রাশেদ::আসলে আমরা সাংবাদিকরা প্রতিদিন নানা সমস্যা নিয়ে নানা ধরনের সমস্যায় পড়ি প্রতিদিন নানা ধরনের ঘটনা ঘটে আমাদের সাংবাদিকরা সেখানে যাই সবার সাথে কথা বলে একটা প্রতিবেদন তৈরী করি সে নিউজ টি আবার সাধারন মানুষ পড়ে। এটা কারো কাছে ভালো আবার আরো জন্য বিপদের কারন হয়ে দাড়ায় আপনি সবাইকে সন্তুষ্টি করতে পারবেন না।

সিটিজিট্রিবিউন:আপনি আসলে ফটো সাংবাদিক হিসাবে কাজ শুরু করেছেন এবং পাশাপাশি রিপোর্টিংয়ের কাজ ও করেছেন এটা করতে গিয়ে কোন স্বরনীয় ঘটনার কথা বলবেন । 

রাশেদ : আসলে আমি ৮৬ সালে প্রথম দৈনিক সেবক পত্রিকার মাধ্যমে আমার কাজ শুরু করি এর কিছু দিন পর আমি কিছু দিন বিরত ছিলাম এর মধ্যে একটি ব্যাংকে চাকরি নিলাম ,ব্যাংক এর নাম উইসিবি এল ব্যাংক সেখানে মন বসছিল না কারন চাকরীতে যেতাম সুর্য্য উঠার আগে যেতাম আর বের হতাম সুর্য্য ডুবার পরে । পরে ভোরের কাগজ বের হওয়ার পর সেখানে যোগদান করলাম সেটি ৯৮ সালে পরে যখন প্রথম আলো বের হলো মোমেন ভাইয়ের মাধ্যমে সেখানে যোগদান করলাম।

আর একটি ঘটনা আমার জন্য আজীবন স্বরনীয় হয়ে থাকবে সেটি ছিল ২০০১ সালে রাংগামাটি তে তিনজন বিদেশী ফরেনার অপহরণ হয়েছিলো সেই ছবি তোলার জন্য চলে যেতে হয়েছে আমাকে সেখানে ।আর এদিনই ছিল আমার প্রথম কন্যা সন্তানের জন্ম নেয়ার দিন ,আমি তার মুখ দেখতে পারিনি এক সপ্তাহ ধরে । পরে যখন বিদেশীরা উদ্বার হলো আমি ফিরে এলাম আমার কন্যা সন্তানকে কোলে নিলাম ।

এবং আর একটি ঘটনা ঘটেছিল ২০০৭ সালে তুফানের কারনে সাগর ছিল উত্তাল আমরা স্পীড বোর্ড নিয়ে ছবি তুলতে চলে গেলাম যখন গভীর সাগরে পোছলাম মনে হচ্ছিলো এখনই বোধ হয় আমারা ডুবে মারা যাবো যাক খোদার  রহমতে আমারা ফিরে আসলাম ।

সিটিজিট্রিবিউন: আপনি ক্লাবের লাইব্রেরী সম্পাদক ছিলেন এখন আবার ভোটাদের ভোটে অর্থ সম্পাদক হয়েছেন এর কারন কি ?

রাশেদ: আসলে সাধারন ভোটার আমাকে ভালোবেসে নির্বাচিত করেছে এর জন্য আমি তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই ।

সিটিজিট্রিবিউন:কোভিট এর সময়েআপনারা সাধারন সদস্যদের জন্য অনেক কাজ করেছেন এই বিষয়ে কিছু বলবেন ।

রাশেদ:আসলে এটা দাবীদার ক্লাবের পরো  কমিটি আমি একা না।

সিটিজিট্রিবিউন:এবার আপনার পারিবারিক জীবন সম্পর্কে কিছু বলুন ।

রাশেদ:আসলে আমি সুখি পরিবার এর এক জন আমার এক ছেলে এক মেয়ে তারা লোখাপড়া করছে আপনারা তাদের জন্য দোয়া করবেন এবং আমার স্ত্রী একটি ক্যাটারিং কাজে জড়িত আমি তাকে সাহায্যে করার চেষ্টা করি ।

সিটিজিট্রিবিউন:এতো কস্ট করে আমাদেরকে সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ ।

রাশেদ:আমি সিটিজিট্রিবিউন পোর্টলের সাফল্য কামানা করি  এবং আপনারা সিটিজি ট্রিবিউন প্রতিটি মানুষের কথা তুলে ধরার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তাই আপনাদের প্রতি রইলো ভালবাসা পরিশেষে আপনাদের সিটিজি ট্রিবিউন পরিবার কে অসংখ্য ধন্যবাদ ।

NO COMMENTS

Leave a Reply