Home অপরাধ খুলশী এলাকায় চাঁদা দাবি, বসতভিটা দখলের চেষ্টা অসহায় ভুক্তভোগীর পরিবার

খুলশী এলাকায় চাঁদা দাবি, বসতভিটা দখলের চেষ্টা অসহায় ভুক্তভোগীর পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃ

চট্টগ্রামের খুলশী থানাধীন ডেবরাপাড় কুসুম বাগ আবাসিক এলাকায় ছাত্রদল ক্যাডার চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি মোঃ ইলিয়াস খানের বিরুদ্ধে চাঁদা দাবী ও বসতভিটা দখলের চেষ্টার অভিযোগ করে ভুক্তোভোগীর পরিবার ।

এই নিয়ে ভোক্তভোগী মোহাম্মদ নবী হোসেন বাদী হয়ে ইলিয়াস খান সহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ৩০/৪০ জনকে আসামি করে রবিবার ৪ এপ্রিল বিজ্ঞ চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেছে। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্তপূর্বক রিপোর্ট দেওয়ার জন্য সিআইডি, চট্টগ্রামকে নির্দেশ দিয়েছে।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ছাত্রদল ক্যাডার ইলিয়াস খানের নেতৃত্বে ২০-৩০ জন সশস্ত্র ক্যাডার প্রতিনিয়ত নবী হোসেনের বসতভিটায় গিয়ে উচ্ছেদের জন্য হুমকি ধামকি দিচ্ছে এবং চাঁদা দাবি করছে বলে জানান ভুক্তভোগীরা ।

স্হানীয় এবং আদালত সূত্রে পাওয়া তথ্যমতে, স্থানীয় নবী হোসেন বৈধভাবে স্বত্ত্ববান হয়ে
খুলশী কুসুম বাগ আবাসিক এলাকায় ২ নং রোডে তার জায়গায় ছোট্ট বসতভিটা নির্মাণ করে দীর্ঘ বছর ধরে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে বসবাস করে আসছে।

কিন্তু ঐ বসতভিটা দখলের জন্য কুনজর পড়ে স্হানীয় ভূমিদস্যু জাকিয়া বেগমের। জাকিয়া বেগমের স্বামী হাসান আলী মৃত্যুবরণের আগে মানুষের সাথে প্রতারণা করে বহু ভুয়া দলিল তৈরী করে । তবে বর্তমানে জাকিয়া বেগম যে জায়গায় বসতভিটা নির্মাণ করে বসবাস করছে সেটিও বিরোধপূর্ণ এবং দখলকৃত।

জাকিয়া বেগম প্রতারণার অংশ হিসেবে স্হানীয় আম্বিয়া বেগম এবং নবী হোসেনকে ভাড়াটিয়া উল্লেখ করে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিজ্ঞ সহকারী জজ আদালত, চট্টগ্রামে একটি ভাড়াটিয়া উচ্ছেদ মামলা করে।

এই কানে শেষ ন‌ই, জাকিয়া বেগমের মেয়ের জামাই স্হানীয় ছাত্রদল ক্যাডার ইলিয়াস খানের পিতা আবুল হোসেন চট্টগ্রাম জজ কোর্টের কর্মচারী। সেই সুবাদে তারা পরস্পর যোগসাজশে মামলার যাবতীয় নোটিশ গায়েব করে একটি একতরফা ডিক্রি নেয় এবং তৎপরবর্তীতে জারী মামলা করে।

বিজ্ঞ আদালত উচ্ছেদের মূল মামলা হইতে ভুক্তভোগী নবী হোসেনের নাম বাদ দিয়ে দেন। কিন্তু তারপরও জাকিয়া বেগম পুনরায় প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে নবী হোসেনের নামসহ দিয়ে বিজ্ঞ আদালতে জারী মামলা করে।

বিষয়টি জানতে পেরে ভুক্তভোগী নবী হোসেন সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞ আদালতে দরখাস্ত দিলে বিজ্ঞ আদালত শুনানীপূর্বক সন্তুষ্ট হয়ে মামলা হইতে নবী হোসেনের নাম বাদ দেয়। পরবর্তীতে নবী হোসেন বাদী হয়ে তার বৈধ জায়গায় যাথে কেউ জোরপূর্বক প্রবেশ করে দখল করতে না পারে সেজন্য নিষেধাজ্ঞার মামলা দায়ের করে।

আইনগতভাবে মোকাবেলার পথ না দেখে জাকিয়া বেগম তার মেয়ের জামাই ছাত্রদল ক্যাডার ইলিয়াস খান এবং তার পিতা আবুল হোসেন সহ বহিরাগত সন্ত্রাসী দিয়ে নবী হোসেনের বসতভিটা দখলের চেষ্টা করে এমনটাই জানালেন ভুক্তভোগীর পরিবার ।

NO COMMENTS

Leave a Reply