Home আইন ও আদালত চট্টগ্রামে মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে অপহরণ, অপহরণকারী চক্রের ০৪ জন গ্রেফতার ও ভিকটিম...

চট্টগ্রামে মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে অপহরণ, অপহরণকারী চক্রের ০৪ জন গ্রেফতার ও ভিকটিম উদ্ধার

আয়াজ আহমাদ:
গত ইং ১০/০৪/২০২১ তারিখ বিকাল অনুমান ০৫.৩০ ঘটিকায় অফিসার ইনচার্জ, কোতোয়ালী থানা, সিএমপি, চট্টগ্রাম এর মোবাইলে একটি কলের মাধ্যমে সংবাদ পান যে, একজন নারীকে মুক্তিপনের জন্য অপহরন করেছে। তিনি উক্ত সংবাদ উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ), সিএমপি, চট্টগ্রাম জনাব বিজয় বসাক, বিপিএম, পিপিএম (বার) কে বিষয়টি অবগত করেন।
উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মহোদয়ের নির্দেশ মোতাবেক এসি (কোতোয়ালী জোন) জনাব নোবেল চাকমার নেতৃত্বে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জনাব মোহাম্মদ কবির হোসেন, পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) জনাব মোঃ জাবেদ উল ইসলাম, এসআই/মোঃ মোমিনুল হাসান, এসআই/ধর্মেন্দু দাশ,
এএসআই/অনুপ কুমার বিশ্বাস, এএসআই/সাইফুল আলম ও এএসআই/রণেশ বড়ুয়া গণ বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ইং ১০/০৪/২০২১ তারিখ সন্ধ্যা ০৬.০০ ঘটিকা হতে মধ্যরাত পর্যন্ত আকবরশাহ থানাধীন মীর আউলিয়া মাজারের পাহাড় ও শাপলা আবাসিক এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে উক্ত ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ০১।
কালু মিয়া প্রকাশ রাজু (১৯), ০২। মোঃ সোহেল মিয়া (১৯), ০৩। মোঃ দুলাল বাবুর্চি (৩৭), ০৪। মোঃ তারেক আকবর (১৯) কে আটক করে ও ভিকটিমকে উদ্ধার করে। পরবর্তীতে জিজ্ঞাসাবাদে তারা ভিকটিম সুমনা (ছদ্মনাম) (১৬) কে অপহরন করে মুক্তিপণ দাবীর কথা স্বীকার করে।
ভিকটিম সুমনা (ছদ্মনাম) (১৬) কোতোয়ালী থানাধীন রহমতগঞ্জ জিতু নামক ব্যক্তির বাসায় গৃহ পরিচালিকা হিসাবে কাজ করে। গত ০৯/০৪/২০২১ইং তারিখ দুপুর অনুমান ১২.০০ ঘটিকায় সে কাজ শেষ করে রহমতগঞ্জ রোডে আসা মাত্রই ১ সপ্তাহের পরিচয়ের প্রেমিক কালু মিয়া ও কালু মিয়ার চাচাত ভাই মোঃ সোহেল মিয়া (১৯) দ্বয়ের সাথে দেখা হয়। তখন তারা ভিকটিমকে তাদের সাথে পাহাড়ে বেড়াতে যেতে বলে।
ভিকটিম রাজি না হলে তারা ভিকটিমকে একটি সিএনজি’তে তুলে মীর আউলিয়া মাজারের পাহাড়ে অপহরন করে নিয়ে যায়। সেখানে যাওয়ার পর কালু মিয়া ভিকটিমের সাথে পাহাড়ের উপর নির্জনস্থানে ধস্তাধস্তি করে। হঠাৎ দেখতে পান এক ব্যক্তি তাদেরকে মোবাইলে ভিডিও করছে।  উক্ত দুলাল বাবুর্চি তার সহযোগী রাসেল এর সহায়তায় আটক করে তার মোবাইল ফোনে অন্যান্য লোকজনদের ডাকে।
কিছুক্ষণের মধ্যে অপরাপর ব্যাক্তিদের সহযোগিতায় তাদেরকে ভয়ভীতি দেখিয়ে সকলে মিলে শাপলা আবাসিক মডেল পল্লী নবাব মিয়ার বাড়ীতে একটি রুমে আটক করে ভিকটিমের নিকট হতে ৫,০০,০০০/-(পাঁচলক্ষ ) টাকা মুক্তিপন দাবী করে।
তারেক তার সহযোগী শাহাদত এর মোবাইল থেকে ভিকটিমের বোন সুলতানা আক্তার ও ভাই তাজ ইসলাম এর মোবাইলে ফোন করে মুক্তিপণের টাকা দাবী করে।
১০/০৪/২০২১ইং তারিখ দিবাগত রাত্রে আটককৃত রুম হতে তারেক ও তার সহযোগীরা ০৩ জনের মধ্য হতে মোঃ সোহেল মিয়াকে রুম থেকে বের করে অন্যত্র নিয়ে যায়। অপরদিকে কালু মিয়া ভিকটিমকে জোরপূর্বক ধর্ষন করে।
ভিকটিম সুমনা (ছদ্মনাম) (১৬) বাদী হয়ে এ সংক্রান্তে এজাহার দায়ের করলে আসামীদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ৭/৮/৯(১)/৩০ ধারায় ০১টি মামলা রুজু হয়।
গ্রেফতারকৃতদের নাম ও ঠিকানা- ০১। কালু মিয়া প্রকাশ রাজু (১৯), পিতা-মোঃ আব্দুল মোতালিব মিয়া, মাতা-সুলেমা খাতুন, সাং-কালিকচ্ছ, হাবি সাহেব এর বাড়ী, ৪নং মনির বাগ ইউপি, থানা-সরাইল, জেলা-ব্রাহ্মণবাড়ীয়া বর্তমানে-শান্তিনগর, বগারবিল, চেয়ারম্যান কলোনী, থানা-বাকলিয়া, জেলা-চট্টগ্রাম, ০২। মোঃ সোহেল মিয়া (১৯), পিতা-মৃত রমজান মিয়া,
মাতা-হালিমা বেগম, সাং-কালিকচ্ছ, হাবি সাহেব এর বাড়ী, মনিরবাগ, ৪নং ওয়ার্ড, থানা-সরাইল, জেলা-ব্রাহ্মণবাড়ীয়া বর্তমানে-শান্তিনগর, বগারবিল, চেয়ারম্যান কলোনী, থানা-বাকলিয়া, জেলা-চট্টগ্রাম, ০৩। মোঃ দুলাল বাবুর্চি (৩৭), পিতা-মৃত নুরুল ইসলাম, মাতা-আছিয়া খাতুন, স্ত্রী-ফারজানা আক্তার, সাং-জিরন, ১নং

NO COMMENTS

Leave a Reply