Home অপরাধ হালিশহরে চাঁদার দাবিতে মিল্টন বাহিনীর সন্ত্রাসী তান্ডব, দোকান ভাঙচুর, আহত ৪জন৷

হালিশহরে চাঁদার দাবিতে মিল্টন বাহিনীর সন্ত্রাসী তান্ডব, দোকান ভাঙচুর, আহত ৪জন৷

নগরীর হালিশহর থানাধীন বিডিয়ার মাঠ এলাকায় ভ্রাম্যমাণ দোকান থেকে চাঁদা তোলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
এ সময়ে বেশ কয়েকটি দোকান ভাঙচুর করা হয়।
২৪ শে ফেব্রুয়ারী রাত ১০ ঘটিকা সময়ে এই ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায় একাধিক মামলার আসামী নুরুদ্দীন মিল্টনের নেতৃত্বে একটি গ্রুপ হালিশহর বিডি আর মাঠ এলাকার দোকান গুলো থেকে চাদা সংগ্রহ করতে আসলে এবং চাদা না দেওয়ায় দোকানদারকে মারধোর করে।

এ সময় মিল্টন ও সন্ত্রাসী রবিনের নেতৃত্বে বেশ কয়েকটি দোকানে ভাংচুর চালায়। এ সময় সেখানে উপস্থিত হালিশহর থানার ছাত্রলীগ নেতারা বাধা দিলে তাদের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে মিল্টন ও তার অনুসারীরা।
ছাত্রলীগ নেতা সাব্বির আহমেদ শামীম,ইসমাইল হোসেম সম্রাটকে কুপিয়ে জখম করা হয়।

আহত ছাত্রলীগ নেতারা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসে সাংবাদিকদের জানায়,হঠাৎ করেই অতর্কিত ভাবে রামদা হকিস্টিক ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমাদের উপর হামলা করে মিল্টন ও তার অনুসারীরা। তাদের হামলায় দোকানদার এবং পথচারীসহ আরো বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে।

এ সময় কয়েকটি ফাঁকা গুলিও ছোঁড়া হয়েছে বলে অভিযোগ করে আহত ছাত্রলীগ নেতারা। প্রত্যক্ষদর্শীদের বিবরণে জানা যায়, নুর উদ্দিন মিল্টন প্রকাশ পিস্তল মিল্টনের নেতৃত্বে চাঁদাবাজি ও হামলার ঘটনায় অংশগ্রহণ করে ইকবাল হোসেন মামুন ( প্রকাশ সোর্স মামুন) পারভেজ, মাইকেল সুমন, সাইফুল ইসলাম রবিন, কিশোর গ্যাং লিডার তুষার,

মিশু,রুবেল,রাকিব ( প্রকাশ পিচ্চি রাকিব)। অভিযোগ এই চাঁদাবাজ গ্রুপ হালিশহর এলাকায় বিভিন্ন কমিউনিটি সেন্টারের বিয়ের অনুষ্ঠানে আগত বিভিন্ন মেহমানদের মোবাইল ও টাকা ছিনিয়ে নিতো,গতকাল হালিশহর ফইল্লাতলি বাজারস্হ কুটুম্ববাড়ী কমিউনিটি সেন্টারে গিয়ে এক নারীকে উক্তত করে মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার সময় মিল্টন গ্রুপের এক সদস্য রুবেল কে জনগণ হাতেনাতে ধরে গণধোলাই দেয়,অন্যদিকে হালিশহর এ ব্লক এলাকায় ব্যবসায়ীরা এক প্রকার জিন্মি এই গ্রুপের হাতে,এরা প্রতিনিয়ত অস্ত্র নিয়ে ব্যবসায়ীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে চাঁদা আদায় করার অভিযোগ রয়েছে।

অভিযুক্ত মিল্টনের বিরুদ্ধে হালিশহর থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। এ গ্রুপের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা থাকলে ও হালিশহর থানা প্রশাসনিক কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না।এ ছাড়া বিডিআর মাঠ সংলগ্ন ঢাকা ব্যাংক ও আর,এফ,এল শোরুমে সিসিটিভি ফুটেজ চেক করলে প্রশাসন পুরো ব্যাপারটার সার্বিক চিত্র প্রমান সহ পাবেন এলাকাবাসী জানিয়েছেন।

এবং এলাকায় ব্যবসায়ীদের জোর দাবী অতি দ্রুত এসব ভিডিও ফুটেজ চেক করে দোষীদের আইনের আওতায় আনা হোক।

NO COMMENTS

Leave a Reply