Home চট্টগ্রাম হাজারো নেতা-কর্মিসহ রাজপথে সুমন মহিব্বুল মান্নান ও রাজিব

হাজারো নেতা-কর্মিসহ রাজপথে সুমন মহিব্বুল মান্নান ও রাজিব

0 0

নিজস্ব প্রতিবেদক :লোহাগাড়াসহ চট্টগ্রাম নগরের এক সময়ের ছাত্র রাজনীতির আইকন জাহেদুল কবির সুমন, মহিব্বুল হক, অাবদুল মন্নান ও মিছবাহ উদ্দিন রাজিব হাজারো নেতা-কর্মিসহ আজ রোববার ২১শে ফেব্রুয়ারি শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক করেন। এই চারজনকে এক কাতারে পেয়ে নেতা-কর্মির মন চাঙ্গা হতে দেখা গেছে।

এই সময় তাদের ব্যানারে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার ছবি দেখা গেছে। সাবেক এক ঝাঁক ছাত্র নেতাদের র‌্যালী দেখে আওয়ামী ভক্তদের মনে সাহস বৃদ্ধি ও বেশ আনন্দ বিরাজ করতে দেখা গেছে। সাবেক ছাত্র নেতা খোকন বলেন, রাজ পথে যাদের মানায়। যারা কর্মির প্রতি দায়িত্ববান তাদের সাথে রাজনীতি করা যায়। যুবলীগ নেতা হাছান বলেন,

আমরা রাজনীতি করার জন্য স্থানিয় ও কেন্দ্রিয়ভাবে অভিভাবকের অভাব ছিল। এখন কেন্দ্রীয় অভিভাবক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও স্থানিয় অভিভাবক তারা। আর রাজনীতি করতে কোন বেগ পেতে হবেনা। একইভাবে একাধিক নেতা-কর্মিরা বলেন, অতীতে অনেকের সাথে রাজনীতি করেছি। মিটিং-মিছিল নিয়ে আসেন। এরপর এক গ্লাস পানি পান করেছি কিনা খবর নেন না।

দুঃসময়ে নেতাদের সাথে যোগাযোগ করলে, যেন অতীতে কোন পরিচয় ছিলনা। এমন ভাব দেখায়। রাজপথে এই চারজন সরব থাকলে লোহাগাড়ার আওয়ামী কর্মির স্থায়ী ঠিকানা হবে। অনুসন্ধানে দেখা গেছে, যারা দুর্দিনের কর্মি। তাঁরা এক প্রকার রাজনীতি করা ছেড়ে দেওয়ার উপক্রম। যারা বিএনপি জাময়াতের আমলে মামলা -হামলার শিকার হয়েছিলেন। তাদের খবর এখন রাখেন না। আজ ২১শে ফেব্রুয়ারি শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক করার সময় ত্যাগী নেতা-কর্মিদের নিয়ে র‌্যালীর আয়োজন করেন।

তাদের স্পর্শে আনন্দে উদ্বেলিত হয়েছে সকল নেতা-কর্মিরা। এই সব বিষয়ে জাহেদুল কবির সুমন বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উজ্জ্বল নক্ষত্র ও আমাদের একমাত্র অভিভাবক আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার নির্দেশে আমাদের এই একুশে র‌্যালী।সর্বস্থরের নেতা-কর্মি নিয়ে আমরা শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক করি। কর্মি থাকলে, হতে পারবে নেতা ও থাকবে দল। আমরা কর্মির প্রতি ভালবাসা ও দায়িত্ববোধ থেকে বিন্দু পরিমাণ সড়ে দাঁড়াবনা।

মহিব্বুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়ন করার জন্য রাতদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। আমরা সামান্য কর্মি হয়ে কি করতে পারছি। ২১শের দিনে আমরা শপথ করালাম।দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে রাজপথ থেকে এক মুহুর্তের জন্য সড়ে দাঁড়াবনা। আব্দুল মান্নান বলেন, আজ আমরা যে মায়ের ভাষায় কথা বলছি। এই ভাষা অর্জনে হাজার হাজার বাঙ্গালীর জীবন উৎসর্গের বিনিময়ে পেয়েছি। তাঁরা জীবন উৎসর্গ করে ভাষা ও স্বাধীনতা দিয়েছে।

আমরা আমাদের জীবনের বিনিময়ে এর মর্যদা রক্ষ করে প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করব। মিজবাহ উদ্দিন রাজীব বলেন, ২০৪১ সালে প্রধানমন্ত্রীর ভিশন বাস্তবায়নের জন্য লোহাগাড়ার আপামোর জনসাধারণকে সাথে নিয়ে এগিয়ে যাব ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার নেতৃত্বে।

NO COMMENTS

Leave a Reply