Home অপরাধ অনলাইনে আইডি বিক্রি করে ঝিনাইদহ থেকে ৪ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক...

অনলাইনে আইডি বিক্রি করে ঝিনাইদহ থেকে ৪ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক বায়েজিদ

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃঝিনাইদহে দিন দিন চিট-ফান্ডের প্রতারণার দৌরাত্ব বেড়েই চলছে। গত ২৭ তারিখে ২ তরুণী ও এক তরুণ ঝিনাইদহ সদর থানা ও ঝিনাইদহ র‌্যাব ক্যাম্পে আলাদা আলাদা লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছে।তাদের অভিযোগ বায়েজিদ ওরফে তোফায়েল নামে এক প্রতারক আউট সোর্সিং কাজের নাম করে ঝিনাইদহ ও আশ-পাশের এলাকা থেকে প্রায় ৪ কোটি টাকা লুটে নিয়ে পালিয়েছে।

মতিয়ার রহমান নামের যুবকের ঝিনাইদহ সদর থানায় দাখিল করা একটি অভিযোগের মাধ্যমে জানা গেছে, অনলাইনে কাজের খোঁজ করছিলেন মতিয়ার রহমান। সে হরিণাকুণ্ডু উপজেলার রিশখালী ইউনিয়নের গোবরা পাড়া গ্রামের মোঃ এলেম মন্ডলের ছেলে। মতিয়ার রহমানের সম্পর্কে ভাগ্নে সাদিকুর রহমানের সাথে আউট সোর্সিং বিষয়ে কথা হলে বায়েজিদ ওরফে তোফায়েল নামের এক জনের সাথে পরিচয় করে দেয় সাদিকুর। বায়েজিদ সিরাজগঞ্জের বেলকুচি থানার মধ্য মিতনী গ্রামের তোফাজ্জেল খন্দকারের ছেলে।

বায়েজিদ ইজি ক্যাশ নামের একটি অনলাইন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ইনকামের কথা বলে মতিয়ার রহমানকে। বায়েজিদ মতিয়ারকে বলে ৪৪০০ টাকা দিয়ে আইডি কিনে কাজ শুরু করলে প্রতিমাসে ৩৯০০ টাকা করে ইনকাম হবে। এছাড়াও কেউ যদি তার রেফারেন্সে আইডি খোলে তবে আইডি প্রতি ৬০০ টাকা করে রেফারেন্স বোনাস পাবে। এই ভাবে এমএলএম ভিত্তিক টিম করে কাজের পরামর্শ দেয় সিরাজগঞ্জের সোহেল ও সাগর নামের আরও ২ যুবকের সাথে।

তারা মতিয়ারকে আরও প্রলুব্ধ করে। মতিয়ার রহমান চুয়াডাঙ্গার সরোজগঞ্জ, হরিণাকুণ্ডু ও ঝিনাইদহ সদরের বিভিন্ন যায়গায় মার্কেটিং করে ৬-৭ মাসের মধ্যে ১৫০০-২০০০ জন সদস্য যোগাড় করে ফেলে। তারা প্রত্যেকেই অনলাইনে কাজের সন্ধান করছিল। আউট সোর্সিং করে অনলাইন কাজের মাধ্যমে উপার্জনের চিন্তা থেকে তারা মতিয়ার রহমানের কাছ থেকে ইজি ক্যাশ সাইটে আইডি কেনে। এই সাইটের কাজ ছিল বিজ্ঞাপণ দেখা। যা সম্পুর্ণ একটি অনৈতিক কাজ।

১৫০০ থেকে ২০০০ তরুণ-তরুণীর কাছ থেকে আইডি প্রতি ৪৪০০ টাকা হিসাবে ৮৮ লাখ টাকা নিয়েছে এবং রেফারেন্স বোনাস পরিশোধ করেনি। এই সব টাকাই এই ইজি ক্যাশ নামের ঐ ওয়েবসাইটে ভার্চুয়াল কারেন্সিতে লেনদেন হোত। রেফারেন্স বোনাস ও মাসিক বোনাস আইডিতে ভার্চুয়ালী দেখানো হলেও বায়েজিদ নতুন আইডি খোলার জন্য নগদ টাকা বিকাশের মাধ্যমে নিয়ে নিত। ২০২০ সালের ২৮ আগস্ট ইজি ক্যাশ ওয়েবসাইটটি বন্ধ করে দেয় বায়জিদ। ইজি ক্যাশ ওয়েবসাইটে ভিপিএনের মাধ্যমে আমিরিকান আইপি ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রের ভুয়া একটি ঠিকানা ব্যবহার করে রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন করা লাগতো।

সাইটটি বর্তমানে বন্ধ করে দেওয়ার কারণে এই সাইটের বিস্তারিত জানানো সম্ভব হচ্ছে না। এই সাইট বন্ধ করে দিলে আইডি কিনে কাজ করতে চাওয়া ঝিনাইদহ,মাগুরা ও চুয়াডাঙ্গার ভুক্তভোগী তরুণ-তরুণীরা তাদের ঊর্ধ্বতন টিম লিডারদের টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। চাপের এক পর্যায়ে বায়েজিদ এদের বলে নতুন একটি সাইট করা হচ্ছে সার্ভে করে উপার্জন করতে হবে। ইজি ক্যাশ সাইটের আইডিতে যার যত ব্যালান্স ছিল এই সাইটে তা সমন্বয় করা হবে।

সেভার জোন বর্তমানে এই ওয়েবসাইটে টাকা সমন্বয় করার কথা থাকলেও এই তরুণ-তরুণীদের ফোন রিসিভ করছেন না প্রতারক বায়েজিদ ওরফে তোফায়েল। সেভার জোন নামের এই ওয়েবসাইটের অফিসিয়াল ঠিকানা দেওয়া আছে কানাডার একটি যায়গায়। কিন্তু বাস্তবে এই ওয়েবসাইটি নিয়ন্ত্রণ করে বায়জিদ।

এই সাইটে কাজে সন্ধান করা যুবক-যুবতীদের প্রলুব্ধ করছে। বাড়তি ও ঘরে বসে ইনকামের জন্য এই প্রতারণার ফাঁদে পা বাঁড়াচ্ছে

NO COMMENTS

Leave a Reply