Home চট্টগ্রাম ঐতিহাসিক মুজিববর্ষে শিক্ষা জাতীয়করণ করতে হবে

ঐতিহাসিক মুজিববর্ষে শিক্ষা জাতীয়করণ করতে হবে

0 0

স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ চট্টগ্রাম বিভাগীয় শাখার শিক্ষক সমাবেশ ও সাংগঠনিক সভায় স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ) কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু বলেছেন, শিক্ষাক্ষেত্রে সরকারী ও বেসরকারী ব্যবস্থার বৈষম্য দূর করতে হবে। একটি উন্নত ও টেকসই শিক্ষাব্যবস্থা প্রতিষ্ঠিত করতে হলে শিক্ষা জাতীয়করণের মাধ্যমে সমগ্র শিক্ষা ব্যবস্থাকে সরকার মূলধারার সমন্বয় করতে হবে।

বর্তমান সরকারকে শিক্ষা ও শিক্ষকবান্ধব সরকার উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার আন্তরিকতায় শিক্ষকদের জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে ৫% ইনক্রিমেন্ট ও ২০% বৈশাখী ভাতার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বর্তমান শিক্ষা বান্ধব শেখ হাসিনা সরকার গত বার বছরে শিক্ষা খাতে যে অবদান রেখেছেন অতীতে ৩৮ বছরে সব সরকার মিলেও তা করেনি।

বর্তমান সরকার বেসরকারি শিক্ষককর্মচারীদের জাতীয় বেতন স্কেলে অন্তর্ভুক্ত, চার হাজারের অধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তকরণ, কল্যাণ ও অবসর বোর্ডের আর্থিক সংকট নিরসনে ১৬৭৭ (কল্যাণ ট্রাস্টের জন্য ৩৬০) কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ, ২৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়,৩২০ টি কলেজ,২২০ টি হাইস্কুল জাতীয়করণ,শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামোর ব্যাপক উন্নয়ন করলেও বেসরকারি শিক্ষা ক্ষেত্রে এখনো অনেক সমস্যা বিরাজমান রয়েছে। এসব সমস্যা দ্রæত সমাধানের দাবি জানিয়ে তিনি নন এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও,

বদলী কার্যকর, সরকারি অনুরূপ বাড়ি ভাড়া, মেডিকেল ভাতা ও উৎসব ভাতা প্রদান এবং ঐতিহাসিক মুজিব জন্মশতবর্ষেই শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবি জানান। তিনি বলেন একটি মহল জাতীয়করণ বিরোধী ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তাদের ইন্দন দিচ্ছে স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র বিরোধী শক্তি। যারা বিভিন্ন গুজব ছড়িয়ে শিক্ষকদের বিভ্রান্ত এবং রাষ্ট্র বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত হয়েছে তিনি তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।

স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ) চট্টগ্রাম বিভাগীয় শাখার উদ্যোগে ২৪ জানুয়ারী সকাল ১১টায় সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক পার্থসারথি চৌধুরীর সভাপতিত্বে চট্টগ্রাম নগরীর কাজেম আলী স্কুল এন্ড কলেজ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষধ (স্বাশিপ) কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের সচিব শিক্ষকবন্ধু অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু,

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা ও কাজেম আলী স্কুল এন্ড কলেজ সভাপতি আলহাজ্ব সাহাবুদ্দিন আহমেদ, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ) কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি মেহেরুন্নেছা, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক ড: হোছামুদ্দীন,অর্থ সম্পাদক অধ্যক্ষ সলিমউল্লাহ সেলিম, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ মো: মুজিবুর রহমান বাবুল।

স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ) চট্টগ্রাম বিভাগীয় শাখার সাধারণ সম্পাদক প্রধান শিক্ষক মোজাম্মেল হক এর সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা স্বতন্ত্র এবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মাওলানা জয়নাল আবেদীন জেহাদী, স্বাশিপ কেন্দ্রীয় সদস্য জামাল সাত্তার, চট্টগ্রাম বিভাগীয় শাখার সহ সভাপতি অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দীন, আমজাদ হোসেন চৌধুরী, অধ্যক্ষ ড: মুহাম্মদ সানাউল্লাহ, যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ মো: খালেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক আনিসুল মালেক, অর্থ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন, চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি উপাধ্যক্ষ রেজাউল করিম সিদ্দিকী,

বান্দরবান জেলা শাখার সভাপতি মেরি অং মারমা, নোয়াখালী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক নজরুল ইসলাম, অধ্যক্ষ সোলইমান কাশেমী, চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক হারুনুর রশীদ চৌধুরী, বান্দরবান জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হিতোষময় বড়–য়া, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার অধ্যক্ষ হামিদ হোসেন, প্রধান শিক্ষক বিষ্ণুযশা চক্রবর্ত্তী, চট্টগ্রাম উত্তর জেলার প্রধান শিক্ষক আলী আজম, কারিগরি ও বি এম কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল মোমিন,

স্বাধীনতা শারীরিক শিক্ষাবিদ পরিষদ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি আইরিন পারভীন, স্বাশিপ চট্টগ্রাম বিভাগীয় শাখার প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ তালুকদার, প্রধান শিক্ষক জয়নাল আবেদীন, অধ্যক্ষ ফজলুল হক, অধ্যাপক মোহররম আলী, অধ্যাপক নুর হোসেন, অধ্যাপক রফিক উদ্দিন, আমেনা বেগম, শিপ্রা দাশ, খদিজা বেগম, গোলাম রসুল, অভিজিৎ চক্রবর্তী প্রমুখ।

সমাবেশে অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু বলেন, জিয়া-এরশাদ-খালেদা জিয়া সরকারের আমলে নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে, জনবল কাঠামো না মেনে অবৈধ নিয়োগ বাণিজ্য করা হয়েছে। বর্তমান সরকার একটা স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিধি মোতাবেক নিয়োগের ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাষ্ট ও অবসর সুবিধা বোর্ড স্বচ্ছতার সাথে পরিচালিত হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন,

কতিপয় শিক্ষক নামধারী সুবিধাবাদী ও নৈরাজ্যবাদী গোষ্ঠী মিথ্যাচারের আশ্রয় নিয়ে শিক্ষক মহলকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করছে। মুজিববর্ষে শিক্ষা জাতীয়করণ হোক এটা যারা চায় না, তারাই এ মিথ্যাচারের আশ্রয় নিচ্ছে। তিনি বলেন, শিক্ষকদেরকে বৈষম্য ও নির্যাতনের মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে রাখলে সমৃদ্ধ সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। শিক্ষা জাতীয়করণের মাধ্যমেই এ বৈষম্য দূরীকরণ হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এলক্ষ্যে তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকল শিক্ষক সমাজকে স্বাশিপের পতাকাতলে ঐক্যবদ্ধ হওয়ায় আহবান জানান।

NO COMMENTS

Leave a Reply