Home চট্টগ্রাম শহীদ নূর হোসেন দিবসের আলোচনা সভায় বক্তরা ” গণতন্ত্র মুক্তি পাক,স্বৈরাচর নিপাত...

শহীদ নূর হোসেন দিবসের আলোচনা সভায় বক্তরা ” গণতন্ত্র মুক্তি পাক,স্বৈরাচর নিপাত যাক”

শহীদ নূর হোসেন দিবসের আলোচনা সভায় বক্তরা
” গণতন্ত্র মুক্তি পাক,স্বৈরাচর নিপাত যাক” লেখা স্লো গান আজও সবাইকে স্বৈরাশন সহ সকল অন্যায় -অবিচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের শক্তি ও অনুপ্রেরণা যোগায়
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যুবলীগ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার উদ্যোগে শহীদ নূর হোসেন দিবস উপলক্ষে আন্দরকিল্লা এম,

এই এস হল রুমে যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য আবদুল মান্নান ফেরদৌস’র সভাপতিত্বে মহানগর যুবলীগের সদস্য সাখাওয়াত হোসেন সাকুর সঞ্চানালয় বক্তব্য রাখেন মহানগর যুবলীগের সদস্য সাবেক কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব,দিদারুল আলম দিদার,জহির উদ্দিন মোঃ বাবর,মীর আবদুল রহমান মামুন, মীর আবদুর রহমান মামুন,ওয়াহিদুল আলম শিমুল,সুমন দেবনাথ,

,মহানগর যুবলীগ সদস্য নঈম উদ্দিন খান,সাবেক ছাএনেতা তাজ উদ্দিন রিজভী, মোঃ সাইফুদ্দিন, আহমেদ নুর,মাহমুদুল হক আবু,জাবেদুল আলম সুমন,এড,আরশাদ হোসেন আসাদ,আবু সুফিয়ান,সাহেদ হোসেন টিটু,আতিকুর রহমান,জালাল আহমেদ দুলাল, ফারুক চৌধুরী, আবদুল্লাহ আল মামুন,এড,মাহবুবুর রহমান, মাসুদ আকবরী,ফজলে হাসান,এস,এম,নাছির, এড,কায়সার, ইশতেহার উদ্দিন পারভেজ, জাহাঙ্গীর আলম, সুমন চৌধুরী, হেলাল উদ্দিন আহমেদ,

আলমগীর টিপু,আলমগীর রাজু,গিয়াস উদ্দিন মাহমুদ, কামরুজ্জামান, হামিদ হোসেন আলাবি,নওশাদ আহমেদ, এড,টিপুশীল জয়দেব, ইকবাল হোসেন, সাহেদ নেওয়াজ,শহিদুল আলম মিন্টু, তারেক ইকবাল চৌধুরী, মোস্তফা আমির,সাইফুল ইসলাম, আবদুল মোতালেব মুরাদ, সামশুল আলম,রিপন বিশ্বাস, আলোড়ন বিশ্বাস ফ্লাওয়ার, প্রমূহ।সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, ১৯৮৭ সালের এই দিনে তৎকালীন সাময়িক শাসক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের হাত থেকে গনতন্ত্র মুক্ত করতে গিয়ে তপ্ত বুলেটের শিকার হয়েছিলেন শহীদ নূর হোসেন।

তার গায়ে গনতন্ত্র মুক্তি পাক, স্বৈরাচার নিপাত যাক,নুর হোসেনের পুরো শরীরটাই যেন প্রতিবাদী পোস্টার। নূর হোসেনের এ প্রতিবাদ সহ্য করতে পারেনি স্বৈরাচার সরকার। নির্মম বুলেট ছুটে আসে প্রতিবাদী যুবক নূর হোসেন এর দিকে,গুলিবিদ্ধ নূর হোসেনকে যখন একটি রিকশায় করে হাসপাতালের দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন এক যুবক। গুলিবিদ্ধ নূর হোসেনকে রিকশা থেকে নামিয়ে পুলিশের গাড়িতে তুলে নেওয়া হয়,নূর হোসেন যখন মৃত্যুর যন্ত্রণায় ছটফট করছিলো তখনও একজন পুলিশ সদস্য পায়ের বুট তার বুকের উপর চেপে ধরে।

স্বৈরাচারি পুলিশ এমন নিষ্ঠুরভাবে সেদিন নূর হোসেনকে হত্যা করে, নূর হোসেনের মৃত্যুর ঘটনায় স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন আরো ও বেগবান হয় এবং স্বৈরশাসক এরশাদ সরকারের পতন ঘটে।

নেতৃবৃন্দ শহীদ নূর হোসেন এর আত্মত্যাগকে অনুসরণ করে উন্নত দেশ গড়তে নিজেদেরকে আত্মনিয়োগ করার আহবান জানান।

NO COMMENTS

Leave a Reply