Home সারাদেশ রেল কর্মকর্তা স্কেল উন্নতি পাওয়ার জন্য পানিশমেন্ট নথি গোপন করে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ে...

রেল কর্মকর্তা স্কেল উন্নতি পাওয়ার জন্য পানিশমেন্ট নথি গোপন করে সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব

0 0

কামাল পারভেজ ঃতার চেহারা ও বেশ ভুশটা এমনি যেনো ধোঁয়া তুলশী পাতা।তাকে দেখলেই চমকে উঠতে হবে বিশ্বাস করাই যাবেনা ওনার হাতে দূর্নীতির ছোয়া লেগে আছে। ধরাকে সরা করে সরকারী কোটা না মেনে ক্ষমতার অপব্যবহার করে অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয়ে নিয়োগ বাণিজ্যের মাধ্যমে ১২১ জন সুইপার নিযোগের অপরাধে শাস্তি হওয়ার আদেশ গোপন করে রেলের কতিপয় অসৎ কর্মকর্তার সহায়তায় ৪ নম্বর বেতন স্কেল থেকে ৩ নম্বর বেতন স্কেল হাতিয়ে নেওয়ার পায়তারা করার অভিযোগ উঠেছে বাংলাদেশ রেলওয়ের যুগ্ন মহাপরিচালক (অপারেশন) মোছাঃ রাশিদা সুলতানা গনির বিরুদ্ধে।

নিয়ম অনুযায়ী পানিসমেন্টে থাকা কোন কর্মকর্তার স্কেল উন্নতি চাওয়ার সুযোগ না থাকলেও তিনি কতিপয় কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে ৩ নম্বর স্কেলে উন্নিত করার জোর তদবির চালিয়ে যাচ্ছেন বলে বিশ্বস্ত সুত্রে জানা গেছে। ইতিমধ্যে তার স্কেল উন্নতির প্রস্তাবনাটি সংস্থাপন মন্ত্রনালয়ে প্রেরন করা হয়েছে তবে শাস্তির আদেশপত্রটি সুকৌশলে ফাইল থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে বলেও সুত্র জানিয়েছে । একজন দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে শাস্তির বদলে প্রমোশন দেওয়ার প্রস্তাব করায় রেল ভবনেও চলছে নানা সমালোচনা ও সৎ কর্মকর্তাদের মাঝে বিরাজ করছে চাপা ক্ষোভ।

জানা যায় ২০১৭ সালে রেলওয়ে পুর্বাঞ্চলের অতিরিক্ত প্রধান বাণিজ্যিক কর্মকর্তার পদে থাকা অবস্থায় রেলওয়েতে ১২১ জন সুইপার পদে সরাসরি নিয়োগের নির্বাচনি কমিটির আহবায়ক থাকা অবস্থায় সরকারি কর্তৃক নির্ধারিত বিভিন্ন কোটা না মেনে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার অভিযোগ উঠে।

বিষয়টি তৎকালিন উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসলে কারন দর্শানোর নোটিশ ও পরে বিভাগীয় মামলা দায়ের করা হয় উক্ত মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তার তদন্তেও অনিয় দুর্নীতির প্রমান স্পষ্ট হয়ে উঠে। সরকারী কর্মচারী বিধিমালা ( শৃঙ্খলা ও আপীল) ১৯৮৫ এর ৩ (বি) এর অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমানিত হয় এবং এই অপরাধে অভিযুক্ত বাংলাদেশ রেলওয়ের যুগ্ন মহাপরিচালক (অপারেশন) ও প্রাক্তন অতিরিক্ত চিফ অপারেটিং সুপারিটেন্ডেন্ট (পশ্চিম) মোছাঃ রাশিদা সুলতানা গনিকে সরকারী কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল) বিধিমালা ২০১৮ এর ৩ (খ) বিধি মোতাবেক দোষী সাব্যস্ত করে একই বিধিমালার বিধি ৪(২)(ক) অনুযায়ী তিরস্কার দন্ডে দন্ডিত করা হয়।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে ওই আদেশে স্বাক্ষর করেন তৎকালীন রেল সচিব মোঃ মোফাজ্জেল হোসেন।
নিয়োগ বাণিজ্যে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগে পানিসমেন্ট হওয়ার কথা স্বীকার করে বাংলাদেশ রেলওয়ের যুগ্ন মহাপরিচালক (অপারেশন) মোছাঃ রাশিদা সুলতানা গনি বলেন আমার শাস্তির ব্যপারে সবাই জানে আর এই সাজার নির্দিষ্ট একটা মেয়াদ থাকে কর্তৃপক্ষ সবকিছু বিচেনায় যদি আমার স্কেল ৩ এ উন্নিত করে করবে না করলে করবেনা।

তবে ফাইলে পানিসমেন্টের কপি আছে কিনা তার জবাব না দিয়েই ফোনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন। রাশিদা সুলতানা গনির দূর্নীতি বিষয়ে দুদক ফাইল তলব করে দুদুকও প্রমাণ পায় তার দূর্ণীতি ক্ষতিয়ান।জানা যায়, মহাখালী ও মগবাজারে ২টি ফ্ল্যাট রয়েছে ৩৬ শত স্কোয়ার ফিটের যার মূল্য দুই কোটি টাকার উর্ধ্বে। সাবেক রেল মন্ত্রীর ভাগিনী বলে পরিচয় দিয়ে তার যত সব অপকর্মের ক্ষমতা অপব্যবহার করে আসছে।

এব্যপারে বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মোঃ সামছুজ্জামন বলেন এই ব্যপারটা আমি বলতে পারবনা আপনি মিনিষ্ট্রিতে সচিব মহোদয়ের সাথে কথা বলতে পারেন।

পানিসমেন্টে থাকা একজন কর্মকর্তাকে ৪ নম্বর স্কেল থেকে ৩ নম্বর স্কেলে উন্নিত করার প্রস্তবনা সম্পর্কে জানতে বাংলাদেশ রেলওয়ের সচিব মোঃ সেলিম রেজাকে মোবাইলে ফোন করে এবং ক্ষুদে বার্তা দিয়েও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

NO COMMENTS

Leave a Reply