Home চট্টগ্রাম আমি চট্টগ্রাম নগরীর সবুজায়ন ও সৌন্দর্যবর্ধন করতে চাই-প্রশাসক সুজন

আমি চট্টগ্রাম নগরীর সবুজায়ন ও সৌন্দর্যবর্ধন করতে চাই-প্রশাসক সুজন

0 0

চট্টগ্রাম, ২০ আশ্বিন (৫ অক্টোবর) ২০২০ :চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, চট্টগ্রাম এক প্রাকৃতিক নগরী। পাহাড়-নদী-সাগর এই নগরীর সৌন্দর্যের অলংকার। আমি নগরীর সবুজায়ন ও সৌন্দর্যবর্ধন করতে চাই। কিন্তু এরই আড়ালের নগরীর সৌন্দর্যের অলঙ্কার লুটপাট হতে দিতে পারি না।

প্রশাসক আজ দুপুরে টাইগারপাসস্থ নগরভবনের চসিক সম্মেলন কক্ষে সৌন্দর্যবর্ধন কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিস্ট ঠিকাদারদের একটি প্রতিনিধি দলের সাথে সাক্ষাতকালে এই কথা বলেন।

এসময় চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল সোহেল আহমেদ পিএসসি, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মুফিদুল আলম, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ এ. কে. এম রেজাউল করিম, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সদস্য প্রকৌশলী সৌরভ বড়–য়া, মো. আলী তালুকদার, মো. সাজ্জাদ হোসেন, রূপন চৌধুরী, মো. ফয়সাল ইসলাম, আবদুল রকিব, মো. আনোয়ার হাসান, এ কে এম আশরেকুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

তিনি বলেন, সৌন্দর্যবর্ধন কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে পাবলিক টয়লেট নির্মাণ, বসারস্থানসহ যাত্রী ছাউনি স্থাপন, ফুটপাতে টাইলসসহ বাগান করা, রাস্তার মিড আইলেন্ড সৌন্দর্য্যবর্ধন করা এবং বিভিন্ন স্থানে নানান প্রজাতির ফুলের গাছসহ অন্যান্য গাছ লাগানো ইত্যাদি সৌন্দর্যবর্ধক কাজ উল্লেখ করেন।

প্রশাসক জানিয়েছেন, চুক্তি বর্হিভুত দোকান ও বিলবোর্ড স্থাপন করতে দেখা যাচ্ছে, যা কারো কাম্য হতে পারে না। সৌন্দর্য বর্ধনের আড়ালে সৌন্দর্য্যরে অলংকার চুরি হলে চুক্তি বাতিল হবে। তিনি বলেন, জনগণ এবং পরিবেশের ক্ষতি হয় এমন কোন কার্যক্রম পরিচালনা করা যাবে না। খোরশেদ আলম বলেন, সবার চোখটাকে একটু সুন্দর করেন, তাহলে এ শহরের চিত্র পালটে যাবে। এ শহরে বসবাস করি বলে সকলের সামাজিক দায়বদ্ধতা রয়েছে। এই দায়বদ্ধতা থেকেই এ শহরের উন্নয়নে কাজ করতে হবে বলে মন্তব্য করেন প্রশাসক।

তিনি আরো জানিয়েছেন, সৌন্দর্যবর্ধনের নামে অসুন্দর্যের চর্চা হতে পারে না। এ শহরকে একটি নান্দনিক শহরে রুপান্তরিত করাই সকলের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত। সঠিক সময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ করার জন্য প্রশাসক তাদের আহ্বান জানান।

NO COMMENTS

Leave a Reply