Home শিক্ষা রুপালী ব্যাংক শিওরক্যাশের মাধ্যমে একাদশ শ্রেণীর অনলাইনে ভর্তি, মাত্র দুই দিনেই একাদশের...

রুপালী ব্যাংক শিওরক্যাশের মাধ্যমে একাদশ শ্রেণীর অনলাইনে ভর্তি, মাত্র দুই দিনেই একাদশের ভর্তি কার্যক্রম শেষের দিকে চট্টগ্রামের শীর্ষ পাঁচটি কলেজের।

0 0

তিন দফায় আবেদন ও ফলাফল প্রকাশের পর রোববার থেকে একাদশ শ্রেণীর ভর্তি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ১৭ সেপ্টেম্বর এর মধ্যে মনোনিত কলেজে ফি জমাদানের মাধ্যমে ভর্তি কার্যক্রম সমপন্ন করতে হবে শিক্ষার্থীদের। করোনা পরিস্থিতির কারণে শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনায় এবার একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট ও প্রশংসাপত্র জমা নেওয়া ছাড়াই ভর্তির সুযোগ দেওয়া হয়েছে।

তাই এবার চটগ্রাম মহানগরীর শীর্ষ পাঁচ সরকারি কলেজ ভর্তির জন্য মনোনিত শিক্ষার্থীদের রুপালী ব্যাংক শিওরক্যাশ এর মাধ্যমে ফি জমাদানের সুযোগ করে দেয়। এই কলেজগুলো হচ্ছে – চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ, সরকারি হাজী মহসিন কলেজ, সরকারি সিটি কলেজ, সরকারি কমার্স কলেজ, চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজ।

এই অনলাইন ভর্তি কার্যক্রমে শিক্ষার্থীরা কলেজের ভর্তি ফি নিজের শিওরক্যাশ একাউন্ট বা যে কোন এজেন্ট পয়েন্ট থেকে পেমেন্ট করে তাদের ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করছে..। দিন রাত ২৪ ঘন্টার যে কোন সময় শিক্ষার্থীরা তার সুবিধামত সময়ে ভর্তি ফি জমা দেওয়ার সুযোগ থাকাই মাত্র ২ দিনেই শীর্ষ পাঁচ সরকারি কলেজের ভর্তি কার্যক্রম প্রায় শেষের দিকে।

রুপালী ব্যাংক শিওরক্যাশের মাধ্যমে অনলাইনে ভর্তি ফি জমা দিয়ে ভর্তি কার্যক্রম খুব সহজে শেষ করতে পেরে শিক্ষার্থীরাও তাদের সন্তুষ্টির কথা জানিয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি কলেজে ভর্তির জন্য মনোনিত শিক্ষার্থী আবু সাঈদ মো: সোহেল শিওরক্যাশ এর মাধ্যমে ভর্তি ফি জমা দেন। তিনি বলেন, ” অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রমের সুযোগ থাকার কারণে আমি আমার সুবিধামত সময়ে শিওরক্যাশের মাধ্যমে ভর্তি ফি জমা দিয়ে অনলাইনে ফরম ফিলাপ করে খুব সহজেই আমার ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পেরেছি। অথচ আমার এক বন্ধু অন্য একটি কলেজে ভর্তি হতে গিয়ে দিনের বেলা অনেক্ষন লাইনে দাড়িয়ে ব্যাংকে ভর্তি ফি জমা দিয়ে আবার সে ভর্তি রশিদ কলেজে জমা দিয়ে এসে তার ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পেরেছে। সহজ ও ডিজিটাল ভর্তি সিস্টেম চালু রাখার জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং শিওরক্যাশ কর্তৃপক্ষকে অসংখ্যা ধন্যবাদ। ”

বাংলাদেশের শেষ প্রান্ত টেকনাফ থেকে চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজে ভর্তির জন্য মনোনিত হন আনিসা সিদ্দিকা নুর অমি। এই বছর চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজে অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম চালু হওয়ার ফলে তিনি টেকনাফ থেকেই তার ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পেরেছেন। তার মতে, ” আমি যে কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছি সেই কলেজ থেকে এত দূর টেকনাফে বসেই আমি আমার ভর্তি নিশ্চিত করতে পারব এটা কখনো কল্পনাও করিনি। যদি শিওরক্যাশে ভর্তি ফি জমার বদলে ব্যাংকে ভর্তি ফি জমা দেওয়ার জন্যও বলা হত, চট্টগ্রামে গিয়ে আমার ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করতে ২ দিন লেগে যেত। এখন অনলাইনে হওয়ার কারণে আমি আমার বাড়ি টেকনাফ থেকেই শিওরক্যাশ এর মাধ্যমে ভর্তি ফি জমা দিয়ে আমার ভর্তি নিশ্চিত করতে পেরেছি। এতে আমার যাতায়ত সহ অনেক অর্থ সাশ্রয় হয়েছে। এই অনলাইনে ভর্তি কার্যক্রম চালুর জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ ও শিওরক্যাশ এর নিকট অনেক কৃতজ্ঞ।”

এব্যাপারে শিওরক্যাশের এরিয়া ম্যানেজার রতন সেনের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ” করোনার এই সময়ে চট্টগ্রামের শীর্ষ পাঁচটি কলেজের শিক্ষার্থীদের অনলাইন ভর্তি কার্যক্রমের সাথে থাকতে পেরে আমরা গর্বিত। এই শীর্ষ পাঁচটি কলেজে ভর্তির জন্য মনোনিত মোট ৭১৬০ জন শিক্ষার্থী যাতে খুব সহজেই তাদের ভর্তি ফী জমা দিতে পারে সেজন্য শুধু চট্টগ্রাম শহরেই শিওরক্যাশের ৩২৮০ জন এজেন্ট প্রস্তুত রাখা হয়েছিল। তাদের সহযোগিতায় মাত্র ২ দিনেই বেশীরভাগ শিক্ষার্থী ই ইতিমধ্যে তাদের ভর্তি ফি জমা দিয়ে দিয়েছে। এছাড়া যেসব মনোনিত শিক্ষার্থী শহরের বাইরে ছিল, তারা নিজ নিজ এলাকা থেকে ভর্তি ফি জমা দিতে পেরেছেন। চট্টগ্রামের শীর্ষ পাঁচ কলেজ তাদের অনলাইন ভর্তি কার্যক্রমে আমাদের সুযোগ দেওয়াই কলেজ কর্তৃপক্ষকে শিওরক্যাশ এর পক্ষ থেকে অসংখ্যা ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।”

বিশ্লেষকদের মতে এই করোনাকালে যদি সরকারি বেসরকারি সব কলেজে ভর্তির জন্য এই অনলাইন সিস্টেম চালু থাকত তাহলে যারা গ্রাম থেকে শহরের কলেজে বা এক এলাকার শিক্ষার্থী অন্য এলাকার কলেজে ভর্তির জন্য মনোনিত হয়েছে তারা নিজ নিজ এলাকা থেকেই ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারত। এতে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বাস্থঝুঁকি অনেকাংশে কমে আসত।

NO COMMENTS

Leave a Reply