Home আইন ও আদালত টেকনাফ বাহারছড়া শামলাপুর উত্তর ঘাটে হামলায় দু’মাছ ব্যবসায়ী আহত

টেকনাফ বাহারছড়া শামলাপুর উত্তর ঘাটে হামলায় দু’মাছ ব্যবসায়ী আহত

কক্সবাজার প্রতিনিধি ।টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর দক্ষিণের ঘাটে প্রতিপক্ষের হামলায় মৎস্য ব্যবসায়ী রহিম উল্লাহ ও জয়নাল আবেদিন নামের দুইজন আহত হয়। শনিবার দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।
আহত রহিম উল্লাহ বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর ১নং ওয়ার্ডের মৃত আবদুল নবীর ছেলে ও আহত জয়নাল একই এলাকার মগবুল আহম্মদের ছেলে। হামলায় অংশ নেন, প্রতিপক্ষ নুর হোসেন।
স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুর ২টার দিকে বাহারছড়া শামলাপুর দক্ষিণ ঘাটে নৌকা থেকে মাছ খালাসের ঘটনাকে কেন্দ্র করে নুর হোসেন ও রহিম উল্লাহর মধ্যে কথাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতি রুপ নেয়।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হাতাহাতি বিষয়টি জানতে পেরে রহিম উল্লাহর মামাত ভাই নুর মোহাম্মদ জিহাদী বিষয়টি উভয় পক্ষকে নিয়ে ঘটনাস্থলে মিমাংসা করে দেন।
এদিকে, মাছ ব্যবসায়ী রহিম উল্লাহ ও জয়নাল আবেদিন ঘাট থেকে ফেরার পথিমধ্যে নুর হোসেনের ছেলেরা ও আত্মীয় স্বজন সংঘবদ্ধ হয়ে তাদের গতিরোধ করে দ্বিতীয় দফায় হামলা চালায়।
এতে রহিম উল্লাহ ও জয়নাল আবেদিন গুরুতর আহত হন। এসময় নগদ টাকা ও স্বর্ণের চেইনসহ মালসমাল লুট করে।
আহতরা জানান, হামলায় অংশ নেন, একই এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে নূর হোসেন, নূর হোসেনের ছেলে জয়নাল আবেদীন, মো. কালু, ছৈয়দ হোসনের ছেলে আলমগীর, কবির আহম্মদ, জাহাংগীর, মৃত নজু মিয়ার ছেলে নুরুল আলম।
আহতদের উদ্ধার করে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে আনা হয়। জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে গিয়ে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে সন্ধ্যা ৭টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. হাতে নিগৃত হন আহতরা।
হাসপাতালে ডাঃ এর মারধরে আহতও হন তারা। পরে আহতদেরকে কর্তব্যরত ইন্টানি চিকিৎসক মো. আফির চিকিৎসা না করেই মারধর করে জরুরী বিভাগ থেকে বের করে দেন।
পরে আহতরা ইউনিয়ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা ইউনিয়ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) শাহীন মো. আবদুর রহমানের বক্তব্য নিতে একাধিক বার ফোন করা হলেও ফোন রিসিভ না করায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

NO COMMENTS

Leave a Reply