Home রংপুর জলঢাকায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল দৃষ্টিনন্দনের উদ্যোগ নিলেন উপজেলা প্রশাসন

জলঢাকায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল দৃষ্টিনন্দনের উদ্যোগ নিলেন উপজেলা প্রশাসন

0 0

আবেদ আলী জলঢাকা নীলফামারী প্রতিনিধিঃ
সংবাদ প্রকাশের পর দৃষ্টিনন্দন হচ্ছে ৭১এর কান্ডারি
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল।
নীলফমারীর জলঢাকার প্রাণকেন্দ্র বঙ্গবন্ধু চত্বরে
২০১৫-১৬ অর্থবছরের বরাদ্দকৃত জেলা পরিষদের
প্রাক্কলিত ৩০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় এই ম্যুরাল।
কিন্তু কর্তৃপক্ষের অবহেলায় সেখান আস্তানা করে নেয় বেওয়ারিশ কুকুর। শুধু তাই নয়,
সৌন্দর্য বর্ধনের জায়গাটুকু সুকৌশলে দখলে নিয়ে দোকান ঘরের পসরা বসিয়ে আর্থিক ফায়দা নিচ্ছে এক শ্রেণির দালাল চক্ররা। এছাড়াও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শহীদদের সম্মানে জুতো খুলে মিনারে উঠার নির্দেশনা মানুষ মানলেও সেখানে বেধে রাখা হয় গরু ছাগল, এসব যেন দেখার কেউ থাকেনা।
“জলঢাকায় অরক্ষিত বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল”
শিরোনামে একটি সংবাদ গত বৃহস্পতিবার
ভিন্ন মাত্রার দৈনিক খোলা কাগজ ও দৈনিক পরিবেশ সহ বিভিন্ন অনলাইনে ম্যুরালে অবস্থানরত বেওয়ারিশ কুকুরের ছবিসহ প্রকাশিত হলে দৃষ্টিনন্দনে নরেচরে উঠেছে উপজেলা প্রশাসন। গত শুক্রবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হাসান সরেজমিনে বঙ্গবন্ধু চত্ত্বরে গিয়ে ম্যুরাল পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে তিনি ম্যুরাল ঘেষা অস্থায়ী ব্যবসায়ীদের অন্যত্র তাদের ব্যবসা সরিয়ে নিতে নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি পরিদর্শন স্থল হতে জলঢাকা পৌর মেয়র ফাহমিদ ফয়সাল চৌধুরী কমেটকে মোবাইল ফোনে ম্যুরাল সার্বক্ষণিক পরিচ্ছন্ন ও রক্ষনাবেক্ষণের জন্য একজন পরিচ্ছন্ন কর্মী নিয়োজিত করার কথা বললে হলে তাৎক্ষনিকভাবে পৌর মেয়র সেখানে একজন পরিচ্ছন্ন কর্মীকে ম্যুরাল পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্ব দেন। এছাড়াও ম্যুরালের পাদদেশে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য আগতদের ওঠা-নামা সহজিকরণে সিঁড়ি নির্মাণ ও নিরাপত্তা বেষ্টনী দিয়ে ফুল বাগান করারও উদ্যোগ নেন উপজেলা প্রশাসন।

এসময় ম্যুরালের পাশে ভীড় জমানো মানুষের মাঝে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, উপজেলা পরিষদ, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ এবং স্বাধীনতা স্বপক্ষের মানুষ সহ সকলের সহযোগীতায় ম্যুরালের জায়গাটি দৃষ্টিনন্দন করতে চাই সেজন্য আমরা জেলা পরিষদ হতে সহযোগীতা নিয়ে বেষ্টনী ও ফুল বাগান করবো। পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক মেয়র ও উপজেলা বণিক সমিতি সভাপতি ইলিয়াস হোসেন বাবলু, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের আহবায়ক আসাদুজ্জামান স্টালিন প্রমুখ।

অবহেলা আর অযত্নে পরে থাকা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে পরিবেশ রক্ষা ও রক্ষনাবেক্ষণ এবং দৃষ্টিনন্দনের বাস্তবায়ন এখন অপেক্ষার পালা।

NO COMMENTS

Leave a Reply