Home খেলাধুলা সুপার ওভার আছে জানতেন না টেলর!

সুপার ওভার আছে জানতেন না টেলর!

0 60

গত বছর আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচের মীমাংসা হয়নি ১০০ ওভারে। মহানাটকীয় ফাইনাল গড়ায় সুপার ওভারে। সেখানেও ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের অবিশ্বাস্য সমতা। শেষ পর্যন্ত বেশি বাউন্ডারি হাঁকানোর উদ্ভট নিয়মে চ্যাম্পিয়ন হয় স্বাগতিক ইংল্যান্ড। রানার্সআপ হয় সফরকারী নিউজিল্যান্ড।

এনিয়ে বিতর্কের ঝড় বয়ে গেছে। সুপার ওভার, ওভার থ্রো নিয়ম পাল্টানোর দাবিও ওঠে। আইসিসি ও এমসিসি তা আমলে নিয়ে কিছু সংশোধনী এনেছে। তবে সবকিছু পাল্টালেও লর্ডসের ফাইনালের ফলটা আর পাল্টানো সম্ভব নয়। থ্রিলার ম্যাচের এক বছর কেটে গেছে। কিন্তু সেই ফলটা এখনো মেনে নিতে পারছেন না কিউই ব্যাটসম্যান রস টেলর।

তার মতে ম্যাচ টাই হলে দুই দলকে ট্রফি ভাগাভাগি করে দেওয়া উচিত। বিশ্বকাপ তো বটেই, ওয়ানডে ক্রিকেটের সুপার ওভারেরই কোনো দরকার দেখছেন না অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার। শুক্রবার একটি ক্রিকেট ওয়েবসাইটকে এক সাক্ষাৎকারে টেলর বলেছেন, ‘ওয়ানডে ম্যাচ অনেক সময় নিয়ে চলে। ম্যাচে টাই হলে অন্তত আমার কোনো সমস্যা নেই।’

সাক্ষাৎকারে টেলরের একটা কথায় অনেকের বিস্ময়কেই আকাশ স্পর্শ করিয়েছে। লর্ডসের ফাইনালে যে সুপার ওভার আছে সেটা তিনি জানতেনই না। তিনি বলেছেন, ‘ফাইনালে আম্পায়ারদের আমি বলেছিলাম ভালো একটা ম্যাচ হয়েছে। তখন জানতামই না যে, ম্যাচে সুপার ওভার আছে। টাই মানে টাই। দুই দল ১০০ ওভার খেলার পরও যদি রান সমান থাকে তাহলে, টাই হওয়াটা খুব একটা খারাপ নয়।’

অবশ্য একদিনের ক্রিকেটে সুপার ওভার উঠিয়ে দেওয়ার পক্ষে মত দিলেও টি-টোয়েন্টি সংস্করণে ভিন্নমত টেলরের। তিনি বলেছেন, ‘‘টি-টোয়েন্টি সংস্করণে খেলা চালিয়ে যাওয়া উচিত। অনেকটা ফুটবল কিংবা অন্য খেলার মতো ম্যাচের নিষ্পত্তি করা উচিত। কিন্তু ওয়ানডে ক্রিকেটে সুপার ওভারের প্রয়োজনীয়তা দেখছি না। আমার মতে যৌথ চ্যাম্পিয়ন করা যায়।’

নিউজিল্যান্ডের সুপার ওভার ভাগ্য ভালো নয়। এ পর্যন্ত সীমিত ওভারের আটটি ম্যাচের সাতটিতেই হেরেছে কিউইরা। ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে সুপার ওভার বাদ দিলে নিউজিল্যান্ডকে অন্তত দুর্ভাগ্যের মুখে হয়তো পড়তে হবে না! এখন দেখার বিষয়, টেলরের দাবি আইসিসি আমলে নেয় কিনা।

NO COMMENTS

Leave a Reply