Home আন্তর্জাতিক জিনপিংয়ের সাহায্য চেয়েছেন ট্রাম্প

জিনপিংয়ের সাহায্য চেয়েছেন ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দ্বিতীয় দফায় বিজয়ী হতে ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সাহায্য পেতে চেষ্টা করেছিলেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ মিত্র এবং দেশটির সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন তার লেখা এক বইয়ে এ দাবি করেছেন।

নিউইয়র্ক টাইমস বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে শিগগিরই প্রকাশ হতে যাচ্ছে নতুন এ বইটি। এতে বোল্টন দাবি করেছেন, ট্রাম্প চেয়েছিলেন যে, চীন মার্কিন কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য আমদানি করুক।

আগামী ২৩ জুন প্রকাশ হবার কথা রয়েছে ‘দ্য রুম হোয়্যার ইট হ্যাপেনড’ শীর্ষক বইটির। যদিও জানুয়ারিতে হোয়াইট হাউস দাবি করেছিল, বইটিতে এমন কিছু গোপন বিষয় আছে, যা অবশ্যই বাদ দিতে হবে। তবে জন বোল্টন সে দাবি প্রত্যাখ্যান করেছিলেন।

বিবিসি বলছে, বোল্টনের বইটিতে স্থান পেয়েছে ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারের ক্ষেত্রে উঠা প্রশ্নগুলোও।

প্রসঙ্গত, গত বছরের জুনে জাপানের ওসাকায় জি-২০ সম্মেলনের ফাঁকে ট্রাম্প ও জিনপিংয়ের মধ্যকার বৈঠক থেকেই মূলত এ ধরনের অভিযোগ উঠেছে।

নিউইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত বইটির সারসংক্ষেপে বোল্টন দাবি করেছেন, বৈঠকে চীনের প্রেসিডেন্ট অভিযোগ করেছিলেন, কিছু মার্কিন সমালোচক চান যাতে চীনের সঙ্গে নতুন করে স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয়। ট্রাম্প ভেবেছিলেন, চীনা প্রেসিডেন্ট হয় তো ডেমোক্রেটিকদের কথা বলছেন।

‘এর পরই ট্রাম্প বিস্ময়করভাবে ২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিকে আলোচনা ঘুরিয়ে দেন। চীনের অর্থনৈতিক সামর্থ্যের কথা উল্লেখ করে ট্রাম্প নির্বাচনে জেতার জন্য জিনপিংয়ের সাহায্য চান,’ বলছে বোল্টন।

খবরে বলা হয়েছে, নতুন এই বই নিয়ে ইতোমধ্যেই নানা বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

মার্কিন ট্রেড রিপ্রেজেন্টেটিভ রবার্ট লাইথিজার বোল্টনের বক্তব্যকে নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, চীনা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে ওই বৈঠকে দ্বিতীয় দফার নির্বাচনে জেতার ব্যাপারে কোন আলোচনা হয়নি।

২০১৮ সালের এপ্রিলে হোয়াইট হাউসে যোগ দেন জন বোল্টন। পরে ওই বছরের সেপ্টেম্বরে তিনি জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদ ছেড়ে দেবার সিদ্ধান্ত নেন। যদিও ট্রাম্প বলেছিলেন, মতানৈক্যের কারণে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

NO COMMENTS

Leave a Reply