শোষণ বৈষম্যহীন মানবিক সমাজ গড়তে মাস্টার দা সূর্য সেনের সংগ্রামকে আত্মস্থ করতে হবে মাস্টার দা সূর্য সেনের ৮৪ তম ফাঁসি দিবসে ছাত্র ইউনিয়ন

আজ ১২ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং বৃটিশ বিরোধী আন্দোলনের নেতা মাস্টার দা সূর্য সেনের ৮৪ তম ফাঁসি দিবসে জে এম সেন হল প্রাঙ্গণে মাস্টার দা সূর্য সেনের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম জেলা সংসদ। এরপর মাস্টার দা সূর্য সেনের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

শ্রদ্ধাজ্ঞাপন শেষে দলীয় জেলা কার্যালয়ে মাস্টার দা’র স্মরণে এক স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ছাত্র ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক আতিক রিয়াদ এবং অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক ছাত্রনেতা ও মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আবছার, ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান নোবেল ও কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য অটল ভৌমিক । ছাত্র ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম জেলা সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যানি সেনের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন ছাত্র ইউনিয়নচট্টগ্রাম জেলার সহঃ সাধারণ সম্পাদক ইমরান চৌধুরী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রনি কান্তি দেব, খালিদ মিরাজ প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, বৃটিশ সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে এদেশের জাতীয়তাবাদী বিপ্লবীদের সশস্ত্র সংগ্রাম বৃটিশদের ভিত কাপিয়ে তুলেছিল। দেশমাতৃকাকে বৃটিশ উপনিবেশিক শাসকের হাত থেকে বাঁচানোর দৃঢ় সংকল্প নিয়ে সশস্ত্র যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়ে এই বিপ্লবীরা হাসি মুখেই প্রাণ দিয়েছিলেন। ছোট বেলা থেকেই মেধাবী সূর্য সেন কলেজে পড়াকালীন সময়ে সরাসরি বৃটিশ বিরোধী বিপ্লবী রাজনৈতিক দীক্ষায় দীক্ষিত হন। শিক্ষাজীবন শেষ করে শিক্ষকতা পেশা’র কারনে সকলের কাছে মাস্টার দা নামেই পরিচিতি পান। পরবর্তীতে বৃটিশ বিরোধী বৈপ্লবিক কর্মকান্ডের অংশ হিসাবে তার নেতৃত্বে একটি সশস্ত্র বিপ্লবী দল সশস্ত্র যুদ্ধ করে চট্টগ্রামের অস্ত্রগার নিয়ন্ত্রণে এনে বৃটিশদের দেড়শ বছরের গৌরব ধুলোয় মিশিয়ে চট্টগ্রামকে স্বাধীন ঘোষণা করেন। ক্ষণস্থায়ী হলেও এই বিপ্লবী সরকার সারা ভারতে স্বাধীনতাকামী মানুষদের মনে বিপ্লবী চেতনাকে উজ্জিবিত করেছিল। ইংরেজ সরকার মাস্টার দা’কে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণা করেন। পরে এক নিকটাত্মীয়’র বিশ্বাসঘাতকতায় মাস্টার দা সহ তার দুই বিশ্বস্ত সহযোগী তারেকেশ্বর দস্তিদার ও কল্পনা দত্ত ধরা পড়েন। মাস্টার দা সূর্য সেন ও তারেকেশ্বরদস্তিদারের ফাঁসি হয় এবং কল্পনা দত্তকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়। ফাঁসির পরে মাস্টার দা ও তারেকেশ্বরের মৃত দেহ সাগরে ভাসিয়ে দেয়া হয়।

সভায় বক্তারা আরো বলেন, বৃটিশ সাম্রাজ্যবাদ পরাজিত হয়েছে, পাকিস্তানি শাসকদের এদেশ থেকে বিতাড়িত করেছে এদেশের মুক্তিকামী জনগন। কিন্তু আমাদের কাংখিত সেই গণতান্ত্রিক ও শোষণ বৈষম্যহীন রাষ্ট্র আজো আমরা পাইনি। আজো আমাদের লড়াই করতে হচ্ছে বাক স্বাধীনতার জন্য, অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্রের জন্য, গণতান্ত্রিক ও শোষণ বৈষম্যহীন সমাজের জন্য। মানবিক পৃথিবী বিনির্মানের আমাদের এই লড়াইয়ে মাস্টার দা সূর্য সেন আমাদের অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবেন।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *