রাউজানের হলদিয়ায় তাজেদারে মদিনা সুন্নী কনফারেন্সে আল্লামা তাহের শাহ (মা.জি.আ)

সিটিজি ট্রিবিউন, এম বেলাল উদ্দিন, রাউজানঃ রাসুলে পাক (দ.) এর ৪১ তম বংশধর, রাহনুমায়ে শরীয়ত তরিক্বত আল্ল­ামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ তাহের শাহ ছাহেব কেবলা (মা.জি.আ.) বলেছেন, আমাদের দেহ এবং প্রাণ খুব অল্প সময়ের জন্য একত্রিত আছে। আর এই সংক্ষিপ্ত সময়টিই এবাদত বন্দেগীর একমাত্র সুযোগ। যা কবরে আর আখেরাতে আর ফিরে পাওয়া যাবেনা। এ জন্য নিজেদের কে মন্দ লোক থেকে রক্ষা করতে হবে। তাওবার মাধ্যমে জীবনের সকল পাপ মোচন হয়ে যায় বটে, কিন্তু জালেম ও অপরের হক্ব ধ্বংসকারী, আত্মসাতকারী কোন পার পাবেনা। তাই তিনি নব দীক্ষিতদেরকে নির্দেশ দেন যেন, সংশ্লিষ্ট ক্ষতিগ্রস্তদের কাছ থেকে ক্ষমা চেয়ে কিংবা হক্ব পরিশোধ করে এ ধরনের পাপিদের পাপ মোচন করে নতুনভাবে তরিক্বত জীবন শুরু করে দুনিয়া ও আখিরাতকে উজ্ঝল করে ইসলামের কল্যাণে কাজ করেন। এবং দেশ সমাজ, মুসলিম মিল্লাতকে অশান্তি ও হানাহানি থেকে রক্ষা করার কাজে আত্মনিয়োগ হন।

গতকাল শনিবার বিকেলে চট্টগ্রামের রাউজানের হলদিয়া ইউনিয়ন গাউসিয়া কমিটির উদ্যোগে ফকিরটিলা ইউনিট ও উত্তররর্সতা গাউসিয়া কমিটির সহযোগীতায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) উপলক্ষে স্থানীয় ফকিরটিলাস্থ বাজারের পার্শ্বস্থ মাঠে আয়োজিত তাজেদারে মদিনা সুন্নি কনফারেন্সে প্রধান অতিথির বক্তব্য উপরোক্ত নসিহত করেন। সংগঠনের হলদিয়া ইউনিয়ন শাখার সভাপতি এসএম শহিদুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কনফারেন্সে বিশেষ অতিথি ছিলেন আওলাদে রাসুল (দ.), আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ কাসেম শাহ (মা.জি.আ.) ও আল্লামা সৈয়্যদ হামেদ শাহ (মা.জি.আ.), রাউজান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ এহসানুল হায়দার চেšধুরী বাবুল, আনজুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়ার সহ সভাপতি আলহাজ্ব মুহ্ম্মাদ মহসিন, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, ফাইনেন্স সেক্রেটারী আলহাজ্ব সিরাজুল হক, এডিশনাল সেক্রেটারী শামুসদ্দিন, ঢাকা আনজুমানের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল হক, তৈয়বীয়া তাহেরীয়া মিনা আকবর মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ ফরিদুল আলম, গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ পেয়ার মুহাম্মদ কমিশনার, সংযুক্ত আরব আমিরাত গাউছিয়া কমিটির সেক্রেটারী আলহাজ্ব জানে আলম, আলহাজ হাবিবুর রহমান । উপজেলা (দক্ষিণ) গাউছিয়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ইয়াসিন হোসাইন হায়দরী ও হলদিয়া শাখার সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলামের সঞ্চালনায় এতে প্রধান আলোচক ছিলেন, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নীয়া আলিয়ার শায়খুল হাদিস মুফতি ওবাইদুল হক নঈমী। তিনি বলেন, নবী করিম (দ.) কে আল্লাহ সবকিছুর জন্য রহমত হিসেবে পাঠিয়েছেন। আর সেইসব রহমত নবী করিম (দ.) দান করেছেন আওলিয়ামের প্রতি। আল্লাহর এই রহমত রাসুলে বংশধরদের মাধ্যেমে আমাদের উপর পাঠাচ্ছেন। আওলাদে রাসুল (দ.) কে যারা নেক নজর দেখবে তাদের জন্য আখেরীতে মুক্তি সহজ হবে। বক্তব্য রাখেন গাউসিয়া কিমিটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট মোসাহেব উদ্দিন বখতিয়ার, তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষের মাঝে প্রতিনিয়ত ইমানী আলো ছড়াচ্ছেন শাহিনশাহে ছিরিকোট দরবারের আওলাদে রাসুলগণ। আওলাদে রাসুলের র্মযাদা এত বেশী যে, যা কারও সাথে তুলনা দেয়া যায়না। তরিক্বতে আসার উদ্দেশ্য হচ্ছে নবী করিম (দ.) র্পযন্ত পৌছা। আর সেই তরিকত ও গাউসিয়া কমিটির খেদমত ঠিক ভাবে করলে তারা অলি হয়ে কবরে যেতে পারবেন। অন্যান্যদের মধ্য বক্তব্য রাখেন, আনজুমানে রির্চাস সেন্টারের পরিচালক আল্লামা এম এ মান্নান, জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়ার মুহাদ্দিস আল্লামা মুফতি বখতিয়ার উদ্দিন, দাওয়াতে খাইরের প্রধান মুয়াল্লিম মাওলানা মোজাম্মেল হক, হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা গাউসিয়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলহাজ আহসান হাবিব চেšধুরী হাসান, রাউজান পৌর কাউন্সিলর বশির উদ্দিনর খান, সাবেক পৌরকাউন্সিল আসাদ উল্লাহ, আবু ইফসুফ চেšধুরী, আলহাজ মো. মুসা, কামরুল হাসান, মাওলানা আব্দুল খালেক, অধ্যক্ষ মাওলানা ইলিয়াছ নুরী, প্রকৌশলী নুরুল আজিম, জমিরুল ইসলাম মাস্টার, মারফাতুন নুর, রাজনীতিক এসএম বাবর, ব্যাংকার মো. ইয়াকুব, সমাজসেবক মো. মুসা, দক্ষিণ রাউজান গাউসিয়া কমিটির সভাপতি আহমেদ সৈয়দ, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ হানিফ, আজিজুল হক, আজম আলী, মাওলানা সরোয়ার আলম, সাংবাদিক এম. বেলাল উদ্দিন, নাইমুল হক, ওসমান গণি, মাস্টার রফিকুল আলম, মাওলানা রফিকুল ইসলাম রেজবী, মাওলানা নুরুল আবসার তৈয়বী, এম এ মতিন, মাওলানা জয়নাল আবেদীন, উপাধ্যক্ষ সাইদুল আলম খাকী, মাওলানা ওবাইদুন্নাছের নঈমী, মাওলানা শামসুল আলম হেলালী, আবুল মনসুর, শামসুল আলম নঈমী, নুরুল আমিন, মোরশেদ আলম, সাইদুল ইসলাম, মাওলানা আব্দুল কাদের সাকিব, সালামত রেজা কাদেরী, মাসুমুর রশিদ কাদেরী, মাওলানা বাহা উদ্দিন ওমর, মাওলানা আইয়ুব আনরাসী, আলহাজ মাওলানা শহিদল্লাহ, মাওলানা হারুনুর রশিদ কাদেরী, মাওলানা হারুনুর রশিদ নক্সবন্দি, মাওলানা আকবর হোসেন রেজবী। এদিন বাদে আসর হাজার হাজার র্পদানসীন মহিলা হলদিয়া ইফনিয়নের উল্টর সর্তা খানকাহ প্রাঙ্গণে আলাদা প্যান্ডেলে অবস্থান নিয়ে হুজুরের নসিহত শুনে তার হাতে বায়াত গ্রহণ করেন। সুন্নী কনফারেন্স শেষে ফকিরটিলাস্থ তৈয়বীয়া তাহেরীয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন হুজুর কিবলা।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *