Breaking News
Home / সারাদেশ /  শেরশাহ সড়কের মুখে ফুটপাতে আরও তিন দোকান

 শেরশাহ সড়কের মুখে ফুটপাতে আরও তিন দোকান

শেরশাহ সড়কের মুখে ফুটপাতে আরও তিন দোকান

সিটিজিট্রিবিউন:নগরীর শেরশাহ সড়কের মুখে সৌন্দর্যবর্ধনের জায়গায় এবার দোকান নির্মাণ করছেন আওয়ামী লীগ নেতা। সেখানে নতুন করে আরো তিনটি দোকান নির্মাণের অনুমতি দিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ভূ-সম্পদ বিভাগ। এতে সড়কের পাশে সৌন্দর্যবর্ধনের স্থানটুকুও  খালি রাখলো না কর্পোরেশন। এর আগে শেরশাহ সড়কের দুইপাশে আরো ১০০টি দোকান বরাদ্দ দেয় সিটি কর্পোরেশন। ফুটপাতে দোকান বরাদ্দ দেয়ার কারণে বিষয়টি বেশ সমালোচিত হয়। গতকাল শনিবার সরেজমিন পরিদর্শনে দেখাযায়, শেরশাহ সড়কের প্রবেশ মুখে বাম পাশে দুই তলা বিশিষ্ট দোকান নির্মাণের কাজ চলছে।

এর আগে বরাদ্দ দেয়া ১০০ দোকান টিনশেডের একতলা বিশিষ্ট হলেও এর কয়েকটি  দুই তলা করে নির্মাণ করা হয়েছে। হকারদের পুনর্বাসনের কথা বলে ফুটপাতে দোকান দেয়া হলেও সদ্য নির্মিত দোকানটি বরাদ্দ নিয়েছেন বায়েজিদ থানার জালালাবাদ ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন। গতকাল শনিবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে নাজিম উদ্দিন নিজের নামে দোকান বরাদ্দ নেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, সিটি কর্পোরেশনের ভুসম্পদ বিভাগের অনুমিতপত্র নিয়ে তিনি দোকান নির্মাণ করেছেন। নাজিম বলেন, সেখানে অনেকে দোকান নিয়েছেন। আমি রাজনীতি করি বলেই অনেকে অনেক কথা বলছে।

নকশার বাইরে দোকান বরাদ্দ  দেয়া প্রসেঙ্গ নাজিম বলেন, পরে নকশা পরিবর্তন করা হয়েছে। কর্পোরেশনের চাহিদা অনুযায়ী টাকা জমা দিয়ে দোকান বরাদ্দ নিয়েছি। জানতে চাইলে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত ভুসম্পত্তি কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন জানান, শুরুতে সেখানে ১০০ দোকান বরাদ্দ দেয়া হয়েছিলো। তিনটি দোকান প্রস্তাবিত ছিলো। সেখান থেকে একটি দোকান নাজিমের নামে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। দোকানগুলো পরে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, শেরশাহ সড়কের মুখে সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য স্থানটি রাখা হয়েছিলো। স্থানীয় কাউন্সিলরের সুপারিশে দোকানগুলো বরাদ্দ  দেয়া হয়েছে। এতে আমাদের কোন হাত নেই।

এ ব্যাপারে কাউন্সিলর শাহেদ ইকবাল বাবু জানান, নতুন দোকান বরাদ্দের ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। তা ছাড়া আমি চাইলে তো দোকানা বরাদ্দ দিতে পারি না।   ২০২০ সালের ১৮ অক্টোবর শেরশাহ  এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান চালায় সিটি কর্পোরেশন। সেই সময় ফুটপাত হকারমুক্ত  করা হয়। ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি উচ্ছেদ করা স্থানে সিটি কর্পোরেশন  ফের ফুটপাতে দোকান বরাদ্দের সিদ্ধান্ত দেয়।

গত বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বলা হয়েছে, উচ্ছেদকৃত শেরশাহ, টেক্সটাইল গেট ও তারা গেট ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসন করার লক্ষ্যে  ২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি নিন্মোক্ত সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। চসিকের প্রকৌশল বিভাগ জায়গা চিহ্নিতকরন করেন। চিহ্নিত জায়গা এস্টেট শাখা থেকে বরাদ্দ দেওয়া হবে। ভাড়া আদায় করা হবে। দোকান মালিকগণ তাদের নিজস্ব খরচে দোকান নির্মাণ করবেন।

সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানা যায়, তারা গেইট ব্যবসায়ী কল্যান সমিতি ও  শেরশাহ রোড ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির ব্যানারে শেরশাহ সড়কের দুই পাশের ফুটপাতে ১০০, তারা গেইট সড়কের দুইপাশের ফুটপাতে ৯০ ও টেক্সটাইল মোড় থেকে চন্দ্রনগরমুখী সড়কের দুই পাশে ৬৫টিসহ মোট ২৫৫টি দোকান নির্মাণ করা হবে। ফুটপাতের কোথাও ৮১ বর্গফুট, কোথাও ৭৫ বর্গফুট  আবার কোথাও ৬০ বর্গফুট দোকানের  সেলামী বাবদ গড়ে তিন লাখ টাকা করে সেলামী নিচ্ছেন সিটি কর্পোরেশন।  সেলামী টাকার বাইরে ফুটপাতের দোকানঘরগুলো ব্যবসায়ীরা নিজেদের অর্থে তৈরি করে নিচ্ছেন। ইতিমধ্যে ২৫৫ জন দোকানদারের তালিকার কাজ শেষ হয়েছে। তালিকাভুক্ত লোকজন টাকাও জমা দিয়েছেন।

স্থানীয় লোকজন জানান, সড়কের দুই পাশের ফুটপাতে দোকান নির্মাণ করা হলে সাধারন লোকজনকে সড়ক দিয়েই চলাফেরা করতে হবে। দোকানের গ্রাহকদের সড়কে দাঁড়িয়ে কেনাকাটার কাজ  করতে হবে। এতে এলাকায় নতুন করে যানজট সৃষ্টি হবে। ফুটপাতে দোকান নির্মাণ না করার দাবি জানিয়ে ইতিমধ্যে টেক্সটাইল মহল্লা আওয়ামীলীগের নেতারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে লিখিত চিঠিও দিয়েছেন। তারা বলেন, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সমিতির নামে ফুটপাতে দোকান বরাদ্দ নেয়ার পেছনে কিছু ব্যক্তি লাখ লাখ টাকা বাণিজ্য করছেন। অথচ এসব ফুটপাত দিয়ে  গার্মেন্টস ও শিল্প কারখানার হাজারো শ্রমিক চলাফেরা করেন। এ এলাকায় রয়েছে একাধিক গার্মেন্টস ও শিল্প কারখানা। এসব প্রতিষ্ঠানের  মালামাল আনা নেয়ার কাজে ভারী যানবাহনও চলাচল করছে এ এলাকা দিয়ে।প্রতিবেদন:কেইউকে।

About kamal Uddin khokon

Check Also

জেলহত্যা দিবসে দুস্থদের মাঝে ‘স্বপ্ন উচ্ছ্বাস সংঘ’র খাবার বিতরণ

জেলহত্যা দিবসে দুস্থদের মাঝে ‘স্বপ্ন উচ্ছ্বাস সংঘ’র খাবার বিতরণ প্রেস বিজ্ঞপ্তি:জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে জাতীয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *