Breaking News
Home / আইন বিচার / মদ্রিচ ম্যাজিকে চ্যাম্পিয়ন মাদ্রিদ

মদ্রিচ ম্যাজিকে চ্যাম্পিয়ন মাদ্রিদ

মদ্রিচ ম্যাজিকে চ্যাম্পিয়ন মাদ্রিদ

 

সিটিজি ট্রিবিউন খেলাযোগ;

দুটো অসাধারণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ সেমিফাইনালে জয়লাভ করে স্প্যানিশ সুপার কাপের ফাইনালে উঠেছিলো দুই দল রিয়াল মাদ্রিদ ও আথলেটিক বিলবাও। সে তুলনায় ফাইনালটা কিছুটা হলেও ম্যাড়মেড়ে বলতেই হয়, যাতে এথলেটিক বিলবাওকে ২-০ গোলে পরাজিত করে সুপার কাপে নিজেদের ১২তম শিরোপা জিতলো রিয়াল মাদ্রিদ।

স্পেন থেকে ৭০০০ কিলোমিটার দূরে সৌদি আরবের কিং ফাহাদ স্টেডিয়ামে রোববার অনুষ্ঠিত হয় এই ম্যাচ। ২য় মেয়াদে রিয়াল মাদ্রিদের দ্বায়িত্ব নিয়ে প্রথম শিরোপা জিতলেন কার্লো আনচেলোত্তি।

ম্যাচের শুরুটা দেখে অবশ্য মনে হয়নি ম্যাচটা কম প্রতিদ্বন্দ্বিতা পূর্ণ হবে বরং দুই দলই গতিময় ফুটবল উপহার দিয়েছিলো শুরুতে। এথলেটিক বিলবাওয়ের ইয়াংকি উইলিয়ামস আর ওহিয়ান স্যানচেট শুরু থেকেই ভীতি ছড়াচ্ছিলেন রিয়াল শিবিরে।

তবে ম্যাচের সময় গড়ানোর সাথে সাথে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণটাও নিজেদের হাতে নিয়ে আসে রাজকীয় মাদ্রিদ। ডান প্রান্তে রদ্রিগো আর বাঁ প্রান্তে ভিনিসিয়াস জুনিয়র নিয়মিতই আক্রমণ করছিলেন যদিও গোলের দেখা পেতে লা লীগার শীর্ষে থাকা দলটির অপেক্ষা করতে হয়েছে ম্যাচের ৩৮ মিনিট পর্যন্ত।

মাঝমাঠ থেকে জার্মান স্নাইপার টনি ক্রুসের নিখুঁত পাস খুঁজে নেয় ব্রাজিলিয়ান তারকা ক্যাসেমিরোকে, সেখান থেকে মদ্রিচের সাথে বল দেয়া-নেয়া করে বল পান ডান প্রান্তে থাকা ব্রাজিলিয়ান তারকা রদ্রিগো, দুর্দান্ত গতিতে বক্সে ঢুকে দুই বিলবাও ডিফেন্ডারকে ফাঁকি দিয়ে কিছুটা কাটব্যাক করে রদ্রিগো বল বাড়ান মদ্রিচের উদ্দেশ্যে।

বিন্দুমাত্র দেরি না করে চলন্ত বলেই পা চালান এই ক্রোট মিডফিল্ডার, তান ডান পায়ের এই অসাধারণ শর্টের কোন জবাব ছিলোনা বিলবাও গোলকিপার ইয়ুনি সিমনের কাছে যার ফলে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় রিয়াল মাদ্রিদ। এই গোল দিয়েই একটা ব্যক্তিগত রেকর্ড করে ফেলেছেন এল লুকিতা,

স্প্যানিশ সুপার কাপের ইতিহাসে তার চেয়ে বেশি বয়সে গোলের দেখা পাননি আর কেউ। যদিও ঠিক একই রকম একটা আক্রমণ থেকে অল্পের জন্যই গোল বঞ্চিত হয়েছিলেন এই মৌসুমে মাদ্রিদের হয়ে অবিশ্বাস্য সময় কাটানো করিম বেঞ্জেমা।

রদ্রিগোর কাছ থেকে পাওয়া বলে দুর্দান্ত কিক নিলেও বল বারপোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে গেলে প্রথমার্ধে আর গোল পাওয়া হয়নি মাদ্রিদের ফলে ১-০ গোলের ব্যবধানে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় রিয়াল মাদ্রিদ।

বিরতির পর অবশ্য গোল পেতে বেশি অপেক্ষা করতে হয়নি আনচেলোত্তির শিষ্যদের। দ্বীতিয়ার্ধের ৭ মিনিটে বক্সের ভেতর ইয়ারে আলভারেজ হ্যান্ডবল করলে পেনাল্টি পায় মাদ্রিদ আর তা থেকেই দলকে ২-০ গোলে এগিয়ে নেনে করিম বেঞ্জেমা আর নিশ্চিত করেন সুপার কাপে রিয়ালের ১২ তম শিরোপা।

বলার মতো ঘটনা অবশ্য আরো দুটি আছে এই ম্যাচে যার একটি ভিনিসিয়াস জুনিয়রের বদলি হিসেবে মার্সেলো মাঠে নামার সাথে সাথেই মাদ্রিদের নিয়মিত অধিনায়ক বেঞ্জেমা তার অধিনায়কের বাহুবন্ধনী খুলে পরিয়ে দেন মাদ্রিদের বহু সাফল্যের কারিগর মার্সেলোর বাহুতে যা বন্ধুত্ব, ভাতৃত্ব ও ভালোবাসার নিদর্শন হয়ে থাকবে ফুটবল প্রেমীদের মনে।

আর দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটে ম্যাচের ৮৭ মিনিটে, মাদ্রিদের বক্সে ভেসে আসা বলে হেড করেন বিলবাওয়ের রাউল গার্সিয়া যা হেড ব্লক করতে লাফিয়ে ওঠা মাদ্রিদ সেন্টার ব্যাক এডার মিলিতাওয়ের হাতে লেগে দিক বদলে চলে যায় বারপোস্টের ওপর দিয়ে।

ভার চেক করে রেফারি সিজার সোতো বাজান পেনাল্টির বাঁশি আর মিলিতাওয়ের ভাগ্যে জোটে সরাসরি লাল কার্ড, যা নিয়ে রেফারির সাথে বাগবিতন্ডায় জড়ান মাদ্রিদ খেলোয়াড়েরা। নিজের আদায় করে নেয়া পেনাল্টিটি নিজেই নিয়েছিলেন রাউল গার্সিয়া তবে মাদ্রিদের বেলজিয়ান তারকা কিপার থিবো কর্তোয়ার নৈপুণ্যে এ যাত্রায় গোল বঞ্চিত হন বিলবাও তারকা।

ম্যাচের শুরুতে অবশ্য আরেকটি পেনাল্টির আবেদন করেছিলেন বিলবাও খেলোয়াড়েরা, সেবার বল লেগেছিলো ডেভিড আলাবার হাতে তবে বিলবাও খেলোয়াড়দের আবেদনে সাড়া দেননি রেফারি সিজার।

এই শিরোপা জয়ের মধ্যে দিয়ে শিরোপা সংখ্যায় মাদ্রিদ কিংবদন্তী পাকো জেন্তোর পাশে বসলেন ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তী মার্সেলো, দু’জনেরই রিয়ালের হয়ে শিরোপা সংখ্যা ২৩ আর বেঞ্জেমা হয়ে গেলেন ফ্রান্সের খেলোয়াড়দের মধ্যে সবচেয়ে বেশি শিরোপা জেতা খলোয়াড়। ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের মাঝমাঠের জাদুকর লুকা মদ্রিচ।

 

About Ayaz Ahmed

Check Also

সরকারী ছুটিকে কাজে লাগিয়ে বান্দরবানে রাতের আধারে পাহাড় কাটার মহোৎসব

সরকারী ছুটিকে কাজে লাগিয়ে বান্দরবানে রাতের আধারে পাহাড় কাটার মহোৎসব   সিটিজি ট্রিবিউন বান্দরবান প্রতিনিধি, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *