Breaking News
Home / আইন বিচার / ভূমির সীমানা নিয়ে দফায় দফায় দুই পরিবারের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ,

ভূমির সীমানা নিয়ে দফায় দফায় দুই পরিবারের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ,

ভূমির সীমানা নিয়ে দফায় দফায় দুই পরিবারের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ,

সিটিজি ট্রিবিউন চট্টগ্রাম;

চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহর থানাধীন রঙ্গিপাড়া এলাকায় জায়গার সীমানা নিয়ে দফায় দফায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে স্থানীয় বাসিন্দা নছুয়া খাতুন ও তার প্রতিবেশী আবুল কালামের পরিবারের মধ্যে। চলমান জমি সংক্রান্ত বিরোধের সমাধানের বহু চেষ্টা করেও সমাধানে ব্যার্থ বলে জানিয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি মোহাম্মদ আসলাম।

তিনি বলেন, প্রায় সাত থেকে আটবার জমি সংক্রান্ত বিরোধের সমাধানের চেষ্টা করলেও সাময়িকভাবে কিছুদিনের জন্য সংঘর্ষ বন্ধ থাকে পরবর্তীতে আবার এ বিরোধ শুরু হয়।

বিচার সালিশি কার্যক্রম উপেক্ষা করে দফায় দফায় ঝগড়া-বিবাদে জড়িয়ে পড়েন দুই পরিবার। সম্প্রতি দফায় দফায় ইট পাটকেল ছোড়াছুড়িতে ভাংচুর সহ আহত হন নছুয়া খাতুনের পরিবারের সদস্যরা।

বারবার সামাজিক বিচার কার্যক্রমের মাধ্যমে সমাধান না হওয়ায়, বিষয়টি সমাধানের জন্য ন্যায় বিচারের উদ্দেশ্যে বিজ্ঞ আদালতের দ্বারস্থ হন নছুয়া খাতুন।

গত ২০২০ সালের ৮সেপ্টেম্বর বিএস ৫০৫৮ দাগে আদালতে করা মামলার রায় নছুয়া খাতুনের পক্ষে প্রদান করে মামলা নিস্পত্তি করেন বিজ্ঞ আদালত।

আদালতের নির্দেশে বেশ কিছুদিন উভয় পক্ষ শান্তি শৃংখলা বজায় রাখলেও সম্প্রতি আবুল কালাম নতুন ভবন নির্মাণ করার চেষ্টা করলে এতে আপত্তি জানায় নছুয়া খাতুনের পরিবার,

নছুয়া খাতুন এর পুত্র বধু শারমিন সুলতানা বলেন, ফৌজদারী কার্যবিধি ১৪৭ ধারা এবং ফৌজদারি কার্যবিধি ১৪৫ ধারা মামলার রায় বিজ্ঞ আদালত নছুয়া খাতুন এর পক্ষে দিলে, প্রায় তিন বছর জমি সংক্রান্ত সমস্যার বিরোধ বন্ধ ছিল। কিন্তু বর্তমানে বিজ্ঞ আদালতের রায় উপেক্ষা করে আবুল কালামের পরিবার পুনরায় বসত ঘর করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।

এর পূর্বে বারবার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতায় সরকারি সার্ভেয়ারের মাধ্যমে জমির সীমানা মাপামাপি সমাধান করে দিলে এতদিন আবুল কালামের পরিবার কিছুদিন চুপচাপ ছিল।

কিন্তু হঠাৎ করে এক সপ্তাহের মধ্যে আবুল কালামের পরিবার আদালতের রায়কে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সীমানা অতিক্রম করে ভবন নির্মাণ কিভাবে করতে পারে! তিনি আরো বলেন বিষয়টির সঠিক সুরাহা হওয়ার জন্য আমার শাশুড়ি নছুয়া খাতুন এর পরিবর্তে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে আমি হালিশহর থানায় লিখিত অভিযোগ ও পুলিশ কমিশনার এর নিকট দরখাস্ত করি।

অন্যদিকে প্রতিবেশী আবুল কালামের পরিবার ভিন্ন অভিযোগ তুলে বলেন, তিন বছর জমি খালি থাকা অবস্থায় কোনো ঝগড়া-বিবাদ হয়নি, কিন্তু এখন আমরা ঘর নির্মাণ করার কার্যক্রম শুরু করলে নির্মাণাধীন সামগ্রী রাস্তা দিয়ে আনতে বাধা-বিপত্তি ঘটায় নছুয়া খাতুন এর পরিবার।

রাস্তা ব্যবহারের জন্য নছুয়া খাতুন এর পরিবার পাঁচ লক্ষ টাকা দাবি করেন বলেও জানিয়েছেন আবুল কালামের পরিবার ।

এদিকে শান্তি শৃংখলা বজায় রাখতে হালিশহর থানার কর্তব্যরত পুলিশ সদস্য এসআই মবিনুল ইসলাম সরেজমিনে গিয়ে সার্বেয়ারের মাধ্যমে জমি মেপে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন।

সীমানা নিয়ে এই বিরোধের বিষয়ে সিএমপি উপ-পুলিশ কমিশনার আব্দুল ওয়ারিশ বলেন, সীমানা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে নাকি অন্য কোন বিষয় নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে তা আমরা খতিয়ে দেখে অবশ্যই ব্যবস্থা নিব।

প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপে সীমানা নিয়ে রক্তারক্তির এই বিরোধ দ্রুত সমাধান করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন স্থানীয়রা, অন্যথায় প্রাণহানির মত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে পারে বলেও আশংকা করছেন স্থানীয়রা।

 

About Ayaz Ahmed

Check Also

সরকারী ছুটিকে কাজে লাগিয়ে বান্দরবানে রাতের আধারে পাহাড় কাটার মহোৎসব

সরকারী ছুটিকে কাজে লাগিয়ে বান্দরবানে রাতের আধারে পাহাড় কাটার মহোৎসব   সিটিজি ট্রিবিউন বান্দরবান প্রতিনিধি, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *