Breaking News
Home / আইন বিচার / নাফ নদী থেকে ৪.১৭৫ কেজি ক্রিস্টাল মেথ আইস এবং ৫০,০০০ পিস ইয়াবা জব্দ করেছে (বিজিবি ২)

নাফ নদী থেকে ৪.১৭৫ কেজি ক্রিস্টাল মেথ আইস এবং ৫০,০০০ পিস ইয়াবা জব্দ করেছে (বিজিবি ২)

বিজিবি’র অভিযানে টেকনাফের জালিয়ারদ্বীপ সংলগ্ন নাফ নদী থেকে ৪.১৭৫ কেজি ক্রিস্টাল মেথ আইস এবং ৫০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ

 

আয়াজ সানি সিটিজি ট্রিবিউন চট্টগ্রাম তারিখঃ ১৮ জানুয়ারি ২০২২

 

বিজিবি’র টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) এর অভিযানে টেকনাফের জালিয়ারদ্বীপ সংলগ্ন নাফ নদী থেকে এখন পর্যন্ত দেশের সকল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, জব্দকৃত নিষিদ্ধ ঘোষিত ক্রিস্টাল মেথ আইস এর মধ্যে সবচেয়ে বড় চালান ২২,৩৭,৫০,০০০/- (বাইশ কোটি সাঁইত্রিশ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা মূল্যমানের ৪.১৭৫ কেজি ক্রিস্টাল মেথ আইস এবং ৫০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট জব্দ করতে সক্ষম হয়েছে।

লেঃ কর্ণেল শেখ খালিদ মোহাম্মদ ইফতেখার অধিনায়ক, টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) জানান;

বিজিবি’র টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) ১৮ জানুয়ারি ২০২২ তারিখ রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, অত্র ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ দমদমিয়া বিওপি’র দায়িত্বপূর্ণ বিআরএম-৮ থেকে আনুমানিক ০২ কিঃ মিঃ উত্তর-পূর্ব দিকে জালিয়ারদ্বীপ এলাকার পার্শ্ববর্তী নাফ নদীর সীমান্ত দিয়ে মাদকের একটি বড় চালান মিয়ানমার হতে বাংলাদেশে পাচার হতে পারে।

উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) এর ব্যাটালিয়ন সদর এবং দমদমিয়া বিওপি হতে দুইটি বিশেষ টহলদল নাফ নদীর জালিয়ারদ্বীপে কৌশলগত অবস্থান গ্রহণ করে। আনুমানিক রাত ২২৪৫ ঘটিকায় টহলদল একটি কাঠের নৌকাকে শোয়ারদ্বীপ এলাকা থেকে নাফ নদী পার হয়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে জালিয়ারদ্বীপের দিকে আসতে দেখে।

নৌকাটি শূন্য রেখা অতিক্রম করলে বিজিবির টহলদল তৎক্ষণাত নৌকাটিকে চ্যালেঞ্জ করে। নৌকার আরোহীরা বিজিবি’র চ্যালেঞ্জকে উপেক্ষা করে নৌকা ঘুরিয়ে মিয়ানমার সীমান্তের দিকে চলে যেতে থাকলে বিজিবি টহলদল উক্ত সন্দেহভাজন নৌকাটিকে থামানোর চেষ্টা করে।

এতে অজ্ঞাতনামা চোরাকারবারীরা নৌকা হতে লাফিয়ে নাফ নদী দিয়ে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে, বিজিবি’র টহলদল ধাওয়া করে নৌকাটি আটক করতে সক্ষম হয়।

নৌকাটি তল্লাশী করে নৌকাটির ভিতরে পাটাতনের নিচে একটি বস্তার ভিতরে লুকায়িত অবস্থায় ২২,৩৭,৫০,০০০/- (বাইশ কোটি সাঁইত্রিশ লক্ষ পঞ্চাশ হাজার) টাকা মূল্যমানের ৪.১৭৫ কেজি ক্রিস্টাল মেথ আইস এবং ৫০,০০০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।

চোরাকারবারীদেরকে আটকের নিমিত্তে বর্ণিত এলাকা ও পার্শ্ববর্তী স্থানে পরবর্তী রাত ২৪০০ ঘটিকা পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করা হলেও কোন চোরাকারবারী কিংবা তাদের সহযোগীকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে, উক্ত চোরাকারবারীদের সনাক্ত করার জন্য অত্র ব্যাটালিয়নের গোয়েন্দা কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

এছাড়া অবৈধ মাদক বহন এবং পাচারের দায়ে অজ্ঞাত দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় একটি মামলা দায়ের করার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

উল্লেখ্য, টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) সদা জাগ্রত হয়ে বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণের বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তে “DEFENDER OF THE STRATEGIC SOUTH” হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। টেকনাফ ব্যাটালিয়ন সীমান্ত সুরক্ষা ছাড়াও চোরাচালান,

মাদকদ্রব্য, অবৈধ অনুপ্রবেশ এবং আন্তঃ রাষ্ট্রীয় সীমান্ত অপরাধ দমনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অনুসরণ করে যথাযথ ও কার্যকরীভাবে পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালন করে বেসামরিক পরিমন্ডলে ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করে আসছে।

 

About Ayaz Ahmed

Check Also

সরকারী ছুটিকে কাজে লাগিয়ে বান্দরবানে রাতের আধারে পাহাড় কাটার মহোৎসব

সরকারী ছুটিকে কাজে লাগিয়ে বান্দরবানে রাতের আধারে পাহাড় কাটার মহোৎসব   সিটিজি ট্রিবিউন বান্দরবান প্রতিনিধি, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *