Breaking News
Home / সারাদেশ / গোরবের বাতিঘর চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল

গোরবের বাতিঘর চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল

গোরবের বাতিঘর চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল

সিটিজিট্রিবিউন:: বৃটিশ আমলে অবিভক্ত বাংলায় প্রথম সরকারি বিদ্যালয় ছিল চট্টগ্রাম কলেজিয়েট। ১৮৩৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এই বিদ্যালয় দীর্ঘ পথচলায় বহু বিখ্যাত রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, পেশাজীবী, চিকিৎসক, বিজ্ঞানী ও শিল্পীকে শিক্ষার্থী হিসেবে পেয়েছে।

১৮৫তম বছরে এসে এখনও জ্ঞানের বাতিঘর হয়ে দাঁড়িয়ে আছে চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল। কবি নবীনচন্দ্র সেন, নিখিল ভারত কংগ্রেসের সভাপতি ও কলকাতা সিটি করপোরেশনের মেয়র দেশপ্রিয় যতীন্দ্র মোহন সেন ও বিজ্ঞানী আবদুল্লাহ আল মুতী শরফুদ্দীনের মতো বরেণ্য ব্যক্তিরা চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছিলেন।

এছাড়া বিজ্ঞানী ড. জামাল নজরুল ইসলাম, সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদ, বাংলা একাডেমির সাবেক মহাপরিচালক মুস্তাফা নূরউল ইসলাম, অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল, অভিনেতা আতাউর রহমান ও আবুল হায়াত, পূর্ব পাকিস্তানের সাবেক গভর্নর জাকির হোসেন, মোশাররফ হোসেন এমপি, আবদুল্লাহ আল নোমান, মইন উদ্দীন খান বাদল, সাবেক উপপ্রধানমন্ত্রী জামাল উদ্দীন আহমেদ, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, এম মোরশেদ খান, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান লেখাপড়া করেছেন এ শিক্ষায়তনে।

সদরঘাট থানাধীন আইস ফ্যাক্টরী রোডে অবস্থিত এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা প্রতিবারই মাধ্যমিক পরীক্ষায় অসামান্য কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখে আসছে। সময়ের সাথে সাথে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেওয়ায় এখানে কলেজ শাখা খোলা হয়েছে।

ক্রীড়াঙ্গনেও কলেজিয়েটসদের বিচরণ রয়েছে। আন্তর্জাতিক গ্র্যান্ডমাস্টার নিয়াজ মোরশেদ, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক আশীষ ভদ্র, জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু এই প্রতিষ্ঠানের ছাত্র।

চট্টগ্রামে ব্রিটিশ সরকারের প্রতিষ্ঠিত প্রথম ইংরেজি মাধ্যম স্কুল ছিল এটি। প্রতিষ্ঠার সময় এই বিদ্যালয়ের নাম ছিল ‘চট্টগ্রাম গভর্নমেন্ট স্কুল’। তবে বিদ্যালয়টি এখনকার জায়গায় ছিল না। এর অবস্থান ছিল চকবাজার প্যারেড ময়দানের দক্ষিণে ও বর্তমান মহসিন কলেজের পূর্বদিকে।

১৮৬৯ সালে সেখানে সরকারি এফ এ কলেজ প্রতিষ্ঠিত হলে বিদ্যালয়টি মার্কট সাহেবের পাহাড়ের দক্ষিণ প্রান্তে বর্তমান সরকারি মুসলিম হাইস্কুলের দক্ষিণ পাশে একটি পাকা ভবনে স্থানান্তর করা হয়। পরে ১৮৮৬ সালে বিদ্যালয়টি আইস ফ্যাক্টরি রোডের বর্তমান স্থানে স্থানান্তরিত হয়।

বিদ্যালয়ের একতলা ভবন বহুতল হয়েছে, সেই সুবিশাল খেলার মাঠ, ইন্ডাস্ট্রিয়াল আর্টসের কারখানা এখনও কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। কলেজিয়েটের শিক্ষক ডি এল সাহা, জহুরুল হক, আবদুল হাই, মোখলেসুর রহমান, বিমল বড়ুয়ার মতো গুণীজনদের নিয়ে প্রত্যেক প্রজন্মের কাছে জমা আছে এক একটি গল্প।

একুশের প্রথম কবিতা ‘কাঁদতে আসিনি, ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি’-এর কবি মাহবুব উল আলম চৌধুরী তাঁর লেখা কবিতাটি প্রথম পাঠ করেছিলেন ২২ ফেব্রুয়ারি কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্রদের কমনরুমে। অনেকের স্কুলজীবনের স্মৃতির সঙ্গে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধও জড়িয়ে আছে ওতপ্রোতভাবে। !প্রতিবেদন:কেইউকে।#

#

 

About kamal Uddin khokon

Check Also

জেলহত্যা দিবসে দুস্থদের মাঝে ‘স্বপ্ন উচ্ছ্বাস সংঘ’র খাবার বিতরণ

জেলহত্যা দিবসে দুস্থদের মাঝে ‘স্বপ্ন উচ্ছ্বাস সংঘ’র খাবার বিতরণ প্রেস বিজ্ঞপ্তি:জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে জাতীয় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *