Home অপরাধ

সিলেট নগরী সুরমা মার্কের ‘নিউ সুরমা আবাসিক হোটেল’ থেকে অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগে ৬ যুবক-যুবতীকে আটক করেছে।

রোববার (২ আগস্ট) সিলেট মহানগর পুলিশের মিডিয়া শাখা থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

এরআগে শনিবার (১ আগস্ট) রাতে কোতোয়ালি থানার এসআই (নিরস্ত্র) নিশু লাল দে, এসআই (নিরস্ত্র) মো. ইবাদুল্লাহ, এএসআই (নিরস্ত্র) মানিক মিয়া, এএসআই (নিরস্ত্র) সাজ্জাদুর রহমানসহ ‍পুলিশের একটি দল অভিযান চালায় ওই হোটেলে। এসময় অনৈতিক কাজে লিপ্ত থাকা অবস্থায় ৩ জন যুবক ও ৩ জন যুবতীকে আটক করা হয়।

কক্সবাজার প্রতিনিধি।কক্সবাজারের টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের উত্তর লখালী এলাকায় একনারীর ক্রয়কৃত জমি জোরপুর্বক দখলে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে স্থানীয় একটি ভুমিদস্যু চক্র। বৃহস্পতিবারও জোরপুবর্ক জমি দখলে নিয়ে ধানের চারা রোপনের দুইদফা চেষ্টা ব্যর্থ করে দিয়ে বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ।

বুধবার ও মঙ্গলবার সকালে খবর পেয়ে পুলিশ দু’দফা অভিযান চালায়। এসময় কোদালসহ কৃষি উপকরণ জব্দ করা হয়। বৃহস্পতিবার সকালেও জোরপুর্বক ঊান রোপনের চেস্টা চালালে জমির মালিক পক্ষের লোকজন ভুমিূস্যুূের নিবৃত্ত করে।

জানা গেছে, রাজধানীর পুর্ব রায়ের বাজার এলাকার ফারজানা ইউছুপ (স্বামী -আসিফ ইউছুপ।১১৩/৯,পুর্ব
রায়ের বাজার, ঢাকা)। নামের একজন নারী ২০০৯ সালে টেকনাফ বাহারছড়া ইউনিয়নের উত্তর শীলখালী এলাকার বোদা গাজীর ছেলে মোহাম্মদ হোছন নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে রেজিঃ কবলামুলে ৯৪ শতক জমি ক্রয় করেন। সেই সময় থেকে ক্রেতা ফারজানা ইউছুপের দখল ও নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, বাহারছড়া ৩ নং ওয়ার্ডের উত্তর শীল খালী এলাকার বাসিন্দা মগবুল আহম্মেদ, আবু সাহেদ,জয়নাল উদ্দিন, কামাল উদ্দিন, নুরুল হাকিমসহ একদল ভুমিদস্যু ওই নারীর জমিখানা দখলের পায়তারা চালিয়ে আসছিল। এঘটনায় জমির ক্রয় সুত্রে মালিক ফারজানা ইউছুপের পক্ষে ভুমিদস্যুদের বিরুদ্ধে বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে লিখিত অভিযোগও দেয়া হয়।
সুত্রে আরো জানা গেছে, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে উভয় পক্ষকে নিয়ে বৈঠকও হয়েছে। তবে জমির স্বপক্ষে কোন কাগজপত্র দেখাতে না পারায় মগবুল আহম্মদগংকে ওই জমিতে প্রতি বন্ধকতা সৃষ্টি না করতে নির্দেশ দেয়া হয়।

এদিকে, গত মঙ্গলবার ও বুধবার দুই দফা জমি দখল করে সেখানে জোরপুর্বক ধানের চারা (রোয়া) বপনের চেষ্টা করে। খবর পেয়ে বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের এএসআই লিটনের নেতৃত্ব একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে ভুমিদস্যুদের চেষ্টা ব্যর্থ করে দেন এবং দখলদারদেরকে ভৎর্সনা করে সেখান থেকে সরিয়ে দেয়।

এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকালে ফারজানা ইউছুপের মালিকানাধীন জমিতে ধান রোপনের চেষ্টা করছিল একদল ব্যক্তি। খবর পেয়ে সেখানে ছুটে যান জমির মালিক ফারজানা ইউছুপের সাথে বায়নানামা সুত্রে মালিক পক্ষ স্থানীয় আবুল বশরসহ লোকজন। তারা তাদের জমিতে ধান রোপনে বাধা দেয় এবং ভুমিদস্যুদের চেষ্টা ব্যর্থ ও তাদের নিবৃত করা হয়।

জমির মালিক ফারজানা ইউছুপ জানান,বাহারছড়া উত্তর শীলখালী এলাকার মুসা আলী ছেলে মো. হোছনের কাছ থেকে ৯৪ শতক জমি গত ৮/৭/২০০৯ সালে ১৬৪০ নং কবলা দলিলমুলে রেজিষ্ট্রি নেন তিনি। শীলখালী মৌজার আরএস জমাবন্দি ৫৩৯/২৩৯ খতিয়ান, বিএস খতিয়ান নং- ৮৭৯, বিএস দাগ নং-৩০১৮, ৩০১৯, ৩০২২, ৩০২৩,নিদৃষ্ট ট্রেস ম্যাপও রয়েছে।

ফারজানা ইউছুপ জানান, এটা আমার নামে কেনা জমি। এই জমিটি এখন দখলের জন্য কয়েকজন ব্যক্তি দখল করে ধান রোপনের অপচেষ্টা করছে। এই ব্যাপারে আমি উর্ধবতন পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
এ বিষয়ে বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী বলেন, অভিযোগের বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে।

খালি জায়গা পেলেই সেখানে দখল করতে চাইবে, ধান রোপনের চেষ্টা করবে? অবশ্যই এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।

সি টি জি ট্রিবিউন: সিলেটে অভিনব কৌশলে এক র‍্যাব সদস্যের বাসায় ডাকাতি সংগঠিত করেছে সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্র। সন্ধ্যায় কৌশলে রান্না করা খাবারে নেশা জাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে রাতে ডাকাত চক্র বাসায় ঢুকে নগদ টাকাসহ প্রায় তিন-চার লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ঐ র‍্যাব সদস্যের স্ত্রী ও তিন সন্তান।

ঢাকা উত্তরাস্থ র‍্যাব ব্যাটালিয়ন-১ এ কর্মরত এএসআই মনজুর আহমদের সিলেট নগরীর নবাব রোড এলাকার ৮নং সিদ্দিকি ভিলায় এমন ঘটনা ঘটেছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তার স্ত্রী এবং তিন সন্তানের জ্ঞান এখনো ফিরে নি। ডাকাত চক্র র‍্যাব সদস্যের বাসা ছাড়াও একই সাথে পাশের বাসায় সিলেট এলজিআরডি অফিসে কর্মরত এক কর্মচারীর বাসায়ও ডাকাতি করেছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে সিলেট কোতয়ালী থানার ওসি সেলিম আহমদের নাম্বারে কল করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেন নি।

খোজ নিয়ে জানা গেছে, শুক্রবার সন্ধ্যার কোন এক সময়ে বাসার পেছন দিকের গ্রীলের সামান্য অংশ কেটে রান্নাঘরের খাবারের সাথে নেশাজাতীয় দ্রব্য মিশিয়ে দেয় ডাকাত দলের সদস্যরা। রাতে খাবার খেয়ে র‍্যাব সদস্যের স্ত্রী সন্তান অজ্ঞান হয়ে ঘুমিয়ে পড়লে গ্রীল কেটে বাসায় ঢুকে ডাকাত দল।

এসময় বাসায় রাখা নগদ ১লক্ষ টাকাসহ, স্বর্ণালংকার ও মূল্যবান জিনিসপত্রসহ প্রায় তিন-চার লক্ষ টাকা মালামাল ডাকাতি করে নিয়ে যায় ডাকাত দল। শনিবার সকালে তাদের আত্মীয়-স্বজনেরা ঘরের দরজা ভেঙ্গে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা গেছে তারা আশংকামুক্ত নয়।

র‍্যাব সদস্য মনজুর আহমদ জানান, মাত্র এক সপ্তাহ আগে তিনি ঢাকা উত্তরায় র‍্যাব ব্যাটালিয়ন-১ এ যোগদান করেছেন। এর আগে তিনি সিলেটের বিভিন্ন থানায় কর্মরত ছিলেন। শুক্রবার রাত থেকে তিনি তার স্ত্রী সন্তানদের মোবাইলে কল করলেও কোন রিপ্লাই না পাওয়াতে আত্মীয়-স্বজনদের খবর দেন।

সবকিছু শুনে শনিবার সকালেই বিমানে সিলেটে আসেন। উনার স্ত্রী ও ছোট ছোট তিন সন্তানের শারীরিক অবস্থা এখনো পুরোপুরি ঠিক হয়নি বলে জানান তিনি।

লিয়াকত হোসেন রাজশাহীঃরাজশাহীর পুঠিয়ায় বাংলা টিভি’র রাজশাহী প্রতিনিধি বিজয় ঘোষকে হত্যার হুমকি দিয়েছে।
এ ব্যাপারে শুক্রবার রাতে পুঠিয়া থানায় একটি সাধারণ ডাইরী করেছে বিজয় ঘোষ।
থানায় জমা দেওয়া সাধারণ ডাইরী সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাতে রাজশাহী জেলার পুঠিয়া উপজেলার কাঁঠালবাড়ীয়ার কালিতলা নামকস্থানে অজ্ঞাত নামা দুই জন ব্যাক্তি মোটরসাইকেল থামিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে। আর বলে ফিড মিলের মালিক আতিকুর রহমানের নামে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করেছিস। ভাই তোর বিরুদ্ধে মামলা করবে এবং প্রয়োজনে শেষ করে ফেলবে বলে চলে যায়। এ ঘটনার পর সাংবাদিক বিজয় ঘোষ পুঠিয়া থানায় ১৭ জুলাই হাজির হয়ে সাধারণ ডাইরী নং ৬৪২ করেছে।
সাংবাদিক বিজয় ঘোষকে হত্যার হুমকি দেওয়ায় তৎক্ষনিক নিন্দা ও প্রতিবাদ জনিয়েছেন পুঠিয়া উপজেলা প্রেসক্লাব ও স্থানীয় সাংবাদিক বৃন্দ।

0 0

ঢাকার কেরানীগঞ্জ থানার আরশিনগরে ট্রাকের ধাক্কায়(অজ্ঞাত)এক অটোরিক্সা চালক নিহত হয়েছে।  তাকে উদ্ধার করে কেরানীগঞ্জ জেলা সদর  হাসপাতালে নেওয়ার পথে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে। নিহত (অজ্ঞাত) রিক্সা চালকের লাশ কেরানীগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করা হয় এবং ট্রাক্টিকে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

কেরানীগঞ্জ  থানার দায়িত্তরত ডিউটি অফিসার জানান, আজ বুধবার রাত ৯ঃ৪৫ মিনিটে বসিলা ব্রিজ হইতে নয়া বাজার যাওয়ার পথে  এই ঘটনা ঘটে। এ সময় ওই ট্রাকটি যাত্রীবাহী অটো রিক্সাকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থল থেকে রিক্সা চালককে উদ্ধার করে হাসপাতাল এ নিয়ে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।নিহতের নাম ঠিকানা কোন কিছুই জানতে পারি নাই আমরা ।  নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করার প্রস্তুতি নিচ্ছি আমরা।

বিশেষ প্রতিনিধিঃ দেলোয়ার হোসেন

সি টি জি ট্রিবিউন স্টাফ রিপোর্টারঃনীলফামারীর ডিমলায় পাষণ্ড স্বামী ও তার পরিবার কর্তৃক পাশবিক নির্যাতনের শিকার কাকলী গুরুতর আহত অবস্থায় জলঢাকা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।
গক রোববার রাতে প্রথম দফায় স্বামীর পরে শাশুড়ী ননদের পাশবিক নির্যাতনে গুরুতর আহত হয়ে জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয় ওই নির্যাতিত নারী খাতিজাতুন জান্নাত কাকলী আক্তার (২০)।

অভিযুক্ত নির্যাতনকারীরা, স্বামী নাজমুল হুদা, শাশুড়ী নাজলী বেগম, ননদ আরজুমা আক্তার ও সুমাইয়া আক্তার। এরা উপজেলার ঝুনাগাছ চাপানী ইউনিয়নের দক্ষিণ সোনাখুলি গ্রামের আমিনুর রহমান মাওলানার পরিবার।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, খাতিজাতুন জান্নাত কাকলী আক্তারকে বিয়ের পর থেকে বিভিন্ন সময় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছে স্বামী নাজমুল হুদা।
সে যৌতুকের জন্য চাপ দেওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রায়ই কাকলী আক্তারের উপর নির্যাতন চালায় পাষণ্ড স্বামী নাজমুল হুদা।

নির্যাতিত কাকলী কয়েক দফা হাসপাতালে এবং গ্রাম্য চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসা নিয়েছেন। এঘটনায় বেশ কয়েকবার শালিস বৈঠকে ভালো হয়ে চলার প্রতিশ্রুতি দিয়ে স্ত্রী কাকলী আক্তারকে বাড়িতে নিয়ে যায়। কিছুদিন যেতে না যেতেই আবারও শুরু হয় নির্যাতন। সর্বশেষ রোববার রাতে তাকে বেধরক মারধর করলে সে গুরুতর আহত হয়।

গৃহবধূ খাতিজাতুন জান্নাত কাকলী আক্তার এ প্রতিবেদককে বলেন, “বিয়ের পর থেকেই প্রায়ই তুচ্ছ ব্যাপার নিয়ে আমার উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালায় আমার স্বামী। প্রায় আমাকে বলে যা তোর বাপের বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে আয়। এ নিয়ে কথায় কথায় আমাকে মারধর করে।সে অন্য মেয়ের সাথে মোবাইলেও কথা বলে।

আমি কিছু বলতে গেলে এ নিয়ে প্রায় প্রতিদিন আমাকে নির্যাতন করে। পরশুদিন হঠাৎ বাড়িতে এসে আমার বাবার দেয়া মোটরসাইকেল আমার সামনে লাথি মারতে থাকে।আমি কিছু বলতে গেলে আমাকে খারাপ ভাষায় গালিগালাজ করে।

এরপর আমাকে বেধরক মারপিট করে। তারপর আমার শাশুড়ী ননদরাও আমাকে মেরেছে। আমি প্রশাসনের কাছে ন্যায় বিচারের দাবি জানাচ্ছি। বক্তব্যের জন্য অভিযুক্ত পরিবারের সাথে বিভিন্ন মাধ্যমে যোগাযোগ করলেও তারা মিডিয়ার সামনে বক্তব্য দিতে আসেনি।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় অভিযোগ দেয়ার প্রস্তুতি চলছে।

0 0

সি টি জি ট্রিবিউনবোয়ালখালী প্রতিনিধি : বোয়ালখালীতে ধর্ষণের শিকার হয়ে (১৭) বছরের এক কিশোরী অন্তসত্ত্বা হওয়ার ঘটনার ৮ মাস পর মামলা হয়েছে। ৭ জুলাই মঙ্গলবার রাত ২টার সময় কিশোরীর মা বাদী হয়ে ধর্ষক মিন্টু চন্দ্র (২২) কে প্রধান, বাবা বাঁশি চন্দ্রকে ২নং, মা ছেনু চন্দ্রকে ৩নং আসামি করে বোয়ালখালী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

বর্তমানে কিশোরী ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। আগামী জুলাই তার সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে কিশোরীর মামলা সূত্রে জানা গেছে।

ঘটনাটি বোয়ালখালী উপজেলার ৬নং পোপাদিয়া ইউনিয়নে ৬নং ওয়ার্ডে কাহার পাড়া।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ২৭ অক্টোবর রাতে কিশোরীকে ঘরে রেখে বাবা ও মা কালিপুজোয় পূজা দিতে যায়। সেই রাত সাড়ে ১২টার দিকে কিশোরীকে একা পেয়ে পার্শ্ববর্তী বাড়ীর বাঁশি চন্দ্রের ছেলে মিন্টু চন্দ্র ঘরে ঢুকে জোর করে তাকে ধর্ষণ করে। কিশোরী চিৎকার করার চেষ্টা করলে ধর্ষণকারী মিন্টু চন্দ্র তার মুখ চেপে ধরে। পরে ফেব্রুয়ারি মাসে কিশোরীর শারীরিক অবস্থার পরিবর্তন হতে শুরু হলে ঘটনাটি মিন্টুর পরিবারকে জানায় কিশোরীর পরিবার।

ধর্ষণকারী মিন্টুর বাবা বাঁশি চন্দ্র কিশোরীকে ছেলের বউ করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে সময়ক্ষেপণ করতে থাকলে ঘটনাটি কিশোরীর পরিবার স্থানীয় চেয়ারম্যানকে জানায়। চেয়ারম্যান ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে আপস-মীমাংসা করবেন বলে আশ্বস্ত করেন। পরে দীর্ঘ সময়ক্ষেপণের কারণে কিশোরীর মা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

বোয়ালখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল করিম বলেন, অভিযোগ পেয়ে ৭ জুলাই রাতে মামলা রজু করা হয়েছে। আসামি গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। মঙ্গলবার সকালে কিশোরীকে জবানবন্দির জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে। তবে স্থানীয়ভাবে আপস-মীমাংসার নামে এ ধরনের ঘটনার দীর্ঘ সময়ক্ষেপণ করাটা দুঃখজনক। এসব ঘটনা কোনোভাবে স্থানীয়ভাবে আপসযোগ্যও না।

সোমবার (৬জুলাই,২০২০খ্রি:) দুপুরে :পিয়নের ব্যাংক হিসাবে ৩০ কোটি টাকা ।লিবিয়ায় মানব পাচারের ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে সিআইডি। মানবপাচারে জড়িত এখন পর্যন্ত ৩৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। আর গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে একটি রিক্রুটিং এজেন্সির একজন পিয়নও রয়েছেন।

সেই পিয়নের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ২০-৩০ কোটি টাকা রয়েছে বলে জানতে পেরেছেন সিআইডির তদন্তাকারীরা। , সিআইডি প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান রাজধানীর মালিবাগে অবস্থিত সিআইডি হেড কোয়ার্টার্সে এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য দিয়েছেন ।তিনি জানান, মানবপাচারের সঙ্গে জড়িত গডফাদাররা আমাদের নজরদারিতে রয়েছ।সিআইডির সংঘবদ্ধ অপরাধ দমন বিভাগের ডিআইজি ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘কুয়েতে মানবপাচারের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত সংসদ সদস্য মো. শহিদ ইসলাম পাপুলের বিষয়ে কুয়েতে তদন্ত চলছে। সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে আমরা কাজ করছি।’

সংসদ সদস্য মো. শহিদ ইসলাম পাপুলের সম্পর্কে অতিরিক্ত আইজিপি ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছি। এছাড়াও এটি আন্তর্জাতিক একটি ইস্যু হওয়ায় অনেক বিষয়ে বিবেচনা করেই কাজ করতে হচ্ছে। আশা করি খুব শিগগিরই এ বিষয়ে জানাতে পারব।’

সিআইডি প্রধান আরো বলেন, ‘মানবপাচারকারীদের বিষয়ে সরকারের দুটি মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে আমরা দুটি তালিকা পেয়েছি। এছাড়াও পাচার হওয়া ভূক্তভোগী, তাদের পরিবার ও বিভিন্ন দেশের অ্যাম্বাসি থেকে অনেক নাম পাওয়া গেছে।

তাদেরও আমরা নজরদারিতে রেখেছি। আমরা মানবপাচারকারী চক্রের গডফাদারদের বিষয়ে অনুসন্ধান করছি।মানবপাচারকারী যারা আটক হয়েছে তাদের কাছ থেকেও আমরা অনেক নাম পেয়েছি।

সেগুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। তাদের গ্রেফতার করতে পারলে অবশ্যই সামনে নিয়ে আসব।’

সি টি জি ট্রিবিউন :চুক্তি ভঙ্গ করে করোনা রোগীদের থেকে বিল আদায়, ভুয়া প্রতিবেদন তৈরিসহ নানা অভিযোগে উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালাচ্ছে র‌্যাব। সেখান থেকে হাসপাতালটির ব্যবস্থাপকসহ আটজনকে আটক করা হয়েছে। তবে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মো. শাহেদ পলাতক।

সোমবার দুপুরের পর থেকে উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরের ১৭ নম্বর সড়কের ওই হাসপাতালে অভিযান শুরু করে র‌্যাব। এতে নেতৃত্ব দেন র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলম। সন্ধ্যার পর তিনি সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। তবে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত (রাত আটটা) অভিযান চলমান।

র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারোয়ার আলমের ব্রিফিং থেকে জানা যায়, রিজেন্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে তিন ধরনের অভিযোগ ও অপরাধের প্রমাণ পেয়েছেন তাঁরা। প্রথমত, তারা করোনার নমুনা পরীক্ষা না করে ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করত। এ ধরনের ১৪টি অভিযোগ র‌্যাবের কাছে জমা পড়ে, যার পরিপ্রেক্ষিতে এই অভিযান।

দ্বিতীয়ত, হাসপাতালটির সঙ্গে সরকারের চুক্তি ছিল ভর্তি রোগীদের বিনা মূল্যে চিকিৎসা দেওয়ার। সরকার এই ব্যয় বহন করবে। কিন্তু তারা রোগীপ্রতি লক্ষাধিক টাকা বিল আদায় করেছে (এ সময় সারোয়ার আলম গণমাধ্যমকর্মীদের বিলের নথি দেখান)। পাশাপাশি রোগীদের বিনা মূল্যে চিকিৎসা দিয়েছে এই মর্মে সরকারের কাছে ১ কোটি ৯৬ লাখ টাকার বেশি বিল জমা দেয়। সারোয়ার আলম বলেন, রিজেন্ট হাসপাতাল এ পর্যন্ত শ দুয়েক কোভিড রোগীর চিকিৎসা দিয়েছে।

সারোয়ার আলমের ব্রিফিং থেকে জানা যায়, রিজেন্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তৃতীয় অপরাধ হলো, সরকারের সঙ্গে চুক্তি ছিল ভর্তি রোগীদের তারা কোভিড পরীক্ষা করবে বিনা মূল্যে। কিন্তু তারা আইইডিসিআর, আইটিএইচ ও নিপসম থেকে ৪ হাজার ২০০ রোগীর বিনা মূল্যে নমুনা পরীক্ষা করিয়ে এনেছে। পাশাপাশি নমুনা পরীক্ষা না করেই আরও তিন গুণ লোকের ভুয়া করোনা রিপোর্ট তৈরি করে।

সারোয়ার আলম আরও জানান, অভিযানে দেখা গেছে, রিজেন্ট হাসপাতালের লাইসেন্স ২০১৪ সালে শেষ হয়ে যায়। এরপর আর লাইসেন্স নবায়ন করা হয়নি। কীভাবে সরকার এমন একটি হাসপাতালের সঙ্গে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা চুক্তিতে গেল, তা খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি। এ ব্যাপারে র‌্যাবের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে। তবে এখন পর্যন্ত অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। সরেজমিনে ঔষধ প্রশাসনের পরিচয়সংবলিত লোকজনকে দেখা গেছে।

সারোয়ার আলম আরও বলেন, র‌্যাব এমন একটি অভিযান চালাবে তা টের পেয়েছেন রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. শাহেদ। অন্য কেউ তাঁর নামে এমন অপকর্ম করছেন, এমন মর্মে শাহেদ দিন দুয়েক আগে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। সারোয়ার আলমের ভাষ্য, মূলত নিজের অপরাধ ঢাকতে শাহেদ জিডির আশ্রয় নিয়েছেন।

0 0

সি টি জি ট্রিবিউন ভোলা জেলা প্রতিনিধিঃঢাকা টু বেতুয়া নৌরুটে চলাচলকারী লঞ্চ কর্ণফুলী-১৩ স্টাফদের যৌন হয়রানি থেকে বাঁচতে মেঘনা নদীতে ঝাঁপ দেন এক কিশোরী যাত্রী।

নদীতে ঝাপ দেয়ার পর লঞ্চ কর্তৃপক্ষ কিশোরীকে নদী থেকে উদ্ধার না করে ঢাকায় চলে যায়। পরে মাছ ধরার ট্রলারের মাঝিরা কিশোরীকে উদ্ধার করে তজুমদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে ওই কিশোরী তজুমদ্দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
তজুমদ্দিন উপজেলার বিচ্ছিন্ন তেলিয়ার চরের মোঃ কবিরের কিশোরী কন্যা (১৬) কাজের সন্ধানে ৪ জুলাই শনিবার ঢাকায় যাওয়ার উদ্দেশ্যে তজুমদ্দিন স্লুইজঘাট থেকে কর্ণফুলী-১৩ লঞ্চে উঠেন।

লঞ্চে উঠার পর লঞ্চের স্টাফরা ওই কিশোরীকে বিভিন্ন কুপ্রস্তাবের মাধ্যমে যৌন হয়রানি করতে থাকেন।
এক পর্যায়ে কিশোরীকে তাদের সাথে কেবিনে রাত্রি যাপন করতে টানাটানি করলে ইজ্জত রক্ষার্থে সে নদীতে ঝাপ দেন। লঞ্চ কর্তৃপক্ষ তাকে উদ্ধার করতে একটি বয়া ফেললেও পানির স্রোতে বয়া ধরতে পারেনি কিশোরী।
পরবর্তীতে তাকে উদ্ধারে অন্যকোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করেই ঢাকার উদ্দেশ্যে চলে যান লঞ্চটি। নদীতে ঝাপ দেয়ার প্রায় ৩ ঘন্টা পর জেলেরা তাকে উদ্ধার করে তজুমদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে কিশোরী তজুমদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

জানতে চাইলে কিশোরীকে উদ্ধার করা নৌকার জেলে রায়হান বলেন, সন্ধ্যার সময় আমার নদীতে মাছ ধরার জন্য নৌকা প্রস্তুত করছিলাম হঠাৎ নদীর মাঝে একজন লোক বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার দিতে শুনে আমার তাকে উদ্ধার করে দেখি মেয়টিকে। পরে তাকে মিজান তালুকদারসহ অন্যরা হাসপাতালে ভর্তি করেন।

হাসপাতালে থাকা তজুমদ্দিন থানার এসআই মোঃ শামীম বলেন, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কিশোরীর সাথে কথা হয়েছে। ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত চলছে, দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কবির সোহেল বলেন, লঞ্চের স্টাফরা অনৈতিক প্রস্তাব দিলে সে নদীতে ঝাপ দেয়ার সময় ডান হাতে আঘাত পায়।

জেলেরা নদী থেকে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে আনলে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়। বর্তমানে তার অবস্থা আগের চেয়ে ভালো রয়েছে।