নতুন চ্যাম্পিয়নের অপেক্ষা -

নতুন চ্যাম্পিয়নের অপেক্ষা

দেখতে দেখতে শেষ হয়ে এলো বঙ্গবন্ধু বিপিএল। ৩৮ দিনের রোমাঞ্চকর লড়াই শেষে বিশেষ এই টুর্নামেন্ট পেয়েছে সেরা দুই দলকে। তাতেই নিশ্চিত হয়ে গেল, বিপিএল পাচ্ছে নতুন চ্যাম্পিয়ন। তা কোন দলের হাতে উঠবে স্বপ্নের শিরোপা? রাজশাহী রয়্যালস নাকি খুলনা টাইগার্স? দুটো দলই যে শ্রেষ্ঠত্বের দাবিদার!

উত্তরটা মিলে যাবে আজ রাতেই। এদিন মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সতাটায় মুখোমুখি হচ্ছে দল দুটি। শিরোপা নির্ধারণী এই ম্যাচের মধ্য দিয়েই আনুষ্ঠানিকভাবে সমাপ্তি হচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বিশেষ টুর্নামেন্টের। জমকালো  উদ্বোধন দিয়ে শুরুর পর শেষ হচ্ছে আতশবাজি বিচ্ছুরণের মাধ্যমে।

বিপিএলের ইতিহাস খুব বেশি দীর্ঘ নয়। এটা হতে যাচ্ছে সপ্তম ফাইনাল। যেখানে নেই আগের ছয় আসরের কোনো ফাইনালিস্ট। বিপিএলের আগের ছয় আসরের তিনবার শিরোপা জিতেছে রাজধানীর ফ্র্যাঞ্চাইজি ঢাকা ডায়নামাইটস ও ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স। দুবার করে শিরোপা জিতেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এবার কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স নামে খেলে রবিন লিগ রাউন্ডে বিদায় নিয়েছে তারা।

ঢাকা দুই দলের হয়েই ট্রফি জয়ের স্বাদ পেয়েছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। তার এবারের দল ঢাকা প্লাটুন ছিঠকে গেছে প্লে-অফ থেকে। মাশরাফিদের বিদায় করে আশা বাঁচিয়ে রেখেছিল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। সেটা শেষ হয়ে গেছে রাসেল তাণ্ডবে। খুলনা টাইগার্স অবশ্য আগে থেকেই টিকিট কেটেছে স্বপ্নের মঞ্চের। দলটির অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমের জন্য এটাই বিপিএলের প্রথম ফাইনাল।

তারকাঠাসা দল নিয়ে স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে পারেনি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সও। ক্রিস গেইলের ঝড়ো হাফসেঞ্চুরির পরও রাজশাহী রয়্যালসের কাছে গেছে মাহমুদুল্লাহর চট্টগ্রাম। আজকের ফাইনালের সবচেয়ে বড় তারকা রাজশাহী অধিনায়ক আন্দ্রে রাসেল। তার অতিমানবীয় ইনিংসেই গেইল-মাহমুদুল্লাহদের স্বপ্নের আয়না ভেঙে চৌচির হয়ে গেছে।

গত ১০ ডিসেম্বর টুর্নামেন্টের ট্রফি ছাড়াই হয়েছে অধিনায়কদের ফটোসেশন। অবশেষে ইংল্যান্ড থেকে ট্রফি এসেছে। সেই ট্রফি নিয়ে শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে হাস্যোজ্জ্বল ফটোসেশন করেছেন খুলনা অধিনায়ক মুশফিক ও রাজশাহীর দলপতি রাজশাহী। আজ ফাইনাল শেষে হাসতে চাইবেন শুধু একজনই। কে হাসবেন শেষ হাসি?

মুশফিক নাকি রাসেল কার হাতে উঠবে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট? রাসেল ট্রফিটা জিততে না পারলে তার আফসোস কিছুটা হলেও কম হবে। কারণ ঢাকার ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে বিপিএল জয়ের স্বাদ তিনি আগেই পেয়েছেন। কিন্তু মুশফিক পাননি। পাবেন কীভাবে এটাই যে তার প্রথম ফাইনাল। উপলক্ষ্যটা স্মরণীয় করে রাখতে মরিয়া হয়েই মাঠে নামবেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক।

বিপিএলের ফাইনাল আট-দশটা সাধারণ ম্যাচ বা দিনের মতো নয়। স্বাভাবিকভাবেই বাড়ানো হয়েছে টিকিটের দাম। যার সর্বনিম্ন মূল্য তিন শ টাকা। সর্বোচ্চ তিন হাজার টাকা। ফাইনালের এই টিকিট এখন হয়ে উঠেছে সোনার হরিণ। হণ্যে হয়ে ফাইনালের টিকিট খুঁজছেন হাজার হাজার ক্রিকেটপ্রেমী।

কিন্তু যে লড়াই দেখার জন্য আবেগ ও চেতনার চূড়ান্তসীমা দেখানো হচ্ছে সেই ম্যাচ জয়ী দলের জন্য থাকছে না কোনো প্রাইজমানি। চ্যাম্পিয়ন দল ট্রফি পাবে, কিন্তু রানার্সআপ দলটির জন্য সান্ত্বনা পুরস্কারেরও ব্যবস্থা নেই। তবে টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড়কে দেওয়া হবে এক হাজার ডলার ও একটি মোটর সাইকেল।

এই বিপিএলে আরো তিনবার দেখা হয়েছে রাজশাহী ও খুলনার। রবিন লিগ রাউন্ড শেষে দুই দলের ব্যবধান না থাকলেও প্রথম কোয়ালিফায়ার পার্থ্যকটা গড়ে দিয়েছে। মুশফিকদের কাছে দুবার হেরেছেন রাসেলরা। তাই আজকের ম্যাচে কিছুটা হলেও এগিয়ে রাখা হচ্ছে খুলনা টাইগার্সকে।

কাল দুই ঘণ্টা ধরে অনুশীলন করেছে দলটি। বিপরীতে অনুশীলন করেনি রাজশাহী। আসলে আগের দিন চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের বিরুদ্ধে রাজশাহী যেমন দম বন্ধ করা জয় পেয়েছে তাতেই এক প্রকার অনুশীলন হয়ে গেছে তাদের! রাসেল প্রায় একা ম্যাচ জেতালেও দলটার সবচেয়ে বড় শক্তি দলীয় পারফরম্যান্স। মুশফিকদের ভরসা টপ অর্ডারের দুর্দান্ত ফর্ম।

সঙ্গে দারুণ বোলিং লাইন আপ তো আছেনই। কিন্তু রাজশাহী রয়্যালসের সবচেয়ে বড় ভয় মোহাম্মদ আমিরকে নিয়ে। প্রথম কোয়ালিফায়ারে পাকিস্তানি এই পেসার একাই তো ধসিয়ে দিয়েছিলেন রাজশাহীকে। বিপিএলের ইতিহাসে সেদিন প্রথম বোলার হিসেবে ছয় উইকেট নেওয়ার অনন্য কীর্তি গড়েন আমির। আজও বাঁ-হাতি বিধ্বংসী পেসারের জাদুকরী বোলিংয়ের অপেক্ষায় থাকবেন ভক্ত-সমর্থকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *